ফনেটিক ইউনিজয়
সম্ভাবনাময় আর্চারিতে সুনজর প্রয়োজন
তারিক আল বান্না
আইএসএসএফ ইন্টারন্যাশনাল আর্চারি চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ দলের উল্লাস
----

ইসলামিক সলিডারিটি স্পোর্টস ফেডারেশন (আইএসএসএফ) ইন্টারন্যাশনাল আর্চারি চ্যাম্পিয়নশিপের গত আসরে স্বাগতিক বাংলাদেশ ছয়টি স্বর্ণপদক জিতে শিরোপা লাভ করেছিল। এবারের আসরে সম্ভাবনা ছিল গতবারের সফলতাকে ছাড়িয়ে যাওয়ার। স্বাগতিক আর্চাররা সে কক্ষপথেও ছিলেন। ১০টি ইভেন্টের মধ্যে নয়টিতেই ফাইনাল নিশ্চিত করে ফেলেন। কিন্তু  ফাইনাল রাউন্ডে এসে তা আর হয়নি। পাঁচটি স্বর্ণপদক নিয়ে শিরোপা জিতেছে লাল-সবুজ শিবির। বিশ্ব আর্চারির র‌্যাংকিংয়ে বাংলাদেশ যেখানে রয়েছে, আরও চেষ্টা করলে অলিম্পিক, কমনওয়েলথ গেমস, এশিয়ান গেমস কিংবা বিশ্ব আর্চারিতে অনেক  সাফল্য পেতে পারে। 
গতবারের তুলনায় এবার স্বর্ণ জয়ের পাল্লা ভারী করতে না পারলেও বিশ্বখ্যাত নারী আর্চার ইরাকের আল মাসহাদানী ফাতিমাকে কম্পাউন্ড ব্যক্তিগত ইভেন্টে পরাজিত করে বাংলাদেশের রোকসানা আক্তার স্বর্ণ জয় করেন। এবারের আসরে বাংলাদেশ পাঁচটি স্বর্ণ, সমানসংখ্যক রৌপ্য ও একটি ব্রোঞ্জপদকসহ ১১টি পদক জয় করে। ইরাকের আর্চাররা হয়েছেন রানার্সআপ। তারা একটি স্বর্ণ, দুটি রৌপ্য ও একটি ব্রোঞ্জপদক জয় করেছে। এছাড়া একটি করে স্বর্ণ আছে তুরস্ক, সৌদি আরব, এস্তোনিয়া ও আজারবাইজানের।
মওলানা ভাসানী হকি স্টেডিয়ামে শেষ দিনের প্রথম ইভেন্ট কম্পাউন্ড পুরুষ এককে বাংলাদেশের অসীম কুমার দাস ১৪০-১৩৪ স্কোরের ব্যবধানে স্বদেশী আবুল কাশেম মামুনকে পরাজিত করে প্রথম স্বর্ণ জয় করেন। কম্পাউন্ড পুরুষ দলগত ইভেন্টের স্বর্ণপদক জয় করেন বাংলাদেশি আর্চাররা। দেশের হয়ে অসীম, আবুল কাশেম মামুন ও মিলন মোল্লা ২২৫-২০৫ স্কোরের ব্যবধানে ইরাকের আল দাঘান ইসহাক, ফাইয়াধ আব্দুল্লাহ ও মোতির আমির এইচকে হারিয়ে স্বর্ণপদক জয় করেন। কম্পাউন্ড নারী দলগতভাবেও বাংলাদেশকে স্বর্ণপদক এনে দিয়েছেন রোকসানা আক্তার, বন্যা আক্তার ও রিতু আক্তার। মরক্কোর এল আসাদি কাদিয়া, এল ফাইজ সৌদ ও কারদাউদ ফাতিমা জাহরাকে ২১৬-১৫২ স্কোরের ব্যবধানে পরাজিত করেন তারা। রিকার্ভ পুরুষ দলগত ইভেন্টে বাংলাদেশ স্বর্ণপদক লাভ করে ৫-১ সেটে নেপালকে হারিয়ে।
কম্পাউন্ড নারী এককে না পারলেও মিশ্র দলগতভাবে ফাতিমা ঠিকই লক্ষ্যভেদ করে দেশের হয়ে স্বর্ণপদক জয় করেন। ইভেন্টে তার সঙ্গী ছিল সাখান ওয়ালিদ হামিদ। ১৪৬-১৪৩ স্কোর গড়ে স্বাগতিকদের পরাস্ত করেন এ জুটি। রিকার্ভ মিশ্র দলগতভাবে তুরস্কের বেরেকেত বুকার ও উনসাল বেগুনহান ৫-১ সেট পয়েন্টের ব্যবধানে বাংলাদেশের রুমানা সানা ও নাসরিন আক্তারকে পরাজিত করে। এছাড়া রিকার্ভ নারী দলগত ইভেন্টে আজারবাইজান ৫-৪ সেট পয়েন্টের ব্যবধানে স্বাগতিকদের পরাজিত করে স্বর্ণপদক জয় করে। কম্পাউন্ড নারী এককের ফাইনালে বাংলাদেশের রোকসানা ১৩৬-১৩৩ পয়েন্টে ব্যবধানে ফাতিমাকে হারান।
পুরুষ দলগত বিশ্ব আর্চারির র‌্যাংকিংয়ে বাংলাদেশ রয়েছে ৬৮ দেশের মধ্যে ৩০ নম্বরে। সেখানে এশিয়ার দেশ রয়েছে ২৬টি। আর নারীদের র‌্যাংকিংয়ে রয়েছে ৫৬ দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ৩২ নম্বরে। সেখানে এশিয়ার রয়েছে ১৮টি দেশ। পুরুষ ও নারী উভয় ক্ষেত্রেই শীর্ষে রয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া। আর্চারির ব্যক্তিগত ইভেন্টে বাংলাদেশ বেশ দুর্বল। ক্রিকেটের পর খ্যাতি অর্জনের সুযোগ রয়েছে আর্চারিতেই। তবে তার জন্য প্রয়োজন একটু ভালোভাবে চেষ্টা করা। তাহলে বাংলাদেশ আর্চারির মাধ্যমে আন্তর্জাতিকভাবে সুনাম অর্জন করবে, এমনটা আশা করা যায়।

Disconnect