ফনেটিক ইউনিজয়
সালমান প্রসঙ্গ
জামিন পেলেও শঙ্কা কাটেনি
মান্নাফ সৈকত

কদিন আগে বলিউডের ‘সুলতান’ সালমান খান ছিলেন ভারতের যোধপুর সেন্ট্রাল জেলে। সালমান খানকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন রাজস্থানের যোধপুরের একটি আদালত। কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা মামলায় দোষী সাব্যস্ত হলে ৫ এপ্রিল তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত। দুদিন পর অবশ্য জামিনও মিলে যায়। ৫০ হাজার রুপির ব্যক্তিগত বন্ডে যোধপুর  সেশন কোর্টের বিচারক রবীন্দ্র কুমার যোশি এ বলিউড তারকাকে জামিন দিয়েছেন।
তবে এখনই বিপদ থেকে মুক্তি পাচ্ছেন না এ অভিনেতা। বরং তার জন্য কঠিন দিন অপেক্ষা করছে। সালমান খানের জামিনের বিরোধিতা করে রাজস্থান আদালতের দ্বারস্থ হওয়ার কথা জানিয়েছেন বিষ্ণোই সম্প্রদায়ের আইনজীবী।
 এদিকে সালমান খান দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় অনেকটা থমকানোর পথে বলিউড। কারণ তাকে বলা হয় বলিউডের ‘হিট মেশিন’। তাই অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছিলেন অনেক চিত্র প্রযোজক। কারণ এরই মধ্যে ১ হাজার কোটি রুপির বেশি লগ্নি করা হয়েছে এ নায়ককে ঘিরে। বলিউডের এ তারকার জন্য সংকটের মুখে রয়েছে ১০০ কোটি রুপি বাজেটের রেমো ডি’সুজার ‘রেস থ্রি’ ছবিটি। এবার ঈদ উপলক্ষে আগামী ১৫ জুন ছবিটি মুক্তি দেয়ার কথা। নির্মাতারা আশা করছেন, আগের দুটি ‘রেস’ সিরিজের ছবি থেকে এ ছবি কয়েক গুণ বেশি ব্যবসা করবে। কিন্তু ছবির নায়ক অপরাধী সাব্যস্ত হওয়ায় হোঁচট খাবে ছবির প্রচারণা। পাশাপাশি জনপ্রিয়তার স্কেলেও যে বড় ধাক্কা লাগবে, সে আশঙ্কাও এড়িয়ে যাওয়া যায় না। ‘রেস থ্রি’র পর পরিচালক আলী আব্বাস জাফরের নতুন ছবি ‘ভারত’-এর শুটিং শুরু করার কথা সালমান খানের। এমন তালিকায় আরও রয়েছে ‘দাবাং’ সিরিজের তৃতীয় ছবি ‘দাবাং থ্রি’, ‘কিক’ সিরিজের নতুন ছবি ‘কিক টু’।
 এদিকে টিভির অনুষ্ঠানও থাকবে শঙ্কার মধ্যে। যেমন ‘দশ কা দম’ অনুষ্ঠানের প্রমো মুক্তি পেয়েছে। ‘বিগ বস’ রিয়্যালিটি শোর ১২ নম্বর সিজনেরও সঞ্চালক সালমান খান। সালমান জামিনে থাকলেও অনুষ্ঠানগুলো নিয়ে এখন অনিশ্চয়তায় রয়েছেন নির্মাতারা।
জানা যায়, ১৯৯৮ সালের ১ ও ২ অক্টোবর যোধপুরে ‘হাম সাথ সাথ হ্যায়’ ছবির শুটিংয়ের মাঝে আলাদা আলাদা জায়গায় দুটি কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা করেন সালমান খান। ওই সময় তার সঙ্গে ছিলেন সাইফ আলী খান, নীলম, টাবু ও সোনালী বেন্দ্রে।
রাজস্থানের যোধপুরের কঙ্কানি এলাকায় গ্রামের ক্ষুদ্র জাতিসত্তা বিষ্ণোইর অধিবাসীদের অভিযোগ, গুলির শব্দ শুনে তারা সালমানের জিপসি গাড়িটি ধাওয়া করেন। ওই সময় চালকের আসনে ছিলেন সালমান খান। গ্রামবাসীর দাবি, প্রবল গতিতে গাড়ি ছুটিয়ে সালমান খান আর তার সঙ্গীরা পালিয়ে যান। এরপর তারা বন্য প্রাণী সংরক্ষণ আইনের ৫১ নং ধারায় মামলা করেন। বেআইনিভাবে জঙ্গলে ঢোকার অভিযোগে সালমান খান আর অন্য তিন তারকার বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৪৯ নম্বর ধারায় মামলা এখনো চলছে।

Disconnect