ফনেটিক ইউনিজয়
রানীনগরে আধা পাকা ধান কাটছেন কৃষকেরা
কামাল উদ্দিন টগর, নওগাঁ

দেশের উত্তরাঞ্চলে বন্যার পানি বিভিন্ন এলাকায় কমতে থাকলেও এখন পর্যন্ত নওগাঁর রানীনগর উপজেলায় বন্যার পানি উল্লেখযোগ্য পরিমাণে কমেনি। উপজেলাটিতে বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে সদ্য রোপণকৃত ধানের পাশাপাশি আধা পাকা ধান। ফলে পুরো ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পেতে আধা পাকা ধানই কেটে ঘরে তুলতে শুরু করেছেন কৃষকেরা।
সম্প্রতি উত্তরের উজান থেকে নেমে আসা ঢলের পানি ও ভারী বর্ষণে ছোট যমুনার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় বেড়িবাঁধ ও পাকা সড়ক ভেঙে রানীনগর উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চল প্লাবিত হয়। এতে পানিবন্দি হয়ে পড়ে হাজার হাজার মানুষ। উপজেলার পূর্বাঞ্চল বন্যার পানিমুক্ত থাকলেও নওগাঁ সদরে ইকরতারায় বাঁধ ভেঙে বগুড়ার সান্তাহার এলাকাসহ রানীনগরের রক্তদহ বিলে ঢুকে পড়েছে পানি। এ ছাড়া উপজেলার পশ্চিমাঞ্চল ও দক্ষিণাঞ্চলে বাঁধ ভেঙে আত্রাই এলাকা থেকে এবং নাটোরের সিংড়া এলাকা থেকে পূর্ব-দক্ষিণাঞ্চল দিয়ে রানীনগর এলাকায় বন্যার পানি ঢুকছে। ফলে প্রতিদিনই নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। বন্যার পানিতে ফসলের মাঠ ডুবে যাওয়ায় আউশ মৌসুমে রোপণকৃত আধা পাকা বর্ষালি ধানই কৃষকেরা কাটতে শুরু করেছেন।
উপজেলার গোনা গ্রামের কৃষক মফেল আলী জানান, এবার তিনি প্রায় ১৪ বিঘা জমিতে বর্ষালি ধান রোপণ করেছিলেন, আধা পাকা অবস্থায় বন্যার পানিতে সব ধান তলিয়ে গেছে। বন্যার পানি না কমায় নষ্ট হওয়ার হাত থেকে রক্ষা করতে তিনিসহ তাঁর গ্রামের অন্য কৃষকেরা ওই আধা পাকা ধানই কাটতে বাধ্য হয়েছেন।
রানীনগর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এস এম গোলাম সারোয়ার জানান, এবার চলতি আউশ মৌসুমে প্রায় ৩ হাজার ২২০ হেক্টর জমিতে ধান চাষ হয়েছে। বন্যার পানিতে বিভিন্ন এলাকায় প্রায় শতাধিক হেক্টর জমির আধা পাকা ধান সম্পন্ন নিমজ্জিত হয়েছে। প্রায় অর্ধেক ধানই কাটা হয়ে গেছে। এ ছাড়া প্রায় ৭ হাজার ৬০০ হেক্টর জমিতে সদ্য রোপণকৃত আমন ধান বন্যার পানিতে ডুবে গেছে।

Disconnect