করোনায় প্রথম মৃত্যুর এক বছর

মৃতের সংখ্যা প্রায় সাড়ে ১৯ লাখ

করোনাভাইরাসের বৈশ্বিক সংক্রমণ ও মৃত্যু হঠাৎ বেড়ে যাওয়ার পর ফের কমে এসেছে এ সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় প্রায় এক সপ্তাহের মধ্যে করোনার সর্বনিম্ন সংক্রমণ ও মৃত্যু দেখলো বিশ্ব। 

এদিকে করোনায় প্রথম মৃত্যুর ঘোষণা আসে গত বছরের ১১ জানুয়ারি। গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। চীনে করোনায় প্রথম কোনো রোগীর মৃত্যু হয় চলতি বছরের ৯ জানুয়ারি। তবে তার ঘোষণা আসে ১১ জানুয়ারি। 

জরিপ পর্যালোচনাকারী সংস্থা ওয়ার্ল্ডোমিটারের আজ সোমবার (১১ জানুয়ারির) সকালের তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা সংক্রমিত হয়েছে ৬ লাখ ১২ হাজার ২১৪ জন। এর আগে গত ৭ জানুয়ারি বৈশ্বিক সংক্রমণ ৮ লাখ ৩৩ হাজার ৯৭৬ জনে স্পর্শ করে- যা করোনা মহামারি ছড়িয়ে পড়ার পর এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ। 

আর গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৮ হাজার ৮৩৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর আগে গত ৩০ ডিসেম্বর এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ ১৫ হাজার ২২০ জনের মৃত্যু হয়।

বৈশ্বিক এ মহামারিতে আক্রান্তের হার বেড়ে হয়েছে ৯ কোটি ৬ লাখ ৯৩ হাজার ৪৪৪ জন। আর বিশ্বব্যাপী করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ ৪৩ হাজার ১৭১ জনে। ভাইরাসটিতে আক্রান্তদের মধ্যে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছে ৬ কোটি ৪৮ লাখ ১৩ হাজার ৭০২ জন। 

ভাইরাসটির সংক্রমণ শুরুর একটা সময় যুক্তরাষ্ট্র করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর নিরিখে বিশ্বে শীর্ষ স্থানে পৌঁছে যায়। আজ পর্যন্ত শীর্ষস্থানেই রয়েছে দেশটিতে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ২ কোটি ২৯ লাখ ১৭ হাজার ৩৩৪ জন মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ৩ লাখ ৮৩ হাজার ২৭৫ জনের।

পৃথিবীর দ্বিতীয় জনবহুল দেশ ভারত রয়েছে করোনায় আক্রান্ত দেশের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে ও মৃত্যু নিয়ে আছে তৃতীয় অবস্থানে। দেশটিতে মোট আক্রান্ত এক কোটি ৪ লাখ ৬৭ হাজার ৪৩১ জনে পৌঁছেছে। মারা গেছে মোট ১ লাখ ৫১ হাজার ১৯৮ জন। 

ল্যাটিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিল আক্রান্ত দেশের তালিকায় তৃতীয় স্থানে থাকলেও সর্বাধিক মৃতের সংখ্যায় রয়েছে দ্বিতীয়তে। দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগী ৮১ লাখ ৫ হাজার ৭৯০ জন ও মৃত্যু হয়েছে ২ লাখ ৩ হাজার ১৪০ জনের।

তালিকায় রাশিয়ার অবস্থান চতুর্থ। দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগী ৩৪ লাখ ১ হাজার ৯৫৪ জন ও মৃত্যু হয়েছে ৬১ হাজার ৮৩৭ জনের।

আক্রান্ত দেশের তালিকায় পঞ্চম স্থানে উঠে এসেছে যুক্তরাজ্য। দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগী ৩০ লাখ ৭২ হাজার ৩৪৯ জন ও মৃত্যু হয়েছে ৮১ হাজার ৪৩১ জনের।

আক্রান্ত দেশের তালিকায় ফ্রান্স রয়েছে ষষ্ঠ স্থানে। দেশটিতে মোট আক্রান্ত ২৭ লাখ ৮৩ হাজার ২৫৬ জনে পৌঁছেছে। মারা গেছে মোট ৬৭ হাজার ৭৫৯ জন। 

মেক্সিকো আক্রান্ত দেশের তালিকায় ১৩তম স্থানে থাকলেও সর্বাধিক মৃতের সংখ্যায় রয়েছে চতুর্থ স্থানে। দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগী ১৫ লাখ ৩৪ হাজার ৩৯ জন ও মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৩৩ হাজার ৭০৬ জনের।

তুরস্ক আক্রান্তের তালিকায় সপ্তম স্থানে উঠে এসেছে, ইতালি অষ্টম স্থানে, স্পেন নবম ও জার্মানি দশম স্থানে রয়েছে। আর তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান ২৭তম। সবচেয়ে লক্ষ্যণীয় যে বিষয়টি তা হলো, এই এক বছরের মধ্যে চীন সংক্রমণের নিরিখে শীর্ষ স্থান থেকে ৮২ নম্বর স্থানে নেমে এসেছে।

চলতি বছরের ১৩ জানুয়ারি চীনের বাইরে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় থাইল্যান্ডে। পরে বিভিন্ন দেশে করোনা ছড়িয়ে পড়ে। গত ২ ফেব্রুয়ারি চীনের বাইরে করোনায় প্রথম কোনো রোগীর মৃত্যুর ঘটনা ঘটে ফিলিপাইনে।

চলতি বছরের ১১ মার্চ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) করোনাকে মহামারি ঘোষণা করে। এর আগে ২০ জানুয়ারি জরুরি পরিস্থিতি ঘোষণা করে ডব্লিউএইচও।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh