ফনেটিক ইউনিজয়
সা ক্ষা ৎ কা র
এবারের মৌসুম জমজমাট হবে

মৌসুমের প্রথম টুর্নামেন্ট ফেডারেশন কাপ দিয়ে শুরু হলো ঘরোয়া ফুটবলের লড়াই। আসরে অংশ নেয়া দল আরামবাগ-এর কোচ মারুফুল হকের সঙ্গে কথা বলেছেন মোয়াজ্জেম হোসেন রাসেল

ফেডারেশন কাপ শেষ হলো। কেমন দেখলেন আসরটি?
দলবদল থেকেই মৌসুমটা কেমন হবে সেটা আঁচ করা গিয়েছিল। যে দলগুলো শিরোপা জিততে চায় তারা আগে থেকেই ঘর গুছিয়ে নিতে শুরু করে। নতুন খেলোয়াড়দের দলে নেয়ার পাশাপাশি পুরনোদের ধরে রাখার কাজটিও করতে হয়েছে। মৌসুমের শুরুর টুর্নামেন্ট হিসেবে ফেডারেশন কাপের এ আসর বেশ জমজমাটই হয়েছে। সেরা দুই দলই ফাইনালে উঠেছে। এটি একটি ভালো লক্ষণ।

ভালো লক্ষণ বলছেন কিভাবে? আপনার দল তো কোয়ার্টার ফাইনাল থেকেই বাদ পড়ে গিয়েছিল?
আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ কোয়ার্টার ফাইনাল থেকেই বাদ পড়ে যায় তবে দলের পারফরম্যান্সে আমি খুশি। এই দল নিয়ে শেষ ষোলতে যাওয়াও কম পাওয়া নয়। আর ফাইনালে যে দুটি দল খেলেছে তাদের ভালো বলার কারণ হলো, বসুন্ধরা কিংস শুরু থেকেই ভালো দল গড়েছে। নতুন দল হিসেবে ফাইনালে উঠে তারা প্রত্যাশাটা পূরণ করেছে। আর ঢাকা আবাহনী ফেডারেশন কাপের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন। পেশাদার লিগেরও চ্যাম্পিয়ন। সে হিসেবে বলতেই পারি সেরা দুটি দল ফাইনালে উঠেছে।

এবার প্রতিটি দলে একজন করে বিদেশি খেলোয়াড় বাড়ায় দেশি খেলায়াড়দের সুযোগ কম হয়েছে। বিষয়টিকে কিভাবে দেখছেন?
দেশে যারা খেলছে তাদের উপর সম্মান রেখেই বলছি, বিদেশি খেলোয়াড়দের উপর নির্ভর করাটা এমনি এমনি হয়নি। তাদেরকে যে উদ্দেশ্যে দলে নেয়া হয়েছে তারা সেই দাবি পূরণ করতে পারছে। দেশি খেলোয়াড়রা সুযোগ পেলে সেটিকে কাজে লাগাতে হবে। যেমন শেখ রাসেলের বিপক্ষে বসুন্ধরা কিংসের জয়ের নায়ক কিন্তু দেশের তৌহিদুল আলম সবুজ। ইনজুরি নিয়েও কোচের আস্থার প্রতিদান দিয়েছে। এভাবে সুযোগকে কাজে লাগাতে পারলে ভালো কিছুই হতে পারে। বিদেশিদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেই খেলতে হবে আমাদের। সবুজের মতো গোল করে জাতীয় দলের খেলোয়াড়রা নিজেদের প্রমাণ করতে পারে।

টুর্নামেন্টের সময় নিয়ে বাফুফে বরাবরই কথা দিয়ে কথা রাখতে পারছে না। এটি ফুটবলের উপর কতটা প্রভাব ফেলবে?
ঘরোয়া ফুটবলের মৌসুম শুরু হওয়ার আগে একটা ক্যালেন্ডার করা হয়। প্রতিবারই দেখা হয় সেই ক্যালেন্ডার বাস্তবায়ন করতে পারে না বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। এবার যেমন ফেডারেশন কাপ শুরুই হয়েছে কয়েকদিন পর। এবার যখন সবদল পেশাদার লিগের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে তখনি ঘোষণা এলো ৩০ নভেম্বর থেকে স্বাধীনতা কাপ শুরু। এতে করে খেলায় ছন্দপতন হয়। ক্লাবগুলোকে নতুনভাবে প্রস্তুতি নিতে হয়। বাফুফে নির্বাচনের জন্য এমনটা করেছে বলে জানিয়েছে। এটি দেশের ফুটবলের জন্য মঙ্গলজনক নয়। তবে ক্লাবগুলো যে একেবারে বসে  থাকবে না এটি ভালো দিক।

এবার তো বিশ্বকাপ খেলা ফুটবলার খেলেছেন। তার কাছ থেকে  অনেক কিছু শেখার আছে?
এটি আসলে খেলোয়াড়দের উপর নির্ভর করে যে, তারা কতটুকু শিখতে পারে। কোস্টারিকার ড্যানিয়েল কলিনড্রেসের সঙ্গে যারা ড্রেসিংরুম শেয়ার করছে তাদের শেখার আগ্রহ থাকতে হবে। পাশাপাশি যে টিপস তারা নেবে সেটি কতটা গ্রহণ করতে পারবেÑ সেটিও একটি বিষয়। এ কারণে এবারের মৌসুমটা বেশ গুরুত্বপূর্ণ হবে। নতুনের সঙ্গে পুরনোদের লড়াই দেখতেও অপেক্ষায় থাকবে সকলে। বিশেষ করে পেশাদার লিগের লড়াইটা জমজমাট হবে এই বিশ্বাস আমার রয়েছে। এখন দেখার পালা কতটা জমজমাট হয়।

Disconnect