ফনেটিক ইউনিজয়
বিদ্যালয়ের মাঠে জলাবদ্ধতা
জাকারিয়া জাহাঙ্গীর, জামালপুর

খেলার মাঠ যেন হাঁসের খামার। মাঠভর্তি পানি, তাই দেয়াল ডিঙানোই ভরসা! পাঠদান চলে স্যাঁতসেঁতে পরিবেশে। নোংরা, দুর্গন্ধ ও দূষিত পানির কারণে ছড়িয়ে পড়ছে রোগব্যাধি। এমনই চিত্র জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার পোগলদিঘা ইউনিয়নের ১৩নং চেচিয়াবাধা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে।
বিদ্যালয় সুত্র জানা যায়, এ বিদ্যালয়টি ১৯৭২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমানে বিদ্যালয়ে ২২৪ জন শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত। জলাবদ্ধতার কারণে প্রতিদিনই অনেক শিক্ষার্থী অনুপস্থিত থাকছে। ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় বিদ্যালয়ের এ অচলাবস্থা। টানা চার মাস ধরে বৃষ্টির পানি আটকা পড়ে বিদ্যালয়টির স্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধের পথে। মাঠে জমে থাকা পানিতে হাঁসের অভয়াশ্রম গড়ে উঠেছে। শিক্ষার্থীদের পা চুবিয়ে বিদ্যালয়ে যাতায়াত করায় প্রায়ই পানিতে পড়ে নষ্ট হচ্ছে বই-খাতা। নোংরা পানির জন্য অনেকেই হাতে-পায়ে চুলকানিসহ বিভিন্ন চর্মরোগে আক্রান্ত হয়েছে। শিক্ষার্থীরা বাধ্য হয়ে এখন নিয়মিত বাউন্ডারি দেয়াল টপকিয়ে শ্রেণিকক্ষে যায়।
সহকারী শিক্ষিকা কোহিনূর খাতুন ও জমিলা বেগম বলেন, দেয়াল টপকিয়ে যাতায়াত করতে গিয়ে বিদ্যালয়ের পিয়ন কয়েকদিন আগে গুরুতর ব্যথা পেয়েছেন। সব জায়গায় পানি থাকায় বাথরুমেও যেতে পারি না, এ দুর্ভোগ বলতেও লজ্জা লাগে।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা আকলিমা খাতুন বলেন, জলাবদ্ধতা সমস্যা দীর্ঘদিনের। সামান্য বৃষ্টি হলেই মাঠ ভরে যায়। পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা না থাকায় স্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। এ বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার আবদুল হালিম বলেন, বিদ্যালয়ের সমস্যাটি জানি। শিক্ষা অফিস থেকে পানি নিষ্কাশনের বরাদ্দ নেই, এটা স্থানীয়ভাবেই করতে হবে। তবে সংস্কারের তালিকায় বিদ্যালয়টির নাম রাখা হয়েছে, বরাদ্দ  পেলে কাজ করা হবে।

Disconnect