ফনেটিক ইউনিজয়
কোচ নয় পরামর্শক এমেকা
তারিক আল বান্না
মাগুরা প্রেস ক্লাবে মতবিনিময় সভায় এমেকা ইজিউগো (মাঝে)
----

বাংলাদেশের ফুটবলকে যে কয়েকজন বিদেশি খেলোয়াড় ভালোবেসেছেন, তাদের মধ্যে অন্যতম নাইজেরিয়ার ফুটবল তারকা এমেকা ইজিউগো। তিনি ১৯৮৮ সালের অলিম্পিক দলের সদস্য, ১৯৯৪ সালের বিশ^কাপের উজ্জ্বল তারকা। কিছুদিন আগে এমেকা বাংলাদেশে আসেন রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির পরিদর্শন ও তাদের সহায়তা করতে। অনেকেই এরই মধ্যে ভেবে বসেছেন এমেকা জাতীয় ফুটবল দলের নতুন কোচ হতে পারেন। তবে কোচ না হলেও হয়েছেন পরামর্শক। কারণ ফুটবল যে তার রক্তে মিশে আছে।
এমেকা ছাড়াও বাংলাদেশের প্রতি ভালোবাসা দেখানো ফুটবলার হিসেবে ইরাকের শামির শাকির, শ্রীলংকার পাকির আলী, লায়নেল পিরিজ ও প্রেমলালের কথা উঠে আসে। একটা সময় অনেক ঘনিষ্ঠ থাকলেও এখন তাদের সঙ্গে আমাদের তেমন সম্পর্ক নেই। কিন্তু এমেকা ঢাকা মোহামেডানে খেলার পর বিশ^কাপ  ফুটবলে নাইজেরিয়ার প্রতিনিধিত্ব করার পর এখনও বাংলাদেশের কথা ভুলে যাননি। বাংলাদেশের ফুটবল ভালো পর্যায়ে উঠুক, আগের জনপ্রিয়তা ফিরে পাক, বাংলাদেশের মানুষ আবারও ফুটবলের সঙ্গে মিশে যাক- এমেকা মনে-প্রাণে সেটা কামনা করেন। আর তাই তো তিনি বাংলাদেশের মাটিতে নাইজেরিয়া ও ইতালির মতো দলকে আনার কথা মুখে এনেছেন।
এমেকার দেড় হাজার কিলোমিটার দৌড় শুরু হয়েছে ৩ জুন। তিনি ও তার সঙ্গীরা কক্সবাজার থেকে ঢাকা, মানিকগঞ্জ, রাজবাড়ী, মাগুরা হয়ে যশোর-বেনাপোল দিয়ে দেড় হাজার কিলোমিটার পথ দৌড়ে কলাকাতার উদ্দেশে রওনা হবেন। এমেকা বাংলাদেশের রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনকালে সেখানকার শিশুদের জন্য পাঁচ হাজার ফুটবল, আট হাজার শার্ট ও আট হাজার মশারি প্রদান করেন। তিনি বলেন, ‘যখন রোহিঙ্গাদের করুণ দৃশ্য দেখি, তখন আমার মন কেঁদে ওঠে, কারণ আমি একজন মুসলিম।’
বাংলাদেশের রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রতি সাহায্যের জন্য ফুটবলবিশ^কে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে দেড় হাজার কিলোমিটার দৌড়াবেন নাইজেরিয়া বিশ^কাপ দলের সাবেক এ তারকা ফুটবলার এমেকা। সেই ঘোষণাও তিনি দিয়েছেন। এ লক্ষ্যে ফান্ড কালেকশনের জন্য তিনি বাংলাদেশ, ভারত, ইতালি ও নাইজেরিয়ার মধ্যে একাধিক প্রীতি ফুটবল ম্যাচের আয়োজন করবেন বলে জানান।
২ জুন মাগুরা প্রেস ক্লাবে এক মতবিনিময় সভায় আন্তর্জাতিক বিশ^কে তথা ফুটবলবিশ^কে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সহযোগিতায় এগিয়ে আসতে অনুরোধ করেন। সাবেক ফুটবলার রোনালদোসহ আন্তর্জাতিক মানের খেলোয়াড়দের সমন্বয়ে প্রীতি ম্যাচ এবং নাইজেরিয়া ও ইতালিকে নিয়ে ভারত, বাংলাদেশে একাধিক প্রীতি ম্যাচ আয়োজনের ইচ্ছার  কথা জানান সাবেক এ তারকা খেলোয়াড়। তবে দেশে এমেকার এ উদ্যোগকে সফল করে তুলতে তার মতো করেই ভাবতে হবে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনকে (বাফুফে)। অর্থাৎ বিদেশী ফুটবল দলকে বাংলাদেশে এনে কিংবা বিদেশের মাটিতে দেশের দলকে খেলতে পাঠানোর ব্যবস্থা নিতে পারে বাফুফে। এতে এখনকার ‘মৃতপ্রায়’ ফুটবল জেগেও উঠতে পারে।
তাই খেলাটির উন্নতির জন্য ফেডারেশন আর শুধুম নির্বাচনের মধ্যে সীমাবদ্ধ না থেকে এমেকাদের মতো যারা বাংলাদেশের ফুটবলকে ভালোবাসেন, তাদের কাছ থেকে পরামর্শ গ্রহণ করুক, সেটাই কাম্য।
উল্লেখ্য, ঢাকার মাঠে মোহামেডানের হয়ে একসময়ের মাঠ কাঁপানো স্ট্রাইকার এমেকা বর্তমানে আমেরিকা প্রবাসী। নিউইয়র্কের একটি যুব ফুটবল দলের কোচের দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।

Disconnect