কিম কারদাশিয়ানের সংসারে বিচ্ছেদের সুর

আলোচিত তারকা মডেল কিম কারদাশিয়ান এবং মার্কিন প্রেসিডেন্ট প্রার্থী সঙ্গীত শিল্পী ও ফ্যাশন ডিজাইনার ক্যানি ওয়েস্টের ছয় বছরের সংসারে বিচ্ছেদের সুর শোনা যাচ্ছে। 

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইল জানায়, গত এক বছর ধরে ৩৯ বছর বয়সী কিম ও ৪৩ বছরের ক্যানি আলাদা থাকছেন। তবে কিম এখনো সম্পর্ক ভেঙে দেয়ার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করেননি।

কিমের এক ঘনিষ্ঠ সূত্র জানায়, স্বামীর কাছে যা প্রত্যাশা করেছেন, তা তিনি পাননি। সম্প্রতি ক্যানির সঙ্গে দেখা করতে যান কিম। এ প্রসঙ্গে ওই সূত্র জানায়, তাদের বিয়েটা যে অকার্যকর হয়ে পড়েছে, এ কথা বুঝিয়ে বলতে এবং শেষ বিদায় জানাতেই কিমের ওই সফর। তবে তাদের মধ্যে পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ রয়েছে। আর কফিনে শেষ পেরেক পড়ার ঘোষণাটাও বাকি।

পিপল ম্যাগাজিন এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, ক্যানি তার সংসার গোছানোর চেষ্টা করছেন। সম্প্রতি তিনি এক টুইটার পোস্টে কিমের কাছে জনসমক্ষে ক্ষমাও চেয়েছেন।


তবে সূত্রের দাবি, কিম যা যা করতে বলেছেন, তার কিছুই ক্যানি করেননি। কিমের মতামত অনুসারে জীবনে কোনো পরিবর্তন আনেননি ক্যানি। তাই কিম সব কিছু নিয়েই খুব বিষণ্ণ। তিনি শেষ পর্যন্ত এ সম্পর্কের বিচ্ছেদ টানলে চার সন্তানকে নিজের সঙ্গে রাখতে চাইবেন। আর্থিকভাবে এজন্য তার কোনো বেগ পেতে হবে না। চার সন্তান এবং ক্যানির সঙ্গে তার সম্পর্কের কথা ভেবেই এখনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌঁছাননি; কিন্তু এবার তিনি সেপথেই যেতে চাইছেন। যদিও শেষ পর্যন্ত এ তারকা দম্পতি ডিভোর্স পেপারে স্বাক্ষর করবেন কিনা, সে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে!

হঠাৎ করেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দাঁড়াবেন বলে ঘোষণা দেন র‍্যাপার ক্যানি ওয়েস্ট। মানসিক অস্থিরতায় ভোগা ক্যানি তার স্ত্রীর সঙ্গেও বেশ কিছুদিন ধরে অস্বাভাবিক আচরণ করছিলেন। সম্প্রতি এক নির্বাচনী প্রচারণায় দেয়া ভাষণে ক্যানি জানান, তিনি কিম কারদাশিয়ানকে ডিভোর্স দিতে চান। এ মন্তব্যের পর সমালোচনার ঝড় বয়ে যায়।

তবে ক্যানির সমালোচকদের উদ্দেশ্যে কিম ইন্সটাগ্রামে লেখেন, অনেকেই হয়ত জানেন ক্যানির ‘বাইপোলার’ অসুখ রয়েছে। যাদের এই অসুখ আছে বা যাদের প্রিয় মানুষ এই অসুখে ভুগছেন তারই জানেন- বোঝাপড়ার জন্য এটা কতটা জটিল এবং কষ্টদায়ক। সে একজন প্রতিভাবান তবে দুর্বোধ্য মানুষ। যার কথার সঙ্গে মনের অভিপ্রায় অনেক সময় মেলে না।


টুইটারে কিম আরো লেখেন, সে একজন প্রতিভাবান তবে জটিল মানুষ; তারকা এবং কৃষ্ণাঙ্গ হওয়ার কারণে চাপে থাকতে হয়। যার রয়েছে মাকে হারানোর মতো মানসিক যন্ত্রণা। চাপ ও একাকিত্ব তার বাইপোলার অসুখটাকে আরও তীব্র করে।

পরে আগের মন্তব্যের জন্য ক্যানি ক্ষমা চেয়ে টুইটারে লেখেন, আমি নিজেদের একান্ত ব্যক্তিগত বিষয় প্রকাশ্যে আনায় কিমের কাছে ক্ষমা চাই। সে আমাকে যেভাবে গোপনীয়তার চাদরে মুড়ে রেখেছে, আমি ওর বেলায় তা পারিনি। আমাকে ক্ষমা করো, প্রিয়। তুমি সব সময় আমার সংকটে পাশে ছিলে।

কিম কারদাশিয়ান ক্যানি ওয়েস্টের প্রথম স্ত্রী। আর কেনি ওয়েস্ট কিম কারদাশিয়ানের তৃতীয় স্বামী। ২০১৪ সালে তাদের বিয়ে হয়। ছয় বছরের সংসার জীবনে তাদের চার সন্তান রয়েছে।

মন্তব্য করুন

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

© 2020 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh