ঈদের আগে চালু হতে পারে দোকানপাট-গণপরিবহন

সড়কে, বাজারে সব জায়গায় সাধারণ মানুষের উপস্থিতি চোখে পড়ার মতো। গতকাল রবিবার রাজধানীর গুলিস্তান থেকে তোলা ছবি। -স্টার মেইল

সড়কে, বাজারে সব জায়গায় সাধারণ মানুষের উপস্থিতি চোখে পড়ার মতো। গতকাল রবিবার রাজধানীর গুলিস্তান থেকে তোলা ছবি। -স্টার মেইল

করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে চলমান বিধিনিষেধ আগামী বৃহস্পতিবার (১৪ জুলাই) থেকে অনেকটাই শিথিল হয়ে যাচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণপরিবহন, দোকানপাটসহ প্রায় সবকিছুই চালুর অনুমোদন দেয়া হতে পারে। একইসাথে কোরবানির হাটও চলবে। 

এ বিষয়ে যেকোনো সময় সিদ্ধান্তের ঘোষণা হতে পারে। এসব তথ্য জানা গেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সূত্রে।

এদিকে গতকাল রবিবার (১১ জুলাই) জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, করোনার এখন যে পরিস্থিতি সেটি আমরা পর্যবেক্ষণ করছি। যেভাবে করোনাভাইরাস ছড়িয়েছে সেটি আশঙ্কাজনক। ১ জুলাই থেকে ১৪ জুলাই পর্যন্ত বিধিনিষেধের সময়টা ও পরের সময়টা আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

তিনি আরো বলেন, যেহেতু ঈদ আছে, কোরবানির হাট আছে। এ দুটিকে কিভাবে করলে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করতে পারবো সেই আমাদের মূল লক্ষ্য। আমরা হাটগুলোকে কতগুলো নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে করতে পারি সেটি দেখার বিষয়। হাটগুলো খোলা জায়গায় স্থাপন করতে হবে। হাটে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আসতে হবে। হাটে আসলে প্রবেশ ও বের হওয়ার পথ আলাদা করতে হবে। 

গতকাল নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, দেশে চলমান বিধিনিষেধ সীমিত আকারে শিথিল হলে গণপরিবহন সীমিত আকারেই চলবে। আর যদি পুরোপুরি উঠে যায়, পরিবহনও পুরোপুরিই চলবে।

শ্রমজীবী মানুষসহ জীবিকার দিক, ঈদ ও অর্থনৈতিক দিক বিবেচনা করে বিধিনিষেধ শিথিল হচ্ছে বলে সরকারি সূত্রগুলো জানিয়েছে। তবে করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যুর বর্তমান পরিস্থিতিতে বিধিনিষেধ শিথিল করলে পরিস্থিতি কেমন হবে, সেটা নিয়েও আশঙ্কা রয়েছে।

এদিকে গতকাল রবিবার (১১ জুলাই) করোনা সংক্রমণে একইদিনে সর্বোচ্চসংখ্যক মৃত্যু ও রোগী শনাক্ত হয়েছে। গতকাল সারাদেশে করোনায় ২৩০ জনের মৃত্যু এবং ১১ হাজার ৮৭৪ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। এর আগে কখনো এক দিনে এত মৃত্যু ও নতুন রোগী দেখেনি বাংলাদেশ। গতকালের আগপর্যন্ত দেশে একদিনে সর্বোচ্চ রোগী শনাক্তের রেকর্ড ছিল ১১ হাজার ৬৫১ জন। আর সর্বোচ্চ মৃত্যু ছিল ২১২ জন।

এদিকে করোনার বিস্তার নিয়ন্ত্রণে সারা দেশে জারি করা কঠোর বিধিনিষেধের দ্বাদশ দিন আজ সোমবার। প্রাইভেট কার, রিকশা, পণ্যবাহী যানবাহনের সংখা গত কয়েকদিনের তুলনায় বেড়েছে। নিম্নআয়ের মানুষ, শ্রমজীবী আর ছোট ব্যবসায়ীরা ‘পেটের দায়ে’ এখন আর বিধিনিষেধ মানতে চাইছে না। রাজধানীর অলি-গলিতে ছোট-খাটো দোকানপাটগুলো খুলছে গত কয়েকদিন ধরেই। গণপরিবহন ছাড়া প্রায় সব ধরনের যানবাহনই চলছে ঢাকার সড়কগুলোতে। 

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh