ফনেটিক ইউনিজয়
একটি সেতুর অপেক্ষায় চার দশক
আল-মামুন, খাগড়াছড়ি

খাগড়াছড়ির মহালছড়ি উপজেলার কেয়াংঘাট ইউনিয়নের চেংগী নদীর ওপর সেতু নেই প্রায় চার দশক ধরে। একটি সেতুর জন্য কেয়াংঘাট ইউনিয়নের মানুষের দীর্ঘদিনের অপেক্ষার প্রহর যেন শেষই হচ্ছে না। বছরের পর বছর ধরে তারা সেতুটি নির্মাণের জন্য জনপ্রতিনিধিসহ প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন জানিয়েও কোনো অগ্রগতি হয়নি। বারবার প্রতিশ্রুতি শুনলেও এর বাস্তবায়ন না হওয়ায় ইউনিয়নটির ৩০টি গ্রামের ৬০ হাজার বাসিন্দার দুর্ভোগ কমেনি।
স্থানীয়রা জানান, এই গ্রামের ৫৫ হাজার মানুষই বিভিন্ন ক্ষুদ্র জাতিসত্তার। এখানে পাঁচটি প্রাথমিক বিদ্যালয় থাকলেও নেই কোনো উচ্চ বিদ্যালয় বা কলেজ। ফলে এখানকার উচ্চ বিদ্যালয় বা কলেজগামী শিক্ষার্থীদের পড়াশুনার জন্য যেতে হয় মহালছড়ি সদরে। চেংগী নদী পার হয়েই যেতে হয় মহালছড়ি সদরে। কিন্তু কোনো সেতু না থাকায় নদীটি পারাপারে চরম দুর্ভোগে পোহাতে হয় স্থানীয়দের। অরুণ চাকমা নামে স্থানীয় এক গ্রামবাসী বলেন, ‘স্বাধীনতার আগে সেতু নির্মাণের জন্য দাবি বা আবেদন জানানোর জায়গা ছিল না। কিন্তু দেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে সেতুটি নির্মাণের জন্য অনেক দৌড়ঝাঁপ করেও কোনো ফল পাওয়া যায়নি।’
কেয়াংঘাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিশ্বজিত চাকমা বলেন, সেতুটি নির্মাণের জন্য তিনি বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন দফতরে যোগাযোগ করেছেন, চিঠি দিয়েছেন। কিন্তু ফলাফল শূন্য।
খাগড়াছড়ির সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা বলেন, ‘সেতুটি নির্মাণের জন্য উদ্যোগ নিয়েছি। আশা করছি, শিগগিরই এলাকার লোকজনের দীর্ঘদিনের অপেক্ষার অবসান ঘটবে।’

Disconnect