ফনেটিক ইউনিজয়
শিল্পীর অস্তিত্ব টেকে মৌলিক গানে

সংগীতশিল্পী দিলশাদ নাহার কনা। বর্তমান সময়ে নারী শিল্পীদের মধ্যে সবচেয়ে এগিয়ে তিনি। স্টেজ শো, প্লেব্যাক ও অডিও- তিন মাধ্যমেই তার সরব উপস্থিতি। গান ও সমসাময়িক নানা প্রসঙ্গে তার সঙ্গে কথা বলেছেন এনআই বুলবুল

কত বছর বয়স থেকে গানের সঙ্গে সখ্যতা শুরু?
চার বছর বয়সেই গানের সঙ্গে আমার পরিচিতি ঘটে। ‘আমরা সবাই রাজা আমাদের এই রাজার রাজত্বে’ গানটি শেখার মধ্য দিয়েই গানের ভুবনে পা রাখি। আনুষ্ঠানিকভাবে আমার কণ্ঠে গাওয়া প্রথম গানটি ছিল ‘গ্রামছাড়া ওই রাঙা মাটির পথ’। তখন না বুঝেই গানের সঙ্গে বসবাস শুরু করেছি। কিন্তু এখন গানের সঙ্গে থাকতেই ভালো লাগে।

কী ধরনের গান করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন?
নতুন কথা ও সুরের গানগুলো আমাকে বেশি টানে। সহজ, সাবলীল কথা ও সুর সবসময় শ্রোতাদের মুগ্ধ করে। আমার যে গানগুলো শ্রোতারা গ্রহণ করেছেন, সেগুলোর কথা ও সুরে নতুনত্ব আছে। শ্রোতাদের রুচির পরিবর্তন হয়েছে। ভালো কথা ও সুর না হলে সে গান শ্রোতাদের মনে দাগ কাটে না।

গেল বছর আপনার তিনটি গান কোটির ঘর অতিক্রম করে। সে বিষয়ে জানতে চাই।
আমার কণ্ঠে ‘রেশমি চুড়ি’, ‘নবাব’ ছবির ‘ও ডিজে’ ও বসগিরি সিনেমার ‘দিল দিল দিল’ গানগুলো শ্রোতাদের পছন্দের তালিকার শীর্ষে ছিল। একজন শিল্পী হিসেবে এটি আমার জন্য অনেক বড় পাওয়া। এক বছরে তিনটি গান এমন অবস্থানে থাকা অবশ্যই সুখকর। চলতি বছরেও চেষ্টা করছি ভালো গান শ্রোতাদের উপহার দিতে।

স্টেজ শো, প্লেব্যাক ও অডিও- তিন মাধ্যমেই আপনার সরব উপস্থিতি। কোনটিতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন?
শুরু থেকেই স্টেজ শো ও প্লেব্যাক করছি। আমার ক্যারিয়ার শুরু হয় এ দুটি দিয়ে। তবে তিনটি আমার কাছে তিন রকম। স্টেজ শোতে দর্শক-শ্রোতাদের প্রতিক্রিয়া সরাসরি দেখা যায়। একজন শিল্পীর চাহিদা কেমন, তখন সেটিও বোঝা যায়। অডিওতে একজন শিল্পীর সব গানই শ্রোতাপ্রিয়তা পায় না। কিন্তু একজন শিল্পীকে বাঁচিয়ে রাখতে মৌলিক গানের প্রয়োজন পড়ে।

এখন অনেক শিল্পী কাভার গানে আগ্রহী। তাদের জন্য কী বলবেন?
পছন্দের শিল্পীর দু-একটি গান কাভার করা যায় শখে। কিন্তু একজন শিল্পীর অস্তিত্ব টিকে তার মৌলিক গানে। এটি সত্যি, এ সময়ের অনেক শিল্পী মৌলিক গান দিয়ে নিজেদের পরিচিত করতে পারছে না। সেটার অনেক কারণ আছে। গান অবশ্যই শোনার বিষয়। এজন্য মিউজিক ভিডিওর চেয়ে আগে গানের কথা ও সুরকে প্রাধান্য দিতে হবে।

অনেকে বলেন, এখন মিউজিক ভিডিও ছাড়া গান শ্রোতারা নেয় না। আপনি কী বলবেন?
গানের কথা ও সুর ভালো না হলে ব্যয়বহুল মিউজিক ভিডিওটিও দর্শক-শ্রোতা গ্রহণ করে না। একবার দেখে সেটি থেকে মুখ ফিরিয়ে নেবে। মিউজিক ভিডিও এখন সময়ের চাহিদা। একটি ভালো কথা ও সুরের গান মিউজিক ভিডিওর মাধ্যমে সহজে শ্রোতাদের কাছে পৌঁছে যায়। এজন্য আগে ভালো গান সৃষ্টি করতে হবে। তারপর ভিডিও নির্মাণের কথা ভাবতে হবে।

এখন অডিও বাজারের অবস্থা কেমন মনে করেন?
এখন সব ডিজিটাল হয়ে গেছে। অডিও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলো এখন ডিজিটালি মার্কেটিং করছে। নতুনের পাশাপাশি পুরনো কয়েকটি প্রতিষ্ঠান নতুনভাবে অর্থলগ্নি করছে। যতুটুক জানি, গানের বাজার এখন আগের চেয়ে ভালো। আগামীতে আরও ভালো অবস্থানে যাবে।

একজন সংগীতশিল্পীর টিকে থাকার জন্য করণীয় কী?
সংগীত সাধনার বিষয়। এটিকে নিজের মধ্যে ধারণ করতে হয়। সংগীতের সঙ্গে নিজের বন্ধন না থাকলে একদিন সংগীতও তাকে ছেড়ে দেয়। এছাড়া শ্রোতাদের মধ্যে নিজেকে ধরে রাখতে অবশ্যই ভালো কথা ও সুরের গান উপহার দিতে হবে। সস্তা কথার গান দিয়ে সহজে পরিচিতি পাওয়া যায়। কিন্তু শিল্পীর মূল্যায়ন হয় না।

Disconnect