অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনার টিকা নিরাপদ: ডব্লিউএইচও

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও অ্যাস্ট্রাজেনেকার উদ্ভাবিত করোনাভাইরাসের টিকা রক্ত জমাট বাধঁতে সহায়তা করে- এমন কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি ও টিকাটি নিরাপদ। তাই এই টিকা প্রয়োগ স্থগিত না করার আহবান জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

ইউরোপের কয়েকটিসহ বেশ কিছু দেশ অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা দেয়া স্থগিত করার সিদ্ধান্তের পর সংস্থাটি এমন আহ্বান জানালো।

সংস্থাটি বলছে, এ টিকার সাথে ব্লাড ক্লট বা রক্ত জমাট বাঁধার কোনো প্রমাণ তারা পায়নি।

জার্মানি, ফ্রান্স, ইতালি ও স্পেনও তাদের পূর্বসতর্কতার অংশ হিসেবে এ টিকা প্রয়োগ স্থগিত রাখার কথা জানিয়েছে। এমন প্রেক্ষাপটে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার টিকা বিশেষজ্ঞদের আজ মঙ্গলবার (১৬ মার্চ) এ বিষয়ে বৈঠকে বসার কথা রয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে আলোচনার জন্য আজ আলাদাভাবে বৈঠকে বসবে ইউরোপিয়ান মেডিসিন এজেন্সি (ইএমএ) ও এ বিষয়ে বৃহস্পতিবারের মধ্যে একটি সিদ্ধান্ত তারা নেবে বলে আশা করা হচ্ছে। তবে তারা বলেছে, টিকা দেয়া অব্যাহত রাখা উচিৎ।

ইউরোপে টিকা দেয়ার পর রক্ত জমাট বাঁধার কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে। যদিও বিশেষজ্ঞরা বলেন, ওই কয়েকটি ঘটনার বাইরে সাধারণ মানুষের মধ্যে এ ধরণের রক্ত জমাট বাঁধার ঘটনার আর কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও যুক্তরাজ্যের প্রায় এক কোটি সত্তর লাখ মানুষ ইতোমধ্যেই অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা গ্রহণ করেছে। অ্যাস্ট্রাজেনেকা বলেছে, এর মধ্যে রক্ত জমাট বাঁধার ঘটনা ৪০টিরও কম।

জার্মানির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় গতকাল সোমবার (১৫ মার্চ) জানিয়েছে, দেশটির ভ্যাকসিন কর্তৃপক্ষের পরামর্শ অনুযায়ী তারা তাৎক্ষণিকভাবে অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা দেয়া বন্ধ করতে যাচ্ছে। দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, এ সিদ্ধান্তের কারণ হলো সেরেব্রাল ভেইন থ্রমবোসিসের কয়েকটি খবর যার সাথে অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার যোগসূত্র আছে। নতুন ঘটনাগুলোর প্রেক্ষাপটে পল এরলিখ ইন্সটিটিউট (জার্মানি ভ্যাকসিন কর্তৃপক্ষ) পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে টিকাদান স্থগিত রাখার সুপারিশ করেছে।

তিনি বলেন, এ সিদ্ধান্ত রাজনৈতিক নয়। আমরা সবাই এ সিদ্ধান্তের পরিণতি সম্পর্কে সচেতন ও আমরা খুব সহজেই এ সিদ্ধান্ত নেইনি।

এরপরেই ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ নতুন সিদ্ধান্ত না আসা পর্যন্ত টিকাদান স্থগিত ঘোষণা করেন। অন্যদিকে ইতালি মেডিসিন এজেন্সি অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার কয়েকটি ব্যাচের ওপর নিষেধাজ্ঞা বাড়িয়েছে। আর স্পেনের স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছেন, তারা টিকাদান অন্তত দুই সপ্তাহের জন্য বন্ধ রাখবে।

এর আগে নেদারল্যান্ডও ২৯ মার্চ পর্যন্ত এ টিকা দেয়া স্থগিত করেছে। অস্ট্রিয়াসহ কয়েকটি ইউরোপীয় দেশ পূর্বসতর্কতার অংশ হিসেবে অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার নির্দিষ্ট ব্যাচের টিকা দেয়া স্থগিত করেছে।

তবে থাইল্যান্ড মঙ্গলবার থেকে এ টিকা দেয়া আবার শুরুর ঘোষণা দিয়েছে। অন্যদিকে কানাডার প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা আশ্বস্ত করেছেন যে অ্যাস্ট্রাজেনেকাসহ যেসব টিকা সেখানে দেয়া হচ্ছে তার সবই নিরাপদ।

জানুয়ারি মাসের শেষ থেকে বাংলাদেশে অক্সফোর্ড ও অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকাটির প্রয়োগ শুরু হয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মুখপাত্র ক্রিস্টিয়ান লিন্ডমেয়ার বলেছেন, খবরগুলো তারা তদন্ত করেছেন এবং তাদের সুপারিশ শিগগিরই জানানো হবে। তবে আজ পর্যন্ত এসব ঘটনার সাথে টিকার কোনো সম্পর্ক পাওয়া যায়নি এবং ভাইরাস থেকে গুরুতর রোগ থেকে রক্ষা ও জীবন বাঁচানোর জন্য টিকা দেয়া অব্যাহত রাখা গুরুত্বপূর্ণ।

এদিকে যুক্তরাজ্যের মেডিসিন নিয়ন্ত্রক সংস্থা জনগণকে টিকা নেয়া অব্যাহত রাখতে অনুরোধ করেছে। -বিবিসি

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh