ফনেটিক ইউনিজয়
নতুন বছরে শোবিজের প্রত্যাশা
এনআই বুলবুল

শুরু হলো নতুন বছর ২০১৮। পুরোনো বছরের হিসাব-নিকাশ কষে নতুন উদ্যমে তারকারা আবারও নতুন পরিকল্পনার ছক আঁকছেন। গেল বছর শোবিজের জন্য একটি অস্থির সময় ছিল বলেই অনেক মনে করেন। তবে নতুন বছরে সেই অস্থিরতা কেটে যাবে বলেই সবাই প্রত্যাশা করছেন। গেল বছরে বেশ অস্থিরতা দেখা গেছে চলচ্চিত্রে। বিশেষ করে যৌথ প্রযোজনার চলচ্চিত্রের নীতিমালা নিয়ে শিল্পীদের মধ্যে বেশ পক্ষ-বিপক্ষ তৈরি হয়। এখনো যৌথ প্রযোজানার নীতিমালা চূড়ান্ত হয়নি। সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, নতুন বছর আবারও চলচ্চিত্র ঘুরে দাঁড়াবে। এরই মধ্যে কিছুটা সেই পরিবেশ তৈরি হয়েছে। বছরের শেষ সময়ে ঢাকা অ্যাটাক, ডুব, হালদাসহ কয়েকটি চলচ্চিত্র দর্শকদের মধ্যে সাড়া ফেলে। তবে আশার কথা হচ্ছে, টিভি নাটকে গেল বছর অনেকটা সহনীয় ছিল। টিভি নাটকের দিকে দর্শকদের আগ্রহ ছিল অনেক বেশি। মেহজাবীন-অপূর্বের বড় ছেলে, মৌসুমী হামিদের বাদাবন ও শেষ বিকেলের পাখিসহ একাধিক নাটক প্রশংসা পায় দর্শকদের। এ ছাড়া অভিনয় শিল্পী সংঘ শিল্পীদের পরিচয়পত্র প্রদান করে। দুস্থ ও অসহায় শিল্পীদের আর্থিকভাবে সহযোগিতাও করে। সম্প্রতি অভিনয় শিল্পী সংঘ বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান স্বপ্নর সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে। নতুন বছরেও ছোট পর্দার সাফল্যের ধারাবাহিকতা থাকবে বলে টিভি তারকারা মনে করছেন। এ প্রসঙ্গে দর্শকপ্রিয় অভিনেত্রী ঊর্মিলা শ্রাবন্তী কর বলেন, ‘কারও একক প্রচেষ্টায় কোনো কিছুর পরিবর্তন ঘটে না। টিভি পর্দার শিল্পীরা পরিবর্তনের জন্য এগিয়ে আসছেন। গেল কয়েক বছরের চেয়ে এখন অনেক ভালো নাটক নির্মাণ হচ্ছে। বিভিন্ন গল্পের নাটক নির্মাণের জন্য নির্মাতাদের আগ্রহ দেখা যায়। এই ক্ষেত্রে চ্যানেলগুলো যদি একটু আন্তরিক হয়, তাহলে ছোট পর্দায় আবারও সুদিন ফিরবে। চ্যানেলগুলো বাজেটের প্রতি আন্তরিক হবে আশা করছি।’
তবে নতুন বছর উপলক্ষে সংগীতে কোনো আশানুরূপ প্রতিচ্ছবি এখনো চোখে পড়ছে না। প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলো নতুন গানে পৃষ্ঠপোষকতায় এগিয়ে আসছে না। মোবাইল ফোন প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে সমঝোতায় না আসা পর্যন্ত সংগীতের অবস্থা এমনি থাকবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এই প্রসঙ্গে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান লেজার ভিশনের কর্ণধার এ কে এম আরিফুর রহমান বলেন, ২০১৭ সাল সংগীতের খারাপ সময় গেছে। কিছু শিল্পী ছাড়া অন্য শিল্পীদের তেমন গান প্রকাশিত হয়নি। জিপি মিউজিক কিংবা রবি ইউন্ডারসহ বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান নির্দিষ্ট কিছু শিল্পীর প্রমোশন করেছে। এর নেতিবাচক প্রভাব পুরো সংগীতাঙ্গনে পড়েছে। তবে আমি আশাবাদী, নতুন বছর সেই হতাশা কাটিয়ে সবাই নতুন গান প্রকাশে এগিয়ে আসবে। মুঠোফোন প্রতিষ্ঠানগুলোও সব ধরনের শিল্পীদের প্রচার-প্রচারণা করবে।

Disconnect