ফনেটিক ইউনিজয়
বই আলোচনা
শাহেরীন আরাফাতের ‘বস্তার’ লড়াইয়ের ইশতেহার
বি ডি রহমতুল্লাহ

নকশালবাড়ির ঐতিহাসিক কৃষক অভ্যুত্থানের ৫০তম বার্ষিকীতে প্রকাশিত তরুণ সমাজ বিশ্লেষক ও লেখক শাহেরীন আরাফাত রচিত বস্তার বইটি  শুধু ছকে বাঁধা একটি বিপ্লবী উপাখ্যান বললে ভুল হবে। এ বইটিতে উল্লিখিত জন-অধ্যুষিত এলাকার সাহিত্য, সংস্কৃতি, আর্থসামাজিক অবস্থার সার্বিক বর্ণনায় সমৃদ্ধ গণমানুষের নিত্যদিনের চালচিত্রের প্রতিবিম্বটিও চমৎকারভাবে ভেসে উঠেছে। আরও স্পষ্ট করে বললে উল্লেখ করতেই হয় যে বইটিতে শুধু সমস্যা, সংকট আর হতাশা নিয়েই সমাপ্তি টেনে দেওয়া হয়নি। সংকট, সংকটের আড়ালে মূল কারণ, কারণের নানা উপযোগিতা ও সংকট সমাধানে গৃহীত পদক্ষেপগুলোর কথাও অতি চমৎকারভাবে তুলে ধরা হয়েছে। বইটি পড়তে আরও ভালো লেগেছে  এ জন্য যে, লেখক তাঁর সৃজনশীল জ্ঞান প্রয়োগ করে সমাধানের লক্ষ্যে পাঠক মতামতকে উদ্বুদ্ধ করতে প্রয়াস চালিয়েছেন। একজন সফল লেখকের, সমাজযোদ্ধার সার্থকতা এর মাঝেই নিহিত।
ইতিহাস ও আন্দোলন-সংগ্রামভিত্তিক  অধিকাংশ রচনাই সাধারণত পাঠকদের নিবিড়ভাবে নিবদ্ধ রাখতে পারে না। কিন্তু বস্তার বইটি এর থেকে ব্যতিক্রম। বইটি পাঠকদের শুধু নিবিষ্টচিত্তে ইতিহাস ও বর্ণিত আন্দোলনের পাঠগ্রহণের সঙ্গেই যুক্ত রাখছে না, বরং প্রতিটি বর্ণে, প্রতিটি শব্দে পাঠকদের মুক্তির নতুন দিনে নিজেদের সম্পৃক্ত করার এক উদ্বেল আহ্বান জানিয়ে এগিয়ে নিচ্ছে। দরিদ্র দেশসমূহের মূল্যবান খনিজ সম্পদসহ প্রায় সব ধরনের সম্পদই আমাদের মতো নয়া ঔপনিবেশিক দেশের সরকারগুলোর সহযোগিতায় যে সাম্রাজ্যবাদী ও ধনী দেশসমূহ দখল ও লুণ্ঠনের এক মহাযজ্ঞ অব্যাহত রাখে, তা লেখক নানা রকম তথ্য দিয়ে উপস্থাপন করেছেন। রুশ বিপ্লবের পর তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোতে ঘোষিত স্বাধীনতা যে বেমালুম মিথ্যা, সামন্তবাদকে হটিয়ে গণতান্ত্রিক আন্দোলনের মাধ্যমে স্বাধীনতা আনা হয়নি বলেই যে এ দেশগুলোর কোথাও নয়া ঔপনিবেশিকতা, এমনকি কোথাও বলা যায় প্রায় ঔপনিবেশিকতার বেড়াজালে শৃঙ্খলিত- লেখক তা তাঁর গ্রন্থে তথ্যভিত্তিক নানা উপমা দিয়ে অত্যন্ত সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন।
সাম্রাজ্যবাদ, সম্প্রসারণবাদ (কোথাও কোথাও) ও ধনী দেশসমূহের নির্মম ও নিষ্ঠুর শোষণে সম্পদের প্রাচুর্য্য থাকা সত্ত্বেও এসব দেশের জনগণ শেষ অব্দি সৃষ্ট সম্পদহানিতে যে মানবেতর জীবন ধারণ করছে, তা বস্তার আদিবাসীদের জীবনের চালচিত্রের উপমা দিয়ে সামনে তুলে এনেছেন। আমাদের বিশেষ করে এদেশের বিপ্লবীদের, সমাজসচেতন বুদ্ধিজীবীদের আজকের এ নতুন দিনের সম্প্রসারণবাদী ও সাম্রাজ্যবাদী রাষ্ট্রসমূহের শোষণের কৌশল সম্পর্কে জানা-বোঝার জন্যই বইটি খুবই প্রয়োজনীয়। মুক্তির লড়াইয়ের কৌশল জানতেও বইটি একটি চমৎকার পথচিহ্ন এঁকে দিয়েছে। লেখককে সে জন্য ধন্যবাদ। বইটির কিছু বিষয়ে আমার সমালোচনা রয়েছে। শুধু বস্তার নাম দিয়ে কি বইতে বর্ণিত মূল বিষয়টি ফুটে ওঠে! আমি এটি বিশ্বাস করি যে, লেখক তা বোঝেন- বইয়ের নাম হলো বইটির মূল বিষয়টির একটি সংক্ষিপ্ত প্রতিফলন। আমি জানি না লেখক কীভাবে এ নামটি পছন্দ করেছেন! তেমনি প্রচ্ছদটি কি বইটির বিষয়বস্তুকে তুলে ধরে? এত চমৎকার একটি বইয়ের বিষয়ের সাথে এ নাম আর প্রচ্ছদ কিছুতেই যায় না বলেই আমার মনে হয়। লেখককে অশেষ ধন্যবাদ এমন একটি বিষয়কে হৃদয়গ্রাহী করে আমাদের হাতে তুলে দেওয়ার জন্য। কামনা রইল আমাদের দেশসহ বিশ্বের নানা অংশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা চলমান সংগ্রাম, বিপ্লবের তথ্যগুলো নিয়ে লেখক এমন আরও অনেক বই লিখে যাবেন।
বইটি পাওয়া যাবে, উৎস পাবলিশার্স, একুশে গ্রন্থমেলা, স্টল নম্বর : ৬২৫।

Disconnect