বিমানের পাইলটদের কর্মবিরতির হুমকি

আগামী ৩০ জুলাইয়ের মধ্যে অন্য কর্মকর্তাদের সঙ্গে বেতন সমন্বয় না হলে বাংলাদেশ বিমান ও পাইলটদের মাঝে হওয়া দ্বিপাক্ষিক চুক্তির বাইরে ফ্লাইট পরিচালনা করবেন না পাইলটরা। করোনাকালে বিমানে সবার বেতন কাটার সিদ্ধান্ত হয়েছিল। দেড় বছর পর অন্যদের আগের মতো বেতন দেয়ার সিদ্ধান্ত হলেও পাইলটদের ক্ষেত্রে তা হয়নি। সেই কারণে কর্মবিরতির হুমকি দিয়েছেন রাষ্ট্রায়ত্ত বিমান সংস্থাটির পাইলটরা।

বুধবার বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের পাইলটদের সংগঠন বাংলাদেশ পাইলট অ্যাসোসিয়েশনের (বাপা) নির্বাহী কমিটি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হলে ৩০ জুলাইয়ের পর সৌদি আরব, কাতার, সংযুক্ত আরব আমিরাতের ফ্লাইট পরিচালনার জন্য পাইলট পাবে না বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স।

বাপার সভাপতি মাহবুবুর রহমান গণমাধ্যমকে বলেন, পাইলটদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দাবি আদায় না হলে প্রয়োজনে আমরা কর্মবিরতির মতো কর্মসূচি পালন করতে বাধ্য হব। বিমান কর্তৃপক্ষ আগামী ৩০ জুলাইয়ের মধ্যে বেতন সমন্বয় না করলে তারপর থেকে পাইলটগণ শুধু বিমান ও বাপার মধ্যে সম্পাদিত দ্বিপাক্ষিক চুক্তিপত্র অনুযায়ী ফ্লাইট পরিচালনা করবে।

তবে করোনাভাইরাস চলাকালীন চিকিৎসা সংক্রান্ত সরঞ্জাম, ওষুধপত্র, টিকা পরিবহনের জন্য বিমান চালাতে পাইলটরা প্রস্তুত থাকবে বলে জানান তিনি।

বৈমানিকদের দাবির বিষয়ে বিমান প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী বলেন, বর্তমান মহামারি পরিস্থিতি সবাইকে বিবেচনায় নিতে হবে। বিমানের পাইলটদের দাবি বিবেচনার জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষ রয়েছে। তারা সব দিক বিবেচনা করে সঠিক সিদ্ধান্ত নেবেন বলে আশা করি।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সে বর্তমানে ১৫৭ জন পাইলট কাজ করছেন। ২০২০ সালের মে মাস থেকে তাদের বেতন ২৫ থেকে ৫০ শতাংশ পর্যন্ত কাটা হচ্ছে।

মঙ্গলবারের আদেশে বলা হয়, বিমানে কর্মরত ‘কর্মকর্তা’ এবং যেসব ককপিট ক্রুর চাকরির বয়স শূন্য থেকে পাঁচ বছর, জুলাই মাসে তাদের কোনো বেতন কাটা হবে না।

তবে ককপিট ক্রুদের বিষয়ে বলা হয়েছে, যেসব ককপিট ক্রুর (পাইলটসহ) চাকরির বয়স ৫ থেকে ১০ বছর, জুলাই মাসে তাদের বেতন থেকে ৫ শতাংশ এবং যাদের চাকরিকাল ১০ বছর বা এর বেশি, তাদের ২৫ শতাংশ বেতন কাটা হবে।

পাইলটরা বলছেন, তারা ওভারসিজ অ্যালাউন্স নামে একটি ভাতা পেতেন, যা তাদের বেতনের ২০ শতাংশ। সেটা এখন সম্পূর্ণরূপে বন্ধ বলে মূলত তাদের বেতন ২৫ শতাংশের পরিবর্তে ৪৫ শতাংশ কাটা হবে। যাদের বেতন ৫ শতাংশ কাটা হবে, তাদের ক্ষেত্রেও সেটা ২৫ শতাংশে দাঁড়াবে।

আর ৫ বছরের কম সময়ে দায়িত্বপালনকারী যাদের বেতন কাটা হবে না বলা হচ্ছে, তাদের সংখ্যা ৫ থেকে ১০ জনের বেশি নয় বলে পাইলটরা জানান।

সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে, বিমান কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তের ‘জোরাল প্রতিবাদ’ জানিয়ে একটি চিঠি দেয়া হবে এবং আগামী ৩০ জুলাইয়ের মধ্যে বিমানের অন্যান্য কর্মকর্তা/কর্মচারীর মতো বেতন সমন্বয়ের অনুরোধ করা হবে।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //