ফনেটিক ইউনিজয়
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার
সাহাবুদ্দীন জামিল

বন্দরনগরী চট্টগ্রাম শহরের ছায়াঢাকা গ্রামীণ পরিবেশের হাটহাজারী থানায় অবস্থিত দেশের অন্যতম বৃহত্তম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ালেখার সুবিধার জন্য এবং গবেষণাভিত্তিক কাজের জন্য দেশের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ন্যায় এখানে রয়েছে একটি কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার। বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর ১৯৬৬ সালেই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এখানে সাময়িকভাবে গড়ে তোলেন একটি গ্রন্থাগার। এরপর ৯০ সালে এটি স্থানান্তর করে নিজস্ব ভবনে নেওয়া হয়। বর্তমানে এই ভবনেই রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার। এর আয়তন ৫৬ হাজার ৭০০ শ’ স্কয়ার ফিট। এটি দেশের বৃহত্তম গ্রন্থাগার। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারে রয়েছে ৩,৫০,০০০ লাখ বইয়ের বিশাল সংগ্রহ।
এছাড়া রয়েছে ৪০ হাজার জার্নাল। শিক্ষার্থীদের পড়ালেখা আর গবেষণার জন্য এখানে নিয়মিতভাবে রাখা হয় বিশ্বের নামিদামি বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা পত্র ও দুর্লভ সব গ্রন্থ। গ্রন্থাগারটি শিক্ষার্থীদের জন্য উন্মুক্ত হলেও প্রয়োজনে সকল শ্রেণির পাঠক এখানে পাঠ গ্রহণের জন্য আসতে পারেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছাড়াও এই গ্রন্থাগারে বিদেশি গবেষকরা গবেষণার জন্য আসেন। আসেন বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি গ্রন্থাগারের শিক্ষার্থীরাও। এখানে বই পাঠের জন্য কোনো সদস্য হওয়ার প্রয়োজন নেই। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা কেউ বইপত্র বাসায় নিতে হলে তার গ্রন্থাগার কার্ড জমা রেখে নিজের নামে বইটি ইস্যু করে নিতে হয়। গ্রন্থাগারে রয়েছেÑ জীব বিজ্ঞান, রসায়ন বিজ্ঞান, পদার্থ বিজ্ঞান, ভূ-জরিপবিদ্যা, গণিত, বাংলা এবং ইংরেজিসহ বিভিন্ন শাখার গুরুত্বপূর্ণ বই। এছাড়া রয়েছে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের রচনাবলী, মুস্তফা সিরাজ, আবুল মনসুর আহম্মদ, আলাওল, কায়কোবাদ, মাইকেল মধুসূদন দত্ত সহ আরো অনেকের বই। রয়েছে বিজ্ঞান, দর্শন, মহাকাব্য, সাম্প্রতিক ইতিহাস ভিত্তিক বই, মুক্তিযুদ্ধের বই, শিশু একাডেমি ও বাংলা একাডেমি থেকে প্রকাশিত বই, প্রবন্ধের বই, খেলাধুলার বই এবং জীবনী গ্রন্থমালা ইত্যাদি। এছাড়া বড়দের পাশাপাশি আছে শিশু-কিশোরদের পাঠযোগ্য বেশ কিছু বই। বাংলা বইয়ের পাশাপাশি গ্রন্থাগারে ইংরেজি বইয়েরও দুর্লভ সংগ্রহ রয়েছে। যেমন : The General History of the Mogal Empire- F.F. Catrou, London, 1709; 2. A History of Hindustan- Alexandar Dou, London; 3. The Works of Sir William Jones, London, 1799; 4. India’s Cries to British Huminity- J. Peggs, London, 1830; 5. Origin of the Sikh Power in the Punjab- H.T. Promsep, Calcatta, 1834; 6. Laili and Mjnun, A Poem from the Original Persian of Nazami- James Atkinson, London, 1835; 7. A Book of the Passions- G.P.R. James, Paris, 1839; 8. History of the Ottoman Turks- E.S. Creasy, London, 1865; 9. A Dictionary in Sanskrit and English, Calcatta, 1874; 10. The Annual Register or A View of the History, Polities and Literature for the Year 1761, 62, 68, 1769-1792, London. এছাড়া রয়েছে কিছু প্রাচীনকালের বাংলা দুর্লভ বই। যেমন : প্রাচীন মুদ্রা- রাখাল দাস বন্দোপাধ্যায়, কলকাতা, ১৩২২; বাঙলাদেশ- অমিতাভ গুপ্ত, কলিকাতা,১৩৭৮ ব.; অশ্রুমালা- কবি কায়কোবাদ, ঢাকা, ১৯০২ খ্রি.; কাফেলা নাটিকা- পিন্সিপাল ইব্রাহিম খাঁ, কলিকাতা, ১৩৬৬ ব.; সচিত্র মাসিকপত্র ‘সৌরভ’- কেদারনাথ মজুমদার, রিসার্চ হাউস, ময়মনসিংহ, ১৩১৯ ব. প্রভৃতি। রয়েছে জুনিয়র এনসাইক্লোপিডিয়া, এটলাস, গেজেটিয়ার, চাইল্ড ক্রাফট, এলমেনাক, ইয়ারবুকসহ বেশ কিছু উপন্যাস, বিদেশি অর্থনীতি, চিত্রকলা, গল্প এবং প্রবন্ধের বই। এছাড়া রয়েছে ছোটদের উপযোগী ইংরেজি ও বাংলা ম্যাগাজিন-পত্রিকা। পত্র-পত্রিকার মধ্যে গ্রন্থাগারে রয়েছে- ইংরেজিসহ বিভিন্ন ধরনের দৈনিক, সাপ্তাহিক, মাসিক, ত্রৈমাসিক, ষান্মাসিক, বার্ষিক মিলিয়ে ২৬ টি পত্রিকা। দেশিয় বাংলা পত্রিকাগুলোর মধ্যে হলো- যুগান্তর, ইত্তেফাক, জনকন্ঠ, কালের কন্ঠ, প্রথম আলো, মানবজমিন, ডেসটিনি, দিনকাল, ভোরের কাগজ, সংবাদ, বাংলাবাজার, নয়াদিগন্ত, যায়যায়দিন, সমকাল। আর ইংরেজি পত্রিকাগুলোর মধ্যে রয়েছে- ডেইলি স্টার, ডেইলি ইন্ডিপেনডেন্ট, নিউ নেশন, নিউজ উইক, ইকোনমিক্স, রিডার্স ডাইজেস্ট, ন্যাশনাল জিওগ্রাফি, পাক্ষিক ফ্রন্টলাইন, ইন্ডিয়ান দেশ, হেরাল্ড ট্রিবিউন এবং টাইমসসহ বিভিন্ন ধরনের সাপ্তাহিক ও বার্ষিক পত্রিকা।
সাধারণত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন বিষয়ে গবেষণার জন্য এবং নিজেদের ক্লাসের গুরুত্বপূর্ণ বই পাঠের জন্য ভিড় জমায় এই গ্রন্থাগারে। বিদেশি গবেষক, পিএইচডি গবেষক, এম. ফিল. গবেষক এবং শিক্ষার্থীরা গবেষণা করে এখানে। গ্রন্থাগারে একসাথে প্রায় ১৫০-২০০ জন পাঠক পাঠ গ্রহণ করতে পারে। বসার জন্য রয়েছে কাঠের টেবিল-চেয়ার। বই সহজেই খুজে পেতে ক্যাটালগ সিস্টেম রয়েছে। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে আজ অব্দি গ্রন্থাগারটি সেবার মান বজায় রেখে চলেছে। এছাড়া এখানে রয়েছে ফটোকপি সুবিধা ও বিনামূল্যে ইন্টারনেট ব্যবহারের সুবিধা। সমৃদ্ধ এই গ্রন্থাগারটি পর্যাপ্ত পাঠকের পাঠদানের জন্য প্রস্তুত সব সময়। সরকারি ছুটির দিনে গ্রন্থাগারটি বন্ধ থাকে। একজন প্রধান গ্রন্থাগারিক সহ সবমিলিয়ে ২০ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়ে গ্রন্থাগারটি পরিচালিত হয়। বিভিন্ন রকমের বইয়ে সমৃদ্ধ এই গ্রন্থাগারে পাঠক পেতে পারেন নানা বিষয়ের অজানা তথ্য সমৃদ্ধ নতুন নতুন বই ও জার্নাল। এ কারণেই প্রয়োজনে চলে আসতে পারেন বইয়ের সংগ্রহশালা চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারে। গ্রন্থাগারটি প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত খোলা থাকে পাঠকের জন্য।

Disconnect