ফনেটিক ইউনিজয়
কোটি টাকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সরকার
কালামপুর সাবরেজিস্ট্রার অফিসে অনিয়মের ছড়াছড়ি
শওকত হোসেন সৈকত, ধামরাই

ধামরাই উপজেলার কালামপুর সাব-রেজিষ্টার অফিস কর্মকর্তা-কর্মচারি, পিওন ও দালালের কাছে দুর্নীতি, অনিয়ম নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছে। একটি সিন্ডিকেটের নিকট জিম্মি হয়ে পড়েছে ভুক্তভোগীরা।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এ সিন্ডিকেটে মুল নায়ক আব্দুস সাত্তার। কেউ যদি অবৈধ ও বেআইনিভাবে দলিল রেজিষ্ট্রি করতে চায় তাহলে সাত্তারকে ম্যানেজ করলেই সব অবৈধ কাজ বৈধ হয়ে যায়। দুর্নীতিবাজ সাত্তার অফিস নিয়ন্ত্রণ করতে সেখানে নিয়োগ দিয়েছে নিজের স্ত্রী পারুল, ছোট ভাই বজলুর রশিদ, মেয়ের জামাই আবু বক্করকে। তাদের এইসব অবৈধ কর্মকান্ড ধামাচাপা দেওয়ার জন্য ক্ষমতাসীন দলের শীর্ষ ও স্থানীয় নেতা কর্মী পুলিশ, দলিল লেখক সমিতির সেক্রেটারিকে হাত করে রেখেছেন আব্দুল ছাত্তার ওরফে ছত্তর।
এদিকে বাংলাদেশ সরকারের আইন বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধন ম্যানুয়াল ২০১৪-এর নিয়ম মানছেন না সাবরেজিস্ট্রারও। এ ছাড়া এই অফিসের বিভিন্ন এলাকার জমি রেজিস্ট্রিতে জালিয়াতির অভিযোগ পাওয়া গেছে।
দালালদের সঙ্গে সাবরেজিস্ট্রার অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, সাত্তার আগে করতেন পেঁয়াজের ব্যবসা, তিনি সাবরেজিস্ট্রার অফিসে ব্যাপক দুর্নীতি অনিয়ম ও জাল দদিলের মাধ্যমে সম্পদের পাহাড় গড়েছেন। এতে মামলার সংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে এবং সরকার প্রতিবছর কোটি টাকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।
এ বিষয়ে সাত্তারকে জিজ্ঞাসা করলে তিনি সব অভিযোগ অস্বীকার করেন এবং বলেন, ‘আমার ওপর আনীত অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট।’ এ বিষয়ে ধামরাই ইউএনও আবুল কালাম বলেন, ‘ওই অফিস আমার ডিপার্টমেন্টের বাইরে। তবে আমি বিষয়টি তদন্ত করে দেখব।’

Disconnect