ফনেটিক ইউনিজয়
অর্ধকোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ
ফয়সাল শামীম, কুড়িগ্রাম

কুড়িগ্রামের রাজারহাটের ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউনিয়নের সুলতান বাহাদুর গ্রামে নাঈম ইসলামী অ্যাসোসিয়েশন নামের একটি সঞ্চয় সমিতি কর্তৃক গ্রাহকের প্রায় অর্ধকোটি টাকা আত্মসাতের ঘটনা ঘটেছে।
জানা যায়, ওই গ্রামে ২০০১ সালে অসহায়, দুস্থ মানুষের আর্থসামাজিক উন্নয়নের কথা বলে গ্রামের মাওলানা আলতাফ হোসেন ও মাওলানা আব্দুর রহিমসহ কতিপয় ব্যক্তি উপজেলা সমাজসেবা অফিস থেকে রেজিস্ট্রেশন নিয়ে সমিতির কার্যক্রম শুরু করেন। প্রথম দিকে তারা কিছু সামাজিক কাজ করলেও সদস্য সংখ্যা বৃদ্ধির পর তারা একই রেজিস্ট্রেশন দিয়ে ডিপিএস (সঞ্চয়) পাস বই তৈরি করে মাসিক ২০০ থেকে ২ হাজার টাকা পর্যন্ত সঞ্চয় সংগ্রহ শুরু করেন। একপর্যায়ে তারা নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে ঋণ কার্যক্রম চালু করেন। পরে ওই সমিতির সদস্যসহ অন্যদের মাঝে দ্বিগুণ মূল্যে ভোগ্যপণ্য সরবরাহ কার্যক্রম চালু করেন। এভাবে দুই হাজার সদস্যের সঞ্চয় ও ডিপিএসের  মাধ্যমে প্রায় ১ কোটি টাকা ওই সমিতিতে জমা হয়। এরই মধ্যে সমিতি পরিচালনা কমিটির কতিপয় সদস্য মিলে সাধারণ সদস্যদের সঞ্চয়ের টাকা ব্যাংকে জমা না করে নিজেদের নামে জমি ক্রয়ের ঘটনা জানাজানি হলে সাধারণ সদস্যরা তাদের টাকা ফেরত চান। এরপর কিছু গ্রাহকের টাকা ফেরত দেয়া হলেও সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যদের টাকা ফেরত প্রদানের কথা বলে পরিচালনা কমিটি টালবাহনা শুরু করে। একপর্যায়ে তারা সঞ্চয়ের টাকা ফেরত প্রদানে অস্বীকৃতি জানালে ভুক্তভোগীরা কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক ও সমাজসেবা কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন।
এ বিষয়ে ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান রবীন্দ্র নাথ কর্মকার বলেন, আমি তিন দফা সালিশ বৈঠক করার পরও তারা সঠিক হিসাব ও টাকা ফেরত প্রদানে ব্যর্থ হয়েছেন। রাজারহাট উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মশিউর রহমান জানান, এ বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্তের জন্য অভিযোগকারীদের চিঠি দেয়া হলেও তারা উপস্থিত হননি।
নাঈম ইসলামী অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মাওলানা আলতাফ হোসেন জানান, ঘটনা কোটি টাকার নয়, ৪০-৪৫ লাখ টাকার সমস্যা আছে।

Disconnect