ফনেটিক ইউনিজয়
সুন্দরবন সুরক্ষায় ভূমিকা রাখছে ‘স্মার্ট পেট্রোলিং’
এসএস শোহান, বাগেরহাট

বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ ছাড়াও মানবসৃষ্ট কারণে প্রতিনিয়ত ধ্বংস হচ্ছে পৃথিবীর বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবন। আর সুন্দরবন রক্ষার জন্য সরকার পরীক্ষামূলকভাবে জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্টের অর্থায়নে ২০১৮ সালের জানুয়ারি মাসে সুন্দরবন সুরক্ষায় স্মার্ট পেট্রোলিং (স্পেশাল মনিটরিং এনালাইজিং অ্যান্ড রিপোর্টিং টুলস) নামে একটি প্রকল্প চালু করে সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগ। এ টিম সুন্দরবনের রয়েল বেঙ্গল টাইগার, হরিণসহ সকল বন্যপ্রাণী এবং সুন্দরবনের সম্পদ রক্ষায় কাজ করছে।
এটি চালু হওয়ার পর থেকে সুন্দরবনে যেমন অপরাধ কমছে, তেমনি অপরাধীদের কাছে আতঙ্কে পরিণত হয়েছে স্মার্ট পেট্রোলিং। সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের শরণখোলা ও চাঁদপাই এ দু’টি রেঞ্জে এর চারটি টিম কাজ করে। একটি টিমের টহল শেষ হলে শুরু হয় অন্য টিমের অভিযান। ফলে সার্বক্ষণিক নজরদারিতে থাকে সুন্দরবন। এ টিম চালু হওয়ার পর জানুয়ারি থেকে জুন এ ৬ মাসে বিভিন্ন মামলায় ৫৬ জন অপরাধীকে আদলতে সোপর্দ করা হয়। সুন্দরবনের অভ্যন্তরে সংগঠিত অপরাধের জন্য ৯১টি মামলা করেছে এ টিম। এছাড়া অবৈধভাবে ব্যবহৃত ১শ’ ১০টি নৌকা, ২২টি ট্রলার, ১টি কার্গো, ২শ’টি হরিণের ফাঁদ, ৩শ’ ৫৫টি চারো, অনুমোদনহীন ২শ’ ৭৪টি মাছ ধরার জাল, ২৩টি কাঠ কাটার যন্ত্রপাতিসহ উল্লেখযোগ্য পরিমাণ কাঠ, মাছ ও কাকড়া জব্দ করেছে এ টিম।
চাঁদপাই রেঞ্জ এলাকার স্মার্ট পেট্রোলিং টিমের কমান্ডার মো. সাইফুল বারী বলেন, সুন্দরবনের কিছু কিছু এলাকা আছে যা খুবই দুর্গম। যেখানে খুব সহজে প্রবেশ করা যায় না। কিন্তু এটি চালু হওয়ার পর থেকে যে কোনো জায়গায় অপরাধের খবর শুনলেই দ্রুত গতির স্পিডবোট ও প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম নিয়ে আমরা যেতে পারি। এছাড়া স্মার্ট পেট্রোলিং চালু হওয়ার পরে সুন্দরবনে অপরাধের সংখ্যা অনেক কমেছে।

Disconnect