ফনেটিক ইউনিজয়
বিশ্বজুড়ে নিপীড়নের শিকার নারী তারকারা
বিনোদন প্রতিবেদক
হার্ভে উইনস্টেইন
----

সম্প্রতি মার্কিন চলচ্চিত্র প্রযোজক হার্ভে উইনস্টেইনের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ ওঠে মিডিয়া মহলে। এ কারণে তাঁর ভবিষ্যৎ নির্ধারণে বৈঠকে বসতে যাচ্ছে অস্কার পুরস্কার প্রদানকারী সংস্থা দ্য ইউএস একাডেমি। আর প্রশ্ন উঠেছে, যৌন কেলেঙ্কারিতে অস্কার হারাচ্ছেন এ প্রযোজক। যদিও ইতিমধ্যেই মিরাম্যাক্স এবং উইনস্টেইন কোম্পানি ৮১টি অস্কার পুরস্কার পেয়েছে। দিন কয়েক আগে ৬৫ বছর বয়সী এই প্রযোজকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ আনেন হলিউডের জনপ্রিয় তারকা অ্যাঞ্জেলিনা জোলি ও গিনেথ প্যালট্রো। নিউইয়র্ক টাইমস পত্রিকায় এক লিখিত বিবৃতিতে হার্ভের বিরুদ্ধে নিজেদের অভিযোগের কথা জানান অ্যাঞ্জেলিনা জোলি ও গিনেথ প্যালট্রো। অনেক অভিনেত্রী তাঁর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগও করেছেন। নরওয়ের অভিনেত্রী নাতাশিয়া মালথের পর এ ধরনের অভিযোগ আনেন ইতালির বংশোদ্ভূত মার্কিন অভিনেত্রী অ্যানাবেলা সিওরা।
তবে হলিউডের এমন ঘটনার পর একে একে যেন মুখ খুলছেন বিভিন্ন দেশের অভিনেত্রীরা। তাঁরা তাঁদের সঙ্গে ঘটে যাওয়া যৌন হেনস্তা বিষয়ে মুখ খুলছেন এখন। যৌন নির্যাতন বা ধর্ষণের অভিযোগে যখন সরব হলিউড, তখন বলিউডেও তার রেশ ছড়িয়ে পড়েছে। ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির অনেকেই যে বহু প্রভাবশালী ব্যক্তির যৌন লালসার শিকার, তা নিয়ে গুঞ্জন-জল্পনা উঠতে শুরু করেছে। তবে তা শুধু গুঞ্জনেই থেমে থাকেনি। কঙ্গনা রনৌত, প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার পর তা নিয়ে মুখ খুললেন ফুকরে বা মসান-এর অভিনেত্রী রিচা চাড্ডা। এনডিটিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে রিচা জানান, তিনি একটিমাত্র ঘটনার কথা উল্লেখ করবেন না। বরং দীর্ঘদিন ধরেই যে বলিউডে এই ‘ট্র্যাডিশন’ চলে আসছে, তা জানাতে চান। কাজের খোঁজে বলিউডে আসা উঠতি বা কম বয়সীরা যে সব সময় যৌন হেনস্তার মুখোমুখি হন, তা জানান রিচা।
তাঁকে অনুসরণ করেন বলিউডের আরেক অভিনেত্রী নেহা ধুপিয়াও। তিনি জানান, যখন বলিউডে কাজ করার সুযোগ খুঁজছিলেন, সেই সময় যৌন হয়রানির শিকার হয়েছিলেন তিনি। সম্প্রতি একটি সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘মডেলিং দিয়ে আমার ক্যারিয়ার শুরু। কিন্তু আমার স্বপ্ন ছিল বলিউডে কাজ করা। প্রথম দিকে আমি প্রতারণার শিকার হয়েছিলাম। সঙ্গে সঙ্গে যৌন হেনস্তারও। তবে তাঁকে কোনো নির্দিষ্ট ব্যক্তির বিরুদ্ধে অভিযোগ করতে দেখা যায়নি। কিন্তু বাংলাদেশে এখন এ ধরনের অভিযোগ আজও কেউ তোলেনি। তবে এ অভিশাপ থেকে যে এ দেশের নারী তারকারা মুক্ত, তা মোটেও নন। বরং তারকারা নিজের সম্মানহানির কথা প্রকাশিত হবে ভেবে বিষয়টিকে হয়তো এড়িয়ে যান। এতে সমাজের ভয়ংকর মুখোশধারীরা অন্ধকারেই ঢাকা থাকে।

Disconnect