ফনেটিক ইউনিজয়
পানি শোধনাগার চালুতে অনিশ্চয়তা
ইমরান হোসেন, নড়াইল

সদর পৌরবাসীর বিশুদ্ধ খাবার পানির নিশ্চয়তা দেওয়ার জন্য নির্মাণ করা হয়েছে একটি পানি শোধনাগার। শোধনাগারটির  নির্মাণের মূল কাজ ২ বছর পূর্বে শেষ হলেও পাম্প হাউজ ও ড্রেনেজ জটিলতায় এখনও চালু হয়নি। দীর্ঘদিন পরেও শোধনাগারটি চালু না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এলাকাবাসী।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের ব্যবস্থাপনায় ২০১৪ সালের অক্টোবর থেকে নড়াইল শহরের কুড়িগ্রাম এলাকায় ৮ কোটি ৯৯ লাখ টাকা ব্যয়ে ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্টের কাজ শুরু হয়। শি-এমটি এন্ড এসএস কনসোর্টিয়াম নামে একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এ প্লান্ট নির্মাণ করে। দু’টি পাম্প হাউজ ও একটি বর্জ্য পানি অপসারণের জন্য ড্রেনেজ ব্যবস্থা না করায় এ প্লান্ট চালু করা হয়নি আজও। শোধনাগারটি চালু করতে হলে চারটি পাম্প হাউজের পানি প্রয়োজন হবে। বিভিন্ন জটিলতার কারণে নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান একটি করে পাম্প হাউজ নির্মাণ করতে ব্যর্থ হয়। পরে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কাজের চুক্তি বাতিল করে নতুন করে দু’টি পাম্প হাউজ  নির্মাণ করার জন্য প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। টেন্ডার প্রক্রিয়ার ম্যাধ্যমে দ্রুত দু’টি পাম্প হাউজ নির্মাণ করার প্রক্রিয়া চলছে। নাম প্রকাশ না করা শর্তে নড়াইল জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের এক কর্মকর্তা জানান,  একটি মহলের অসহযোগিতা করার জন্য জমি জটিলতার কারণে দু’টি পাম্প হাউজ আজও নির্মাণ করা সম্ভব হয়নি। বর্তমানে সেই জমি জটিলতার সমস্যা কেটে গেছে।
প্রকল্পটি চালু না হওয়ার অন্যতম কারণ বার বার নড়াইল জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলীর নির্বাহী প্রকৌশলী পরিবর্তন হওয়া।

Disconnect