ফনেটিক ইউনিজয়
পারিবারিক সহিংসতা রোধে চাই সামাজিক মূল্যবোধ

সাম্প্রতিক সময়ে পারিবারিক ও সামাজিক অপরাধ ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে হত্যাকাণ্ড। মা-বাবার হাতে সন্তান হত্যার ঘটনা যেমন ঘটছে, তেমনি সন্তানের হাতে জন্মদাতা বাবা-মা, পরকীয়ায় জড়িয়ে স্বামীর হাতে স্ত্রী এবং স্ত্রীর হাতে স্বামী খুন।  এমনকি এক ভাই খুন করছেন অন্য ভাইকে। সব মিলিয়ে এক সামাজিক নিরাপত্তাহীন অবস্থা তৈরি হয়েচ্ছে।
ঐতিহ্যগতভাবে বাংলাদেশের মানুষের পারিবারিক মূল্যবোধ খুব শক্তিশালী। কিন্তু গত কয়েক বছরে তা অনেকটা ভেঙে পড়েছে। শহুরে ‘অ্যাপার্টমেন্ট কালচার’ মানুষের মধ্যে বিচ্ছিন্নতাবোধ তৈরি করেছে। কেউ কাউকে সময় দিতে পারছে না। অন্য মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ কমে গেছে। সব মিলিয়ে পারিবারিক ও সামাজিক মূল্যবোধের জায়গাটা খুব হালকা হয়ে গেছে।
সব দেশে, সমাজেই কমবেশি গুম-খুনের ঘটনা ঘটে, অপরাধ সংঘটিত হয়। তবে আমাদের সমাজে উৎকণ্ঠার বিষয় হচ্ছে, অপরাধ বাড়লেও অধিকাংশ ক্ষেত্রে অপরাধীদের বিচারের আওতায় নিয়ে আসতে পারছে না আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। প্রভাবশালী মহলের ছত্রচ্ছায়ায় একশ্রেণির মানুষ নানা অপরাধে জড়িত হলেও তাদের বিচার হয় না। এই বিচারহীনতার সংস্কৃতির কারণে সামাজিক অপরাধ বেড়েই চলেছে। যদিও পুলিশের একার পক্ষে সব পারিবারিক বা সামাজিক অপরাধ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব নয়। এর জন্য পরিবার বা সমাজের অভিভাবকদেরও দায়বদ্ধতা রয়েছে। তবে পুলিশকে তার সাধ্যানুযায়ী নানা ধরনের পদক্ষেপ নিয়ে এ ধরনের অপরাধের লাগাম টানার চেষ্টা করতে হবে। বিট পুলিশিংয়ের মাধ্যমে উঠোন বৈঠকে এ ব্যাপারে জনসাধারণকে সচেতন করতে হবে। মাদকের কারণে বাড়ছে হতাশা এবং নানা রকম অপরাধ। মাদক বন্ধে কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে। একই সঙ্গে অপরাধীদের ব্যাপারে রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ বন্ধ করতে হবে।

Disconnect