ফনেটিক ইউনিজয়
জেনে নিন সাজগোজের টিপস
রমজানের ঐ রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ

ঈদ মানেই আনন্দ। সেই আনন্দে পাঠকের সঙ্গে ভাগাভাগি করে নিতে চায় সাম্প্রতিক দেশকাল। লাইফস্টাইল পেজের এবারের সংখ্যা তাই সাজানো হয়েছে ঈদের টুকিটাকি নানা বিষয় নিয়ে।

ঈদে নিজেকে ভিন্নভাবে উপস্থাপন করার কোনো বিকল্প নেই। কারণ ঈদ মানেই ঘরভর্তি মানুষ। আত্মীয়স্বজন। তাদের সামনে নিজেকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে নিজেকে ভিন্ন লুকে সাজিয়ে নিন। ঈদের সাজগোজ করার আগে জেনে নিন কিছু টিপস-
মেয়েদের জন্য টিপস
-ঈদের দিন একটু আরামদায়ক পোশাক পরিধান করাই ভালো। এক্ষেত্রে হালকা সুতি হলে বেশি ভালো হয়। শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, ফতুয়া, জিন্স যেটাই হোক তার সঙ্গে ম্যাচিং করে পরা যায় দুটি চুড়ি, পায়ে দুই ফিতার চটি। সবার মধ্যেই খুশি খুশি ভাবটা থাকে, তাই সাজগোজের ব্যাপারটিও এ সময় বেশি প্রাধান্য পায়। তবে এদিন শিফন, জর্জেট, সুতি, ঢাকাই জামদানি, মসলিন, টাঙ্গাইলের জামদানি কাপড়গুলোও পরতে পারেন।
-ঈদের দিনে এত কাজের ভিড়েও নিজেকে সুন্দর করে উপস্থাপন করতে সাজটাকে তিন ভাগে ভাগ করে নিন। সে অনুযায়ী পরিকল্পনা করুন সকাল, দুপুর ও রাতের সাজ এবং পোশাক কী হবে।
-সকালে এক-আধটু কাজের চাপ থাকে, তাই চলাফেরা করতে সহজ হয় এমন কোনো পোশাক বেছে নিন। সকালের আবহাওয়ার সঙ্গে মানানসই কোনো হালকা রঙের পোশাক পরা যেতে পারে। মেকআপের শুরুতে অবশ্যই ত্বক পরিষ্কার করে নিতে হবে। এরপর টোনার ও ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে স্কিন টোনের সঙ্গে মিলিয়ে ফাউন্ডেশন দিয়ে পাউডার ভালোভাবে লাগিয়ে নিন। সকালবেলায় ভারি মেকআপ না নেয়া ভালো। এ সময় চোখে কাজল পরতে চাইলে কালো না পরে ব্রাউন কালার বেছে নিতে পারেন।
-ঈদের দিন দুপুরে বাড়িতেই থাকার চেষ্টা করুন। দুপুরে হালকা রঙের পোশাক বেছে নিন। আর সাজের ক্ষেত্রে ফাউন্ডেশনের সঙ্গে পাউডার মেখে হালকা করে ব্লাশন বুলিয়ে নিন দুই গালে। আর দিতে পারেন লিপগ্লস। চোখের সাজে ভিন্নতা আনতে শ্যাডো আর আইলাইনার দিন। পোশাকের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে কানে আর গলায় ছোট গয়না পরুন।
-দুপুরে আইশ্যাডোর রঙের সঙ্গে ম্যাচ করতে পারেন আবার কন্ট্রাস্টও করতে পারেন। চোখের পুরোটা পাতায় বেজ কালার করে নিন। তারপর অন্য কালারগুলো লাগান। চোখের লেশের কোলঘেঁষে পেন্সিল আইলানারের টান আবার আউটার কর্নারটাও একটু টেনে দিতে পারেন। গালে আলত করে একটু ব্লাশন ছুঁইয়ে নিন। লিপ লাইনার দিয়ে ঠোঁট এঁকে লিপস্টিক লাগিয়ে নিন।
-রাতে আপনি আপনার ইচ্ছামতো সাজুন। বাইরে গেলে শাড়ি পরুন। বাঙালি নারীর শাড়িতেই পূর্ণ সৌন্দর্য প্রকাশ পায়। মুখ, গলায় ফাউন্ডেশন কমপ্যাক্ট পাউডার দিন। সাজ বেশি সময় স্থায়ী করতে স্পঞ্জ পানিতে ভিজিয়ে মুখে চেপে মেকআপ বসিয়ে নিন। মাসকারা, আইলাইনার ও গাঢ় রঙের শ্যাডো ব্যবহার করুন।
-রাতের সাজে শাড়ি খুব বেশি গর্জিয়াস হলে মেকআপটা পরিচ্ছন্ন ও উজ্জ্বল হবে। চোখের ওপরে অ্যাকোয়া ব্লু ও গ্রে আইশ্যাডো একসঙ্গে মিলিয়ে লাগান। চোখের ইনার কর্নারে গোল্ড বা শিমারি পিঙ্ক আইশ্যাডো স্মাজ করে লাগিয়ে নিন। তবে ব্লাশনের রঙ বেশি উজ্জ্বল না হওয়াই ভালো। হালাকা রঙে লিপস্টিক রাতের সাজের জন্য বেশি মানানসই হবে।
ছেলেদের জন্য টিপস
-ঈদের অন্তত আগের দিন দেখে নিন আপনার পোশাকআশাক এবং তার সাথে মিলিয়ে অন্যান্য সব আনুষঙ্গিক ঠিকমতো হয়েছে কিনা। ধরুন ঈদের দিন নামাজ পড়বেন। তার সাথে টুপি ও জায়নামাজ রেখেছেন কিনা। আবার ঈদের দিন যে যে পোশাক পরবেন এবং পোশাকের সাথে মিলিয়ে নানা অ্যাকসেসরিজ যেমন- সানগ্লাস, জুতো ইত্যাদি সব গোছানো হয়েছে কিনা তাও একবার নজর বুলিয়ে নিন।
-ঈদের আগেই চুল কেটে নিন। চুল কাটানোর ক্ষেত্রে নিজের চেহারার সঙ্গে মানানসই হয় এমন কাটিং বেছে নিন। ঈদের দিনটিতে একটু ভিন্নতা আনতে স্যালুনে গিয়ে করিয়ে নিতে পারেন ফেসিয়াল। এতে ঈদের দিন ত্বক থাকবে ফ্রেশ। কাজ ও শপিংয়ের ব্যস্ততায় পড়ে যদি হাত-পায়ের নখ কাটার কথা ভুলে গিয়ে থাকেন, তাহলে এ কাজটিও সেরে ফেলুন।
-ঈদের দিন সকালে নামাজ পড়ার জন্য আগে নিজেকে তৈরি করে নিন। এদিন সকালে অনেকেই পাঞ্জাবি পরতে পছন্দ করেন। চাইলে পাঞ্জাবির সঙ্গে সাদা রঙের পাজামাও পরতে পারেন। পাঞ্জাবির রঙটি একটু হালকা হলেই ভালো হয়। নামাজে যাওয়ার সময় সুগন্ধি ব্যবহার করতে পারেন। আবার চাইলে আতরও ব্যবহার করতে পারেন।
-দুপুরের সময়টাতে রোদে অনেকেই বের হতে চান না। তাই নামাজ পড়ে এসে অনেকেই বাসায় থাকতে বেশি পছন্দ করেন। আবার কেউ কেউ বন্ধুবান্ধবের সাথে ঘুরতে বেরিয়ে পড়েন। এ সময়েও পরতে পারেন পাঞ্জাবি-পাজামা অথবা পাঞ্জাবির সাথে পরে নিন চুড়িদার কিংবা জিন্স। ইচ্ছে হলে ক্যাজুয়াল শার্ট-প্যান্টও পরতে পারেন। উজ্জ্বল রঙের কাপড় এ সময়টায় বেশি মানাবে। পোশাকের সাথে মিলিয়ে চুল আঁচড়াতে পারেন এবং চুলে জেল দিয়ে স্টাইলও করতে পারেন।
-এ সময়টায় পাঞ্জাবির পরিবর্তে টি-শার্ট, কাজ্যুয়াল শার্ট-প্যান্ট অথবা ফর্মাল লুকে থাকতে পারেন। কারণ রাতের লুকটা কিছুটা গর্জিয়াস হওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। অথবা বন্ধুবান্ধব একই ধাঁচের পোশাক পরে কাটিয়ে দিতে পারেন সময়টা।

Disconnect