ফনেটিক ইউনিজয়
বিবর্ণ অ্যাথলেটিকসে সুখবর নেই
মোয়াজ্জেম হোসেন রাসেল

সম্প্রতি শেষ হলো জাতীয় অ্যাথলেটিকস আয়োজন। আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি ফেডারেশনের নির্বাচনের কারণে বর্তমান কমিটি বেশ তাড়াহুড়ো করেই শেষ করে এ খেলা। এর মূল কারণ জাতীয় প্রতিযোগিতা আয়োজন করতে না পারলে নির্বাচনের মাঠে গোল খাওয়ার আশঙ্কা আছে। এবারের আসরকে তিনটি দিক থেকে আলাদা করা যায়। তা হলো রেকর্ডবিহীন আসর, জেলা দলগুলোর অংশগ্রহণ কম এবং অ্যাথলেটের সংখ্যা কম। অথচ বিষয়গুলো গুরুত্ব পেলে খেলাটি আরও এগিয়ে যাওয়ার রসদ পেত।
সর্বশেষ আয়োজনে ৮-১০টি সাধারণ ফেডারেশনের কাতারে চলে গেছে অ্যাথলেটিকস ফেডারেশন। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের অ্যাথলেটিক ট্র্যাকে গত তিন বছর কোনো জাতীয় রেকর্ড হয়নি। ২০১২ সালে জেভলিনে সর্বশেষ রেকর্ড বুকে নাম উঠিয়েছিলেন সেনাবাহিনীর রাশেদুজ্জামান। ফেডারেশন বলছে ২০১৩ সালে জাতীয় এ প্রতিযোগিতার সর্বশেষ রেকর্ড হয়েছিল। ২০০ মিটার স্প্রিন্টে জাকিয়া সুলতানাই সর্বশেষ পুরস্কার অর্জন করেছিলেন। যা অ্যাথলেটিকসের জন্য ভয়াবহ খবরই বলতে হয়। এদিকে ব্যবহারের অভাব, অযতœ আর অবহেলায় নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে খেলার বিভিন্ন সামগ্রী। আর অনেকেই জাতীয় এ আসরকে এখন সার্ভিসেস দলের টুর্নামেন্ট বলতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছেন। কারণ সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি), আনসারের মতো দলগুলোই এখন বাঁচিয়ে রেখেছে খেলাটিকে। আর এই দলে খেলোয়াড়দের তৈরি করছে বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (বিকেএসপি)। আবার নতুন খেলোয়াড় উঠে না আসায় আজহারুল ইসলামের মতো বর্ষীয়ান খেলোয়াড়ই ডিসকাস থ্রোয়ের মতো খেলাগুলোকে টেনে নিয়ে যাচ্ছেন।
তবে ফেডারেশন বলছে জাতীয় রেকর্ড না হলেও প্রতিদ্বন্দ্বিতা পূর্ণ হয়েছে এবারের আসর। যদিও দুই দশক আগে বলার মতো অর্জন ছিল অ্যাথলেটিকসে। পাকিস্তান আমলে চরম অবহেলার মধ্যেও পশ্চিম পাকিস্তানের অ্যাথলেটদের হারিয়ে দ্রুততম মানবী হয়েছেন পূর্ব পাকিস্তানের স্প্রিন্টার সুফিয়া খাতুন। এ ছাড়া সাফ গেমসের দ্রুততম মানবের খেতাবটাও থাকত বাংলাদেশের দখলে। প্রয়াত দুই অ্যাথলেট শাহ আলম, মাহবুবুল আলম, গোলাম আম্বিয়া, বিমল চন্দ্র তরফদার, হার্ডলার মাহফিজুর রহমান মিঠুদের হাত ধরে একসময় নিয়মিত এসএ গেমস স্বর্ণপদক পেয়েছে বাংলাদেশ।
অথচ এখন এরকম সাফল্যে ভাটা পড়েছে বাংলাদেশের। সম্প্রতি সাফল্য বলতে ২০০৬ সালে কলম্বোয় ১১০ মিটার হার্ডলসে স্বর্ণপদক জয় করেন মাহফিজুর রহমান মিঠু। একই আসরে ১০০ মিটার হার্ডলসে  রৌপ্য পদক পান সুমিতা রানী।  ঢাকা এসএ গেমস বাংলাদেশ অ্যাথলেটিকস ও সাঁতারে বড় ধাক্কা দিয়ে গেছে। স্বাগতিক হয়েও দুই ডিসিপ্লিনে কোনো স্বর্ণপদক পায়নি বাংলাদেশ। অথচ ব্যর্থতা ঝেড়ে ফেলতে নেই সুদূরপ্রসারী কোনো পরিকল্পনা। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ (এনএসসি) পরিচালিত প্রতিভা অন্বেষা কার্যক্রম আঁকড়ে ধরেই নিজেদের চেয়ার ঠিক রাখতে বদ্ধপরিকর সংগঠকেরা।

Disconnect