ফনেটিক ইউনিজয়
ঝুঁকির অজুহাতে চলছে গাছ নিধন
শামীম কাদির, জয়পুরহাট

জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার বালিঘাটা ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে গাছগুলো ঝুঁকির অজুহাতে চলছে নিধন।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, বালিঘাটা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলার সামাজিক বন বিভাগ এর কর্মকর্তারা নিজেদের স্বার্থ হাসিলের জন্য গাছ নিধন করছেন। চেয়ারম্যান সামাজিক বন বিভাগে যে দরখাস্তে দেন তাতে ইউনিয়ন কর্তৃক গাছ কাটার রেজ্যুলেশন ও উপজেলা প্রশাসনের অনুমতির কোন রেজুলেশন কপিও সংযুক্ত করা হয়নি। গ্রামের রাস্তাতে যানবাহন, মানুষের চলাচল, যান-মালের ক্ষতির অজুহাতে ঝুঁকিযুক্ত গাছকে অপসারণের নামে পাটাবুকা, সুলতানপুর, নওদা এলাকায় বড় গাছও কাটা হচ্ছে।
দরখাস্তের প্রেক্ষিতে জয়পুরহাট অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কোন প্রকার পরিদর্শন ছাড়াই ২০১৮ সালের জুন মাসে গাছের সংখ্যা উল্লেখ ছাড়াই কিছুসংখ্যক গাছের মূল্য নির্ধারণের জন্য বিভাগীয় কর্মকর্তার কার্যালয়ে অনুমতির জন্য পাঠায়। এরই প্রেক্ষিতে বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মুহাম্মদ সুবেদার ইসলাম বনজদ্রব্য পরিবহণ (নিয়ন্ত্রণ) বিধিমালা-২০১১ এর বিধি মোতাবেক কিছু শর্তসাপেক্ষে গাছ বিক্রয়সহ কাটার অনুমতি প্রদান করেন।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন এলাকাবাসী বলেন, গাছগুলোকে ঝুঁকিপূর্ণ বলা হচ্ছে কিন্ত এত ঝড়-বৃষ্টি গেল তবুও  তো গাছগুলো পড়ে যায়নি। এদিকে গাছগুলো যদি বড়ই না হবে তাহলে ঝুঁকিপূর্ণ হলো কেমন করে, গাছের যে সরকারি মূল্য ধরা হয়েছে গাছের একটা শাখার দাম তাই হবে। এতে করে সরকার রাজস্ব হারাচ্ছে বলে অভিযোগ তাদের। আসলে সবকিছুই চেয়ারম্যান করছেন ক্ষমতার জোরে।
বালিঘাটা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নূরুজ্জামান চৌধুরী বিপ্লব বলেন, ঝুঁকিপূর্ণ বিধায় দরপত্রের মাধ্যমে গাছ বিক্রয় করা হয়েছে।

Disconnect