টিউশন ফি’তে ছাড় দেয়ার আহ্বান শিক্ষামন্ত্রীর

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

শিক্ষামন্ত্রী ড. দীপু মনি করোনা পরিস্থিতিতে সামর্থ্যবান প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষকদের আহ্বান জানিয়েছেন, শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে টিউশন ফি আদায়ে যেন আরেকটু মানবিক হয়ে ছাড় দেয়া হয়। সেই সাথে সামর্থ্যবান অভিভাবকদের বেতন পরিশোধেরও অনুরোধ জানান। 

শনিবার (২৭ জুন) এডুকেশন রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ (ইরাব) আয়োজিত ‘করোনায় শিক্ষার চ্যালেঞ্জ এবং উত্তরণে করণীয়’ শীর্ষক ভার্চ্যুয়াল সেমিনারে এ আহ্বান জানান মন্ত্রী।

এ সময় শিক্ষামন্ত্রী বলেন, করোনার এ সময়ে বড় একটা সমস্যা হচ্ছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ফি দেয়া। ফি না পেলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগগুলো তাদের শিক্ষকদের কী করে বেতন দেবে? আর শিক্ষকরা তো অধিকাংশই বেতনের ওপর নির্ভরশীল। কেউ কেউ টিউশনি করাতেন। এখন তো সব বন্ধ।

তিনি বলেন, তবে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আর্থিক অবস্থা এক রকম নয়। যেসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নিজেদের কিছুটা হলেও আগামী ক’মাস চলার মতো সামর্থ্য আছে, তাদের অনুরোধ করবো- ফি কিস্তিতে হোক বা কিছু দিন বাদ দিয়ে পরে নেয়া হোক, সেটি করতে পারলে ভালো। না হলে দেখেন কতোটা ছাড় দেয়া যায়, সেটা চেষ্টা করবেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, যেসব প্রতিষ্ঠানের আর্থিক অবস্থা খারাপ, তারা অন্যান্য ঋণের জন্য চেষ্টা করতে পারেন। আমরাও সে ব্যাপারে সহযোগিতা করতে পারি।

অভিভাবকদের উদ্দেশ্য করে দীপু মনি বলেন, আপনাদেরও কিছু ছাড় দিতে হবে। কারণ কিছু না কিছু বেতন তো দিতে হবে। আপনার সন্তান পড়াশোনা করছে, এখন প্রতিষ্ঠান বন্ধ আছে মানে তো সেই বেতন বন্ধ করে দেয়া যায় না।

তিনি বলেন, যেমন আপনি হয়তো কাজে যেতে পারছেন না, কাজ বন্ধ আছে, কিন্তু আপনি কি তার জন্য বেতন চাইবেন না? সরকারি হলে তো পুরো বেতনই পাচ্ছেন, সরকারি না হলে হয়তো বেতন কম দিচ্ছে। তাই যদি সামর্থ্য থাকে তাহলে আপনার সন্তানের ফি দেওয়া উচিত।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও অভিভাবকদের মানবিক হওয়ার আহ্বান জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, যদি আপনার সামর্থ্য না থাকে সেক্ষত্রে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যোগাযোগ করে তারাও যদি কিছুটা ছাড় দিতে পারে, কিছুটা কিস্তিতে নিতে পারে, যতদূর সম্ভব উভয়পক্ষকেই আসলে মানবিক আচরণ করতে হবে। এটি এমন একটি সময় যখন আমরা আমাদের প্রয়োজনের কথা ভাববো, তেমনি আমাদের কিন্তু টিকে থাকবার বিষয়টিকে গুরুত্ব দিতে হবে। যদি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানই বন্ধ হয়ে যায়, তাহলে আপনার সন্তানটিকে আপনি কোথায় ভর্তি করবেন? এবং সেটি সরকারের জন্য বড় ধরনের একটি দুশ্চিন্তা নিশ্চয়ই।

মন্তব্য করুন

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

© 2020 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh