শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি ফেরিতে ঘরমুখো যাত্রীদের ভিড়

শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌরুটে ফেরিতে ঘরমুখো যাত্রী চাপ বাড়ছে। ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলা থেকে বাড়তি ভাড়া দিয়ে শিমুলীয়া ঘাটে এসে ফেরি পার হয়ে কাঁঠালবাড়ি ঘাট থেকেও মাইক্রোবাস, মোটরসাইকেল, ইজিবাইকসহ বিভিন্ন যানবাহনে যাত্রীরা ৩-৪ গুন অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে গন্তব্যে যাচ্ছেন।

ফেরিগুলোতে জরুরি এ্যাম্বুলেন্স, ব্যক্তিগত গাড়ি, কাঁচামালবাহী ও পণ্যবাহী ট্রাক পারাপার করা হচ্ছে। এদিনও মহাসড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশ ব্যারিকেড দিয়ে যাত্রীবাহী পরিবহন উল্টোপথে ফিরিয়ে দিচ্ছেন।

শনিবার (২৩ মে) সকাল থেকে শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌরুটের ফেরিগুলোতে দক্ষিণাঞ্চলগামী ঘরমুখো যাত্রীদের চাপ শুরু হয়। শিমুলীয়া থেকে ছেড়ে আসা ফেরিগুলোতে জরুরি এ্যাম্বুলেন্স, ব্যক্তিগত গাড়ি, কাঁচামাল ও পণ্যবাহী ট্রাকের পাশাপাশি যাত্রীর চাপও দেখা গেছে।

তবে কাঁঠালবাড়ি থেকে ছেড়ে যাওয়া ফেরিগুলোতে যানবাহন বা যাত্রীদের চাপ না থাকায় ফেরিগুলো কম যানবাহন নিয়েই পারাপার হচ্ছে।

এদিন সকাল থেকে ১৩ টি ফেরি দিয়ে সার্ভিস সচল রাখা হয়েছে। যাত্রী চাপ ঠেকাতে এদিনও মহাসড়কগুলোর বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশ ব্যারিকেড দিয়ে জরুরি এ্যাম্বুলেন্স, ব্যক্তিগত পরিবহন, কাঁচামাল ও পণ্যবাহী ট্রাক ছাড়া সকল পরিবহন উল্টোপথে ফিরিয়ে দিচ্ছেন।

এদিকে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে অতিরিক্ত ভাড়া ব্যয় করে শিমুলীয়া ঘাটে এসে ফেরিতে নদী পার হয়ে কাঁঠালবাড়ি ঘাট থেকে মাইক্রোবাস, মোটরসাইকেল, ঈজিবাইকসহ বিভিন্ন যানবাহনে ৩-৪ গুন বাড়তি ভাড়া দিয়ে বরিশাল, খুলনা, পটুয়াখালীসহ বিভিন্ন জেলায় যাচ্ছেন বলে যাত্রীরা অভিযোগ করেন।

বিআইডব্লিউটিসি কাঁঠালবাড়ি ঘাট ম্যানেজার আবদুল আলিম মিয়া বলেন, সকাল থেকেই শিমুলীয়া পাড় থেকে দক্ষিণাঞ্চলগামী যাত্রীদের চাপ রয়েছে। কাঁঠালবাড়ি থেকে ঢাকাগামী যাত্রী বা যানবাহনের তেমন চাপ নেই। সকাল থেকে ১৩ টি ফেরি দিয়ে আমরা যাত্রী ও যানবাহন পারাপার করছি।

মন্তব্য করুন

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

© 2020 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh