সংক্রমণ বাড়াচ্ছে দক্ষিণ আফ্রিকার ভ্যারিয়েন্ট

ছবি: স্টার মেইল

ছবি: স্টার মেইল

দেশে করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধির পেছনে দক্ষিণ আফ্রিকার ধরনের সংযোগের কথা জানিয়েছে আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশ (আইসিডিডিআর,বি)।

গবেষণা কেন্দ্রটি বলছে, গত ১৮ থেকে ২৪ মার্চের মধ্যে গবেষকরা ৫৭টি নমুনার জিনোম সিকোয়েন্স করে ৪৬টিতে দক্ষিণ আফ্রিকার ধরনের উপস্থিতি পেয়েছেন, যা শতকরা হিসেবে ৮১ শতাংশ। দক্ষিণ আফ্রিকার এই ধরন ৭০ শতাংশ বেশি সংক্রমণশীল।


এর আগে ১২ থেকে ১৭ মার্চ গবেষকরা ৯৯টি নমুনা পরীক্ষা করেন এবং ৬৪টিতে দক্ষিণ আফ্রিকার ধরন পাওয়ার কথা জানান, যা শতকরা হিসেবে ৬৪ শতাংশ।

এ বিষয়ে আইসিডিডিআর,বির জ্যেষ্ঠ গবেষক ড. মুস্তাফিজুর রহমান বলেন, আমরা লক্ষ্য করেছি যে মার্চ মাসের তৃতীয় সপ্তাহে যুক্তরাজ্য বা অন্যদের পরিবর্তে দক্ষিণ আফ্রিকার ভ্যারিয়েন্টটি সর্বাধিক প্রচলিত রূপে পরিণত হয়েছিল।

আইসিডিডিআর,বি বুধবার তাদের ওয়েবসাইটে গবেষণার যে ফল প্রকাশ করেছে, তাতে দেখা যাচ্ছে মার্চের শেষ সপ্তাহে দেশে করোনাভাইরাসের যে ধরনগুলো সক্রিয় ছিল, তার ৮১ শতাংশই দক্ষিণ আফ্রিকার ভ্যারিয়ান্ট।

স্বাস্থ্য অধিদফতর এবং আইইডিসিআরের সঙ্গে মিলে গত ডিসেম্বর থেকে এই গবেষণা শুরু করে আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইসিডিডিআর,বি। ওই সময় করোনাভাইরাসের নতুন ধরনগুলোর মধ্যে যুক্তরাজ্যের ভ্যারিয়েন্ট (B.1.1.7), দক্ষিণ আফ্রিকার ভ্যারিয়েন্ট (B.1.351) এবং ব্রাজিলের ভ্যারিয়েন্ট (P1/P2) বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে পড়তে থাকে। 

আইসিডিডিআর,বি বলছে, এই তিনটি ধরনেরই সংক্রমণ ঘটানোর সক্ষমতা বেশি; জিনগত পরিবর্তনও ঘটেছে বেশি, যা রোগীর চিকিৎসা পদ্ধতি এবং টিকার কার্যকারিতার ওপরও প্রভাব ফেলতে পারে।

গবেষকরা গত ১ জানুয়ারি থেকে ২৪ মার্চ পর্যন্ত সময়ে মোট ১৬ হাজার ২৬৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করেন এবং তার মধ্যে ২ হাজার ৭৫১টি নমুনা ‘পজিটিভ’ হিসেবে চিহ্নিত হয়, যা ১৭ শতাংশ। পজিটিভ নমুনাগুলোর মধ্যে ৪৪৩টি নমুনার স্পাইক জিন সিকোয়েন্সিং করা হয়। আইসিডিডিআর,বির করা সিকোয়েন্সিংয়ে ৬ জানুয়ারি প্রথমবার যুক্তরাজ্যের ধরনটি শনাক্ত হয়।

আইসিডিডিআর,বির গবেষণায় দেখা যায়, মার্চের দ্বিতীয় সপ্তাহ পর্যন্ত বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের যুক্তরাজ্যের ধরনটির সক্রিয়তা বাড়ছিল। সে সময় সক্রিয় সবগুলো ধরনের মধ্যে ৫২ শতাংশ ছিল ইউকে ভ্যারিয়েন্ট।

কিন্তু মার্চের তৃতীয় সপ্তাহে দক্ষিণ আফ্রিকার ধরনটি অতিমাত্রায় সক্রিয় হয়ে ওঠে। মার্চের শেষ সপ্তাহে সক্রিয় সবগুলো ধরনের মধ্যে ৮১ শতাংশই ছিল আফ্রিকার ভ্যারিয়েন্ট।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হিসেবে রেকর্ড সংখ্যক রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এ সময় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৭ হাজার ৬২৬ জনের। করোনায় মারা গেছেন ৬৩ জন, যা এক দিনে তৃতীয় সর্বোচ্চ মৃত্যু। করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৯ হাজার ৪৪৭ জনে। আর মোট শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৬ লাখ ৫৯ হাজার ২৭৮ জনে। 

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh