ফনেটিক ইউনিজয়
সা ক্ষা ৎ কা র
ভালো ছবিতে অভিনয় করবো

ছোট পর্দার দর্শকপ্রিয় অভিনেত্রী শবনম ফারিয়া। হুমায়ূন আহমেদের উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত ‘দেবী’ চলচ্চিত্রের মধ্য দিয়ে বড় পর্দায় অভিষেক হলো তার। চলচ্চিত্র ও সমসাময়িক নানা প্রসঙ্গে তার সঙ্গে কথা বলেন এনআই বুলবুল

বড় পর্দায় অভিষেকের অভিজ্ঞতা কেমন?
এই ছবির শুটিংয়ের সময় আমি পরীক্ষার মধ্যে ছিলাম। ছবিটি মুক্তি পাওয়া মানে পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ হওয়া। ফলাফল অনেক ভালো হয়েছে। এটি জয়া আপা (জয়া আহসান) ও চঞ্চল ভাইয়ের ছবি। আমি তাদের সঙ্গে অভিনয় করেছি। ছবিটি আমাকে অনেক কিছু শিখিয়েছে। এখন থেকে হিসেব-নিকেষ করেই আগামীতে কাজ করবো।

প্রত্যাশার সঙ্গে প্রাপ্তির কতটুকু যোগসূত্র ঘটেছে?
ছবিটি থেকে এতটা সাড়া পাবো ভাবিনি। ভেবেছি দর্শক মূল চরিত্র দু’টি নিয়েই আলোচনা করবে। কিন্তু এখন দেখছি তার বিপরীত। এটা আমার জন্য রাজকীয় অভিষেক। তাই সব কিছুই স্বপ্নের মতো লাগছে। যেখানে যাচ্ছি সেখানে সকলেই প্রশংসা করছেন। এই অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করার মতো না।

‘নীলু’ চরিত্রটি নিয়ে বলুন?
আমি যখন মাধ্যমিকে ছিলাম তখন ‘দেবী’ উপন্যাসটি পড়ি। উপন্যাসটি সব পাঠকের জন্য ভালো লাগার। এর কোনো চরিত্র আমার জীবনের সঙ্গে জড়িয়ে যাবে তা ভাবিনি। যখন ছবিটিতে অভিনয়ের প্রস্তাব পাই তখন একবাক্যে রাজি হয়েছি। শুটিংয়ের সময় সবাই আমাকে ‘নীলু’ নামেই বেশি ডেকেছে।

জয়ার সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতা কেমন ছিল?
এই কাজের সময় জয়া আপাকে অভিভাবক হিসেবে পেযেছি। শুধু জয়া আপা নন, শুটিংয়ের সময় ইউনিটের সবাই অনেক সহযোগিতা করেছেন। ‘দেবী’ ছবির শুটিংয়ে আমি শতভাগ স্বাচ্ছন্দ্যে ছিলাম।

নতুন কোনো চলচ্চিত্রে কাজ করার পরিকল্পনা আছে?
এরমধ্যেই একটি ছবির প্রস্তাব পেয়েছি। কিন্তু ছবিটির সব কিছু আমার মনের মতো হয়নি বলে কাজ করা হচ্ছে না। তবে চলচ্চিত্রে কাজ করতে চাই। নাচ-গানের ছবিতে না। ভালো ছবিতে অভিনয় করবো। সেটি যেমন হোক। আমার কাছে কমার্শিয়াল কিংবা আর্টফিল্ম বলে কিছু নেই। আমি বুঝি ভালো ছবি এবং খারাপ ছবি।

ছোট পর্দায় কবে ফিরছেন?
‘দেবী’ ছবির ডাবিং-প্রচার ও প্রচারণার কারণে গেল তিন মাস ছোট পর্দা কোনো কাজ করিনি। এছাড়া কয়েক দিন আগে আমার হাতের আঙুল ভেঙেছে। এজন্য ডাক্তার বিশ্রামে থাকতে বলেছেন। তবে ছোট পর্দার শুটিংয়ে খুব শিগগির ফিরবো। সেখানেও ভেবে-চিন্তে কাজ করতে চাই। আগের মতো গতানুগতিক অভিনয় আর করবো না।

একক নাকি ধারাবাহিক দিয়ে ছোট পর্দায় ফিরবেন?
এই সময়ের বেশির ভাগ ধারাবাহিক শুরু হয় ভালোভাবে। কয়েক পর্ব কাজ করার পর সেটি ঠিক থাকে না। গল্প-চরিত্র সব কিছু এলোমেলো হয়ে যায়। অর্থাৎ ধারাবাহিকের গল্পে আর ধারাবাহিকতা থাকে না। আপাতত ধারাবাহিকে কাজ না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তবে যদি পরিচালক, বাজেট-গল্প ও চরিত্র সব কিছু মনের মত পাই তবে ভেবে দেখবো।

বলিউডে ‘#মিটু’ ঝড় বইছে। এটিকে কিভাবে দেখছেন?
‘#মিটু’কে ইতিবাচকভাবে দেখি। বলিউডে অনেক নামি-দামি ব্যক্তির নাম এসেছে এ তালিকায়। আমাদের দেশেও কম হচ্ছে না। সেক্রিফাইস করে কাজ করার কোনো মানে হয় না। একজন শিল্পী কাজের বিনিময়ে পারিশ্রমিক নেবেন- এটাই স্বাভাবিক।

ক্যারিয়ারে আপনাকে সেক্রিফাইসের মুখোমুখি হতে হয়েছে?
আমি ক্যারিয়ারের শুরু থেকে স্পষ্টবাদী। কোনো কিছু ঘটলে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে এটি নিয়ে লিখি। সেই কারণে অনেকের সঙ্গে আমার সম্পর্ক ভালো নেই। তবে আমাকে এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয়নি।

Disconnect