মাঝসমুদ্রে সেন্টমার্টিনগামী বিলাসবহুল জাহাজে আগুন

চট্টগ্রাম থেকে সেন্টমার্টিনের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়া বিলাস বহুল ক্রুজশিপ বে ওয়ানের ইঞ্জিনে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) রাত দেড়টার দিকে যান্ত্রিক ত্রুটি থেকে লাগা এ আগুনে ব্যাপক ধোঁয়ার উৎপত্তি হয়। ত্রুটির কারণে জাহাজটি আর সেন্টমার্টিন যায়নি। আগুন ও যান্ত্রিক ত্রুটিতে জাহাজটির একটি ইঞ্জিন নষ্ট হয়েছে। এ কারনে জাহাজটি চট্টগ্রামে ফিরিয়ে আনা হচ্ছে।

এতে সহযোগিতা করছে বন্দরের শক্তিশালী টাগবোট ‘কাণ্ডারি ১০’।  সকাল ১০টার দিকে চট্টগ্রামের দিকে আসা শুরু করে।

জাহাজ পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠান কর্ণফুলী শিপবিল্ডার্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী আবদুর রশিদ বলেন, জাহাজের কয়েকটি তার লক হওয়ার কারণে ইঞ্জিনে আগুন ধরে যায়। এটি জাহাজের টেকনিক্যাল ফল্ট। এ জাহাজে সাবেক রেলমন্ত্রী মুজিবুল হকসহ তার পরিবারের কয়েকজন সদস্য রয়েছেন। তবে সব যাত্রী নিরাপদে আছেন বলে দাবি করেন তিনি। ত্রুটি সারানোর পর চট্টগ্রাম থেকে পুনরায় জাহাজটি ছেড়ে যাবে বলে জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার রাত ১১টায় চট্টগ্রাম নগরীর পতেঙ্গা ওয়াটার বাস টার্মিনাল থেকে সেন্টমার্টিনের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায় বে ওয়ান। জাহাজটি রাত দেড়টার দিকে কুতুবদিয়ার কাছাকাছি পৌঁছাতেই ইঞ্জিন রুম থেকে ধোঁয়া বের হতে থাকে। বিষয়টি টের পেতেই যাত্রীদের মধ্যে আতঙ্ক শুরু হয়। মাঝ সমুদ্রে ভয়ে কান্নাকাটি করতে থাকেন যাত্রীরা। কিছুক্ষণ ধরে ব্যাপক ধোঁয়া উঠার পর তা নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। এ সময় সব যাত্রীকে লাইফ জ্যাকেট পরিয়ে দেওয়া হয়। পরে জাহাজটি বঙ্গোপসাগরের কুতুবদিয়া চ্যানেলে নোঙর করে রাখা হয়। 

বে ওয়ান জাহাজের রিজার্ভেশন শাখায় কর্মরত মাহমুদ হাসান বলেন, ‘চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে যাওয়ার দুই ঘণ্টা পর জাহাজের ইঞ্জিনে ত্রুটি দেখা দেয়। সে কারণে জাহাজটি কুতুবদিয়া চ্যানেলে নোঙর করে রাখা হয়। আমাদের কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তে যাত্রীদের নিরাপদ স্থানে আনতে সেন্টমার্টিনের পরিবর্তে চট্টগ্রামে নিয়ে আসা হচ্ছে।’

চট্টগ্রামের কর্ণফুলী শিপবিল্ডার্স লিমিটেডের পরিচালনায় গত বছরের ১৪ জানুয়ারি চট্টগ্রাম-সেন্টমার্টিন রুটে পযর্টকদের জন্য এ জাহাজ উদ্বোধন করা হয়। প্রায় দুই হাজার যাত্রীর ধারণ ক্ষমতা আছে এ জাহাজটিতে।

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2022 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //