ফনেটিক ইউনিজয়
‘শুধু গান দিয়ে শ্রোতার কাছে পৌঁছানো যায় না’
নীলিমা টিনা

তরুণ ও প্রতিশ্রুতিশীল সংগীতশিল্পী শাপলা পাল। তাঁর সুরের মূর্ছনা ছড়িয়ে পড়ছে  চারদিকে। চট্টগ্রাম থেকে জাতীয় প্রাঙ্গণে এখন আলোচিত মুখ শাপলা। ২০১৪ সালে ‘চ্যানেল আই সেরা কণ্ঠ’ প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে সেরা ১৫ জনের মধ্যে জায়গা করে নিয়েছিলেন শাপলা। এখন সংগীতচর্চার পাশাপাশি শাপলা এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন বিভিন্ন বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল, রেডিও ও মঞ্চে গানের অনুষ্ঠান নিয়ে। এর মধ্যেই দুটি মিশ্র অ্যালবাম করে বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছেন এ শিল্পী। ভালো মানের মৌলিক গানের মাধ্যমে বারবার দর্শক শ্রোতার কাছে ফিরে আসার ইচ্ছা পোষণের ধারাবাহিকতায় এবার শাপলার প্রথম একক অ্যালবাম স্বপ্নতরী বাজারে এসেছে। নতুন অ্যালবাম ও গানের বিষয়ে সাম্প্রতিক দেশকাল-এর কার্যালয়ে বেশ কিছু সময় আলাপ হয় শাপলা পালের সঙ্গে। সে আলাপচারিতার চুম্বক অংশ তুলে ধরা হলো পাঠকের জন্য-

আপনার প্রথম একক অ্যালবাম ‘স্বপ্নতরী’ ইতিমধ্যে বাজারে এসেছে। অ্যালবামটি সম্পর্কে জানতে চাই।
দীর্ঘদিনের স্বপ্নের বাস্তবায়ন হলো স্বপ্নতরী অ্যালবামটি। অনেক দিনের ইচ্ছা ছিল সোলো অ্যালবাম বের করার। অ্যালবামটির গানের কথা ও সুর দিয়েছেন আমার শ্রদ্ধাভাজন বড় ভাই আহমেদ রাজীব। ঐক্যতানের ব্যানারে অ্যালবামটির ডিজিটাল ডিস্ট্রিবিউশনের কাজ করছে প্রোটিউন বিডি। অ্যালবামটি নিয়ে আমি খুব আশাবাদী। কারণ প্রতিটা গানের সঙ্গে আমার ভালোবাসা জড়িয়ে আছে, আছে অক্লান্ত পরিশ্রম। অ্যালবামটি ইতিমধ্যে জিপি মিউজিকের নিউ অ্যান্ড ট্রেন্ডিংয়ে অনেক গুণী শিল্পীর অ্যালবামের মাঝে জায়গা করে নিয়েছে এবং ওয়ার্ল্ড ওয়াইড অ্যাপল মিউজিকের আই-টিউন্সে পাওয়া যাচ্ছে। অ্যালবামটি নিয়ে খুব ভালো সাড়াও পাচ্ছি। অনলাইনে এর গানগুলো খুবই ভালো চলছে। অ্যালবামটি করার পেছনে যার অবদান সবচেয়ে বেশি, তিনি হচ্ছেন আমার স্বামী।

গান নিয়ে আপনার এখন ব্যস্ততা কেমন?
আমি গানের মানুষ। গানকে ঘিরেই আমার সবকিছু। এটি নিয়ে এখন প্রচ- রকমের ব্যস্ত সময় কাটছে। বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলে অনেক লাইভ অনুষ্ঠানে পারফর্ম করছি। যেমন কিছুদিন আগে এশিয়ান টিভিতে ‘ওয়াল্টন মিউজিক’, মাছরাঙা টিভিতে ‘রাঙা সকাল’সহ বেশকিছু অনুষ্ঠানে গান করেছি। সামনে আরও প্রোগামের কথা চলছে। আশা করি অচিরেই সেগুলো নিশ্চিত হবে। এ ছাড়া বিভিন্ন রেডিওতেও নিয়মিত মিউজিক্যাল লাইভ নিয়ে হাজির হচ্ছি। আর স্টেজ প্রোগাম তো আছেই। সর্বশেষ কক্সবাজারে একটি অনুষ্ঠানে গান করেছি। সব মিলিয়ে বেশ ব্যস্ত সময় যাচ্ছে।

সামনে ঈদ। এ উৎসবকে ঘিরে কোনো পরিকল্পনা আছে?
এখন অনেকেই অনেক কাজ একসঙ্গে করছে। তবে আমি চাইছি একটি কাজ ধরে এগিয়ে যেতে। তবে ঈদকে ঘিরে কোনো বিশেষ পরিকল্পনা আপাতত নেই। স্বপ্নতরীর কিছু গান নিয়ে মিউজিক ভিডিও বানানোর চেষ্টা চলছে। হয়তো একটু সময় লাগবে। কারণ এখানে বড় একটা বাজেটের দরকার হয়। তবে এ মিউজিক ভিডিওর বিষয়টিকে বেশি প্রাধান্য দিতে চাই। কারণ এখন ভিডিও ছাড়া শুধু গান দিয়ে শ্রোতার কাছে পৌঁছানো যায় না। এটা সময়ের দাবি। তবে অনেকেই আবার একটি গান করেই মিউজিক ভিডিও বানিয়ে ছেড়ে দিচ্ছে। তবে কিছুদিন পর এ ধরনের গানের অস্তিত্ব হারিয়ে যায়।

ভিডিও তৈরি করে ইন্টারনেটে ছেড়ে দিলে রয়্যালিটি প্রাপ্তিতে কোনো অসুবিধার সম্মুখীন হতে হয় না?
মানুষ এখন কম সময়ের মধ্যে ভালো কিছু পেতে চায়। আবার অনেক শিল্পী গানের পেছনে বেশি সময় না দিয়ে একটি গান করেই তা অনলাইনে ছেড়ে দিচ্ছে। এতে মানুষ খুব সহজেই ফ্রিতে গান শুনতে পাচ্ছে। তবে শিল্পীদের তো স্পনসর কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান করছে। কিন্তু অনলাইন থেকে যে রয়্যালিটি শিল্পীরা পান, তার পরিমাণ খুবই কম। এটা পেতে খুব একটা অসুবিধা হয় না। একটি সিডি তৈরি করার পেছনে অনেক পরিশ্রম যায়, সময় লাগে, আবার অর্থ খরচ হয়। তবে এর জন্য কিন্তু আমরা বাড়তি পারিশ্রমিক পাই না। এটা মূলত অ্যালবামের কাটতির ওপর নির্ভর করে।

গান নিয়ে আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানতে চাই।
ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা তো অনেক। তবে ভালো মানের মৌলিক গান নিয়ে সুস্থধারার গান নিয়ে সামনে এগিয়ে যেতে চাই।

Disconnect