ফনেটিক ইউনিজয়
সা ক্ষা ৎ কা র
‘গান দিয়ে মন জয় করা আর ভাইরাল হওয়া এক নয়’

জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী ও অভিনেতা তাহসান খান। নতুন গান, নাটকের পাশাপাশি সম্প্রতি শেষ করেছেন তার প্রথম চলচ্চিত্র ‘যদি একদিন’-এর শুটিং। সমসাময়িক বিভিন্ন বিষয়ে তার সঙ্গে কথা বলেন এনআই বুলবুল

এই সময়ে ব্যস্ততা কী নিয়ে?
গান, নাটক ও সিনেমায় কাজসহ বিভিন্ন ধরনের কাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকতে হচ্ছে। সুন্দর সময় কাটছে। এভাবেই প্রতিটি দিন পার করতে চাই। সবার ভালোবাসায় বেঁচে থাকা সত্যিই অনেক আনন্দের।

একইসঙ্গে সব কিছুর ভারসাম্য রক্ষা করেন কিভাবে?
মানুষ ইচ্ছে করলে সব করতে পারে। আবার এটিও সত্যি এক সঙ্গে এত কিছু করাটা বেশ কঠিনও। সে কারণেই দিনের বেশির ভাগ সময় ব্যস্ত থাকতে হয়। যখন যেটি করা প্রয়োজন আমি সেটি করি। অতিরিক্ত কাজ হাতে নিই না। যে কাজটা নিই তাতেই কেবল মনোযোগ দিই। যেমন গানের সময় গান, অভিনয়ের সময় অভিনয় অথবা অন্য কাজের সময় সেটাতেই শতভাগ মনোযোগ দেয়ার চেষ্টা থাকে।

নতুন অ্যালবাম নিয়ে বলুন?
এই সময়ে অ্যালবাম চলে না। এখন সিঙ্গেলের যুগ। তবে নিয়মিত নতুন গানের কাজ চলছে। এরই মধ্যে প্লেব্যাক ও নাটকের গান করেছি কয়েকটি। অ্যালবামের কাজ এখনও শুরু করিনি সেভাবে। কারণ গত বছর একক অ্যালবাম প্রকাশ করেছি। ‘অভিমান আমার’ শিরোনামের সেই অ্যালবামের গানগুলোর সাড়া এখনও পাচ্ছি।

আপনার প্রথম চলচ্চিত্র ‘যদি একদিন’ নিয়ে প্রত্যাশা কেমন?
ঈদে এই ছবির ‘আমি পারবো না তোমার হতে’ শিরোনামের একটি গান প্রকাশিত হয়েছে। গানটি আমার সঙ্গে দ্বৈত গেয়েছেন কোনাল। গানটির জন্য দর্শক-শ্রোতাদের অনেক সাড়া পেয়েছি। আশা করছি গানের মতো ছবিও সবার ভালো লাগবে। কারণ এই ছবির গল্পটি অন্য রকম। আমাকেও আমার ভক্তরা নতুনভাবে দেখবেন।

এই চলচ্চিত্রে কাজ করার কারণ কী?
এটি আমার প্রথম ছবি। মোস্তফা কামাল রাজের এই ছবিটির স্ক্রিপ্ট ও চরিত্র ভালো লেগেছে। সে কারণেই ছবিটি করা। এখানে আমার নায়িকা ওপার বাংলার অভিনেত্রী শ্রাবন্তী। আসলে শুটিং করার সময় আরও বেশি ভালো লেগেছে। কারণ আয়োজনটা বেশ ভালো ও বড় ছিল।

এই সময়ের চলচ্চিত্র নিয়ে আপনার মন্তব্য কী?
আমাদের এখন নানা ধরনের চলচ্চিত্র নির্মাণ হচ্ছে। দেশের বাইরেও আমাদের চলচ্চিত্রের একটি জায়গা হয়েছে। যদিও বিভিন্ন কারণে আগের মতো এখন চলচ্চিত্র নির্মাণ হচ্ছে না। কিন্তু যেগুলো হচ্ছে সেগুলো ভালোভাবেই হচ্ছে। তবে আমাদের সিনেমা হলগুলোর সংস্করণ প্রয়োজন। কারণ দর্শক টাকা দিয়ে খারাপ কোথাও বসতে চায় না। সিনেমা হলের পরিবেশ ভালো হলে দর্শকও বাড়বে।

অডিও ইন্ডাস্ট্রির অবস্থা কেমন মনে করছেন?
এখন গান ইউটিউব নির্ভর হয়ে গেছে। অডিও ইন্ডাস্ট্রির অবস্থা মাঝে বেশি খারাপ ছিল। ক্রমান্বয়ে আবার ভালোর দিকে যাচ্ছে। তবে আরও সময় দিতে হবে। কারণ ডিজিটালি গান প্রকাশ হচ্ছে খুব বেশি সময় হয়নি। ভালো কাজ হলে শ্রোতারা সেটা গ্রহণ করবেই।

নতুন প্রজন্মের শিল্পদের সম্পর্কে কী বলবেন?
মিনারসহ এই সময়ে অনেকেই ভালো গান করছেন। নতুনরা সব সময় একধাপ এগিয়ে থাকে। তাদের সুযোগ করে দিতে হবে ভালো গান করতে। তবে নতুনদের অস্থির হওয়া যাবে না। সময় নিয়ে ভালো গান করতে হবে। ভালো গানের মধ্য দিয়ে একজন শিল্পী শ্রোতাদের মনে জায়গা করে নিতে পারে। গান দিয়ে মন জয় করা আর ভাইরাল হওয়া এক নয়।

Disconnect