করোনা নিয়ে ফেসবুকে উস্কানিমূলক পোস্ট, ২ শিক্ষক বরখাস্ত

করোনাভাইরাসের সংক্রমণের পরিস্থিতিতে চিকিৎসকদের নিয়ে ফেসবুকে ‘উস্কানিমূলক’ বক্তব্য ও ছবি পোস্ট করায় দুই শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। 

গতকাল বুধবার (২৫ মার্চ) মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মোহাম্মদ মাহবুব হোসেন তাদের সাময়িক বরখাস্ত করেন।

পাশাপাশি সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা অনুযায়ী কেন তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে না, তা আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে জানাতে তাদের নোটিসও পাঠানো হয়েছে।

সাময়িক বরখাস্ত হওয়া শিক্ষকরা হচ্ছেন- ময়মনসিংহের গফরগাঁও সরকারি কলেজের সহকারী অধ্যাপক (ইংরেজি) কাজী জাকিয়া ফেরদৌসী ও বরিশাল সরকারি মহিলা কলেজের প্রভাষক (দর্শন) সাহাদাত উল্লাহ কায়সার।

দুই শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্তের আলাদা আদেশে বলা হয়, দেশব্যাপী করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণের জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট সব মন্ত্রণালয়, দফতর, সংস্থা সমন্বিতভাবে কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এ অবস্থায় আপনি আপনার ফেসবুক আইডি থেকে অনভিপ্রেত ও উস্কানিমূলক বক্তব্য ও ছবি পোস্ট করেছেন, যা সরকারের চলমান সমন্বিত কার্যক্রমের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়।

তাদের বিরুদ্ধে সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা ২০১৮’ অনুযায়ী সাময়িক বরখাস্তের পাশাপাশি অসদাচরণের কারণে বিভাগীয় কার্যক্রম গ্রহণের প্রস্তাব করা হয়েছে আদেশে।

কাজী জাকিয়া ফেসবুকে লিখেছিলেন, ‘খা সব খেয়ে ফল (ফেল)। শিক্ষা খেয়েছিস, ছাব্বিশটা ক্যাডার খেয়েছিস, সরকারকে খেয়েছিস, সরকারের সুনাম, অর্জন, স্বপ্ন সব খেয়েছিস। এবার পিপিই খা। সব তোরাই খা। আমাদের লাগবে না। মুখে মাস্ক দিয়ে বসে থাক সব নির্লজ্জ, রাক্ষসের দল। বিপদে পড়লে কোন অরক্ষিত ডাক্তারের কাছে যাবি না, যদি সামান্য লজ্জা থাকে। আর দেশের সবাই মরে গেলে নিজেরা ঝাড়ুদার ক্যাডারে এবজর্বড হয়ে যাস, আর সেল্ফি দিস।’

সাহাদাত উল্লাহ লিখেছিলেন, ‘করোনার ভয়ে চাকুরি ছাড়ার সংবাদটা বুলগেরিয়ার। বাংলাদেশের ডাক্তার ভাইয়েরা আপনার নিজের জীবন আগে, তারপর আপনার পরিবার, ছেলে মেয়ে, স্ত্রী তারপর অন্যসব। যে দেশ আপনার পেশার মূল্যায়ন করে না সে দেশের জন্য কাজ করে কী হবে। সেখানে তিনদিনের ইউএনও ৫৫ বছরের একজন প্রফেসর ডাক্তারের নিয়ন্ত্রক থাকে, যে কিনা ডাক্তারির ‘ড’ ও জানে না।’

২৫ মার্চ থেকে এদের সাময়িকভাবে বরখাস্ত করে আদেশে বলা হয়েছে, বরখাস্তকালীন তারা বিধান মোতাবেক খোরপোষ ভাতা পাবেন ও এসময়ে তাদের নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষের ‘গোচরে’ অবস্থান করতে হবে।

মন্তব্য করুন

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

© 2020 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh