ফনেটিক ইউনিজয়
উপনির্বাচনকে ঘিরে উত্তপ্ত আওয়ামী লীগ
মুরাদ মৃধা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া

নাসিরনগর আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দল এখন প্রকাশ্যে রূপ নিয়েছে। উপনির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে, ততই বিভিন্ন ইস্যুতে ক্ষমতাসীন দলের মধ্যে অস্থিরতা বাড়ছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ (নাসিরনগর) আসনের উপনির্বাচনে নৌকা প্রতীকে মনোনয়নপ্রাপ্ত বিএম ফরহাদ হোসেন সংগ্রামের সঙ্গে নাসিরনগর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা সাধারণ সম্পাদক এটিএম মনিরুজ্জামান সরকার, যুবলীগ সভাপতি অঞ্জন কুমার দেব, সাংগঠনিক সম্পাদক লিয়াকত আব্বাস টিপুসহ কয়েকজন নেতার বিরোধ চরম পর্যায়ে পৌঁছেছে। তাঁরা কোনোভাবেই সংগ্রামকে সহ্য করতে পারছেন না।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মী বলেন, মনিরুজ্জামান সরকারের ছোট ভাই এটিএম মুকুল নৌকার পক্ষে কাজ না করে লাঙ্গলের জন্য ভোট চাচ্ছেন। এটিএম মুকুলের ইউপি অফিসে লাঙ্গলের লোকদের নিয়ে নৌকার প্রার্থীকে পরাজিত করার জন্য বিভিন্ন সময় মিটিং করে আসছে। এমনকি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এটিএম মনিরুজ্জামান সরকারও নৌকার প্রার্থীকে পরাজিত করার জন্য ভেতরে ভেতরে লাঙ্গলের ভোট চাচ্ছেন। তিনি আরো জানান, মনিরুজ্জামান সরকার দলের সাধারণ সম্পাদক হওয়ার পরও কোনো মিছিল-মিটিংয়ে যোগ দেননি। তিনি তার নিজের অনুসারীদের বোঝাতে চাচ্ছেন যে, যদি সংগ্রামকে পরাজিত করতে পারি, তাহলে দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা আগামীতে আমাকে নমিনেশন দেবেন।
এ বিষয়ে ফরহাদ হোসেন সংগ্রাম বলেন, আমরা নাসিরনগর আওয়ামী লীগে কোনো কোন্দল দেখতে চাই না। যারা দলের ভেতর কোন্দলের চেষ্টা করবেন এবং দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে লাঙ্গলের পক্ষে ভোট চাইবেন, তাঁদের ব্যাপারে দল কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হবে। এ বিষয়ে মনিরুজ্জামান সরকার কিছু বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন।
উল্লেখ্য, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এটিএম মনিরুজ্জামান সরকার নাসিরনগর সহিংসতার পূর্বাপর ছায়েদুল হকবিরোধী অবস্থানের কারণে আলোচিত হয়ে ওঠেন। পরে সহিংসতার ঘটনায় উসকানিদাতা হিসেবেও তাঁর নাম আলোচনায় আসে।

Disconnect