ফনেটিক ইউনিজয়
ঝুঁকি নিয়ে চলছে ট্রেন
এস কে সাহেদ, লালমনিরহাট

ব্রিটিশ আমলে নির্মিত মেয়াদোত্তীর্ণ তিস্তা রেলসেতুর ওপর দিয়ে এখনো ঝুঁকি নিয়ে চলছে ট্রেন। মেয়াদ শেষ হওয়ার তিনযুগ পেরিয়ে গেলেও নতুন করে রেলসেতু নির্মাণের উদ্যোগ নেয়নি কর্তৃপক্ষ। ফলে সেতুটি ভেঙে পড়ে যে কোনো মুহূর্তে ঘটতে পারে দুর্ঘটনা। বর্তমানে সেতুর ওপর দিয়ে মোট ২০টি ট্রেন চলাচল করছে।
রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চল লালমনিরহাট বিভাগ সূত্রে জানা যায়, প্রায় ২০০ বছর আগে অবিভক্ত বাংলার একপ্রান্ত আলাদা করে রেখেছিল প্রমত্তা তিস্তা নদী। সে সময় এ নদীর ওপর রেলসেতু নির্মাণ সম্ভব ছিল না। তাই নদী পারাপারের জন্য বাষ্পীয় ইঞ্জিন চালিত ফেরির ব্যবস্থা ছিল। নর্দান বেঙ্গল স্টেট রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ ১৮৩৪ সালে ২,১১০ ফুট লম্বা এই রেলসেতুটি নির্মাণ করে। তখন এটি ছিল দেশের তৃতীয় বৃহত্তম রেলসেতু। সেই থেকে রেলসেতুটি রেল চলাচলের জন্য ব্যবহৃত হয়ে আসছে। কিন্তু ১৯৩৬ সালে রেলসেতুটির মেয়াদ শেষ হয়।
এরপর সারা দেশের সাথে লালমনিরহাট ও কুড়িগ্রামের সড়ক যোগাযোগ স্থাপনের জন্য বিকল্প সড়ক রেলসেতু নির্মাণের দাবি ওঠে। পরে ১৯৭৭ সালে রেলওয়ে এবং সড়ক ও জনপথ যৌথভাবে রেলসেতুতে মিটারগেজ লাইনের পাশে ২৬০টি স্টিলের টাইপ প্লেট ও কাঠের পাটাতন স্থাপন করে।
 ২০০৮ সালের ডিসেম্বরে তিস্তা সড়ক সেতুর কাজ শুরু হয়। পরে ২০১২ সালের ২০ সেপ্টেম্বরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যান চলাচলের জন্য উদ্বোধন করেন। কিন্তু সড়কসেতু চালু হলেও রেলসেতু নির্মাণের কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি।
রেলওয়ের লালমনিরহাট বিভাগীয় প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম বলেন, রেললাইনে নতুন করে স্টিলের টাইপ প্লেট ও কাঠের পাটাতন স্থাপন করা হয়। এ কারণে রেলওয়ে সেতুটি এখন অনেকটা ঝুঁঁকিমুক্ত।

Disconnect