রাষ্ট্রপতি আজ কিশোরগঞ্জ যাচ্ছেন

রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আবদুল হামিদ। ফাইল ছবি

রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আবদুল হামিদ। ফাইল ছবি

রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আবদুল হামিদ আজ বুধবার সরকারি সফরে নিজ জেলা কিশোরগঞ্জের ‘ভাটিকন্যা’ খ্যাত তাড়াইলে আসছেন।  সেখানে তিনি স্বাধীনতা ‘৭১ ভাস্কর্য উদ্বোধন করবেন এবং রাষ্ট্রপতিকে দেয়া নাগরিক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। 

রাষ্ট্রপতির রাজনৈতিক জীবনের ১৯৭০ সালের প্রথম নির্বাচনী এলাকা (তাড়াইল-ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম-নিকলী) তাড়াইল উপজেলায় রাষ্ট্রপতি হিসেবে এটিই তাঁর প্রথম সফর।

রাষ্ট্রপতির এই সফরকে ঘিরে তাড়াইল উপজেলাসহ আশপাশের কিশোরগঞ্জ সদর, করিমগঞ্জ, ইটনা, নান্দাইল, কেন্দুয়া ও মদন এলাকায় ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা বিরাজ করছে। তাঁর আগমন উপলক্ষে তাড়াইলে ইতোমধ্যে সার্বিক প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। অনুষ্ঠান সফল করতে নেয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, ৯ থেকে ১৫ অক্টোবর রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ কিশোরগঞ্জ জেলার তাড়াইল, কিশোরগঞ্জ সদর, মিঠামইন, ইটনা ও অষ্টগ্রাম উপজেলা সফর করবেন।

রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের সচিব সম্পদ বড়ুয়া স্বাক্ষরিত সফরসূচি থেকে জানা গেছে, তিনি ৯ অক্টোবর দুপুর ১টায় ঢাকা থেকে হেলিকপ্টারযোগে কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলার উদ্দেশে রওনা দেবেন। দুপুর আড়াইটায় সেখানে স্বাধীনতা-৭১ ভাস্কর্য প্রাঙ্গণে তাকে গার্ড অব অনার দেওয়া হবে। পরে তিনি চিরচেনা হিজল-তমাল ছায়া আর হাওর নদী বেষ্টিত তাড়াইল উপজেলা পরিষদ চত্বরে স্বাধীনতা ‘৭১ ভাস্কর্য এর উদ্বোধন করেন।

সফর কর্মসূচি ও স্থানীয় প্রশাসন জানিয়েছে, রাষ্ট্রপতি মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত তাড়াইল মুক্তিযোদ্ধা সরকারি কলেজ মাঠে আয়োজিত নাগরিক সংবর্ধনায় যোগ দেবেন। শ্রম ও কর্ম সংস্থান মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ মুজিবুল হক চুন্নু অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন। সংবর্ধনা অনুষ্ঠান পরিচালনা করবেন তাড়াইল উপজেলা নাগরিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আজিজুল হক ভূঞা মোতাহার।

তাড়াইলের অনুষ্ঠানের পর বিকেল সাড়ে ৫টায় কিশোরগঞ্জ সদরে পৌঁছবেন তিনি। এরপর সন্ধ্যা ৭টায় সার্কিট হাউজে সরকারি কর্মকর্তা, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি ও বিভিন্ন সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন রাষ্ট্রপতি।

নিজ বাসভবনে রাতযাপন শেষে ১০ অক্টোবর দুপুর ১২টায় জেলা বার প্রাঙ্গণে আইনজীবী সমিতির এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেবেন। সেখানে আইনজীবীদের উদ্দেশে ভাষণের পর তিনি জেলা বারের নতুন ১০তলা ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন। বেলা ৩টায় শহরের শ্যামসুন্দর আখড়া পরিদর্শনের পর সন্ধ্যা ৭টায় সার্কিট হাউজে গণ্যমান্য ব্যক্তি ও বিভিন্ন সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন।

১১ অক্টোবর দুপুর ১২টায় হেলিকপ্টারযোগে রাষ্ট্রপতি তার গ্রামের বাড়ি মিঠামইন যাবেন। বেলা ৩টায় মিঠামইনের মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হক সরকারি ডিগ্রি কলেজ সংলগ্ন মাঠে সুধী সমাবেশে ভাষণ দেবেন।

পরের দিন সারা বছর চলাচল উপযোগী ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম সড়কসহ উপজেলায় চলমান বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ পরিদর্শন করবেন। বেলা ৩টায় রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ অডিটোরিয়ামে আবদুল হামিদ ফাউন্ডেশনে তিন উপজেলার (ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম)  ৮৫ জন মেধাবী শিক্ষার্থীকে সম্মাননা ও শিক্ষাবৃক্তি প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেবেন। এরপর ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে ১৫ জন গরিব নারীকে সেলাই মেশিন প্রদান করবেন তিনি।

১৩ অক্টোবর দুপুর ২টায় মিঠামইন থেকে হেলিকপ্টারযোগে ইটনা উপজেলায় যাবেন রাষ্ট্রপতি। সেখানে গার্ড অব অনার শেষে বেলা ৩টায় রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সরকারি কলেজ মাঠে আয়োজিত এক সুধী সমাবেশে যোগ দেবেন ও প্রধান অতিথি হিসেবে ভাষণ দেবেন।

পরের দিন সকালে ইটনায় চলমান বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ পরিদর্শন করে দুপুর ২টায় হেলিকপ্টারযোগে আরেক হাওর উপজেলা অষ্টগ্রামে যাবেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। সেখানে স্থানীয় খেলার মাঠে বেলা ৩টায় আরেকটি সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে ভাষণ দেবেন। অষ্টগ্রামের জেলা পরিষদ ডাকবাংলোয় রাতযাপন শেষে মঙ্গলবার (১৫ অক্টোবর) সকালে উপজেলার বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরিদর্শন শেষে বেলা আড়াইটায় হেলিকপ্টারযোগে ঢাকার উদ্দেশে অষ্টগ্রাম ত্যাগ করবেন তিনি।


মন্তব্য করুন

সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার

© 2019 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh