ঋণ পেতে আইএমএফের ৩০ শর্তে রাজি বাংলাদেশ

প্রায় সাড়ে চার বিলিয়ন অর্থাৎ ৪৬ হাজার সাতশো ২৬ কোটি টাকা ঋণ পেতে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) ৩০টি শর্তে রাজি হয়েছে বাংলাদেশ।

আজ শনিবার (৭ জানুয়ারি) ঢাকার একটি ইংরেজি দৈনিকে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ কথা জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি মাসের শেষের দিকে এই ঋণের প্রস্তাবটি অনুমোদনের জন্য আইএমএফের নির্বাহী বোর্ডে উপস্থাপন করা হবে। আর প্রস্তাবের আগে ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনে তিন দিনের সফরে আগামী ১৬ জানুয়ারি ঢাকায় আসছেন আইএমএফের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক অ্যান্টোনেট মনসিও সায়েহ।

জানা গেছে, সফরকালে অ্যান্টোনেট মনসিও সায়েহ দেশের অর্থমন্ত্রী, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ও অন্যান্য শীর্ষ সরকারি কর্মকর্তাদের সাথে সাক্ষাৎ করবেন।

ঋণ বিষয়ক আলোচনায় থাকা অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, সায়েহর বাংলাদেশ সফর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ তিনিই আইএমএফের পরবর্তী বোর্ড সভায় সভাপতিত্ব করবেন। ওই সভায় তিনি বাংলাদেশের বর্তমান অবস্থা এবং ঋণ দেওয়ার যৌক্তিকতা বোর্ড সদস্যদের কাছে ব্যাখ্যা করবেন।

ঋণ দেওয়ার বিষয়ে বাংলাদেশে আইএমএফের মিশন প্রধান রাহুল আনন্দের সাথে প্রাথমিক চুক্তিতে পৌঁছেছে সরকার।

বিস্তারিত আলোচনা ও যোগাযোগের পর গত মাসে ঋণ কার্যক্রমের শর্ত চূড়ান্ত করা হয়েছে বলে অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। 

গত ১ জানুয়ারি অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, আইএমএফের ঋণ কার্যক্রমে আমরা একমত হয়েছি। এবার তা আইএমএফের বোর্ডে আলোচনা করা হবে। আশা করি, এ ঋণ অনুমোদন দেওয়া হবে।

জানা গেছে, আইএমএফ বোর্ড যদি বাংলাদেশের ঋণের আবেদন জানুয়ারিতে মঞ্জুর করে, তাহলে পরের মাসেই প্রথম কিস্তিতে ৪৪ কোটি ৭৮ লাখ ডলার আসবে। এরপর ঋণ প্রস্তাবে উল্লেখিত সময়োপযোগী সংস্কারমূলক কাজ পূরণের শর্তে ৬৫৯ দশমিক ১৮ মিলিয়ন ডলারের ছয়টি সমান কিস্তিতে বাকি অর্থ পাবে বাংলাদেশ।

৪২ মাসের এই ঋণ কর্মসূচিতে ৩০টি শর্ত রয়েছে। শর্তগুলো তিনটি বিভাগের অধীনে পড়েছে। এগুলো হলো, কোয়ালিটেটিভ পারফরম্যান্স ক্রাইটেরিয়া (কিউপিসি), স্ট্রাকচারাল পারফরম্যান্স ক্রাইটেরিয়া (এসপিসি) ও সাধারণ প্রতিশ্রুতি।

ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে ঋণদাতা সংস্থাটি তিনটি বাধ্যতামূলক শর্ত দিয়েছে।

ঋণ বিষয়ে আইএমএফ কর্মীদের সাথে আলোচনায় থাকা ব্যক্তিদের কাছ থেকে জানা গেছে, বাধ্যতামূলক শর্তগুলো কিউপিসির অধীনে পড়ে। সেই শর্তগুলো হলো- নেট আন্তর্জাতিক রিজার্ভ ও অভ্যন্তরীণ রাজস্ব সংগ্রহের একটি ন্যূনতম স্তর নির্ধারণ এবং সরকারের বাজেট ঘাটতির ঊর্ধ্বসীমা নির্ধারণ।

আইএমএফ বিভিন্ন কিস্তিতে অর্থ দেওয়ার আগে সরকারকে অবশ্যই সংশ্লিষ্ট কিউপিসির লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করতে হবে। কিউপিসির তিনটি লক্ষ্যমাত্রা প্রতিটি কিস্তির সাথে ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাবে।

শর্তগুলো মধ্যে আরো রয়েছে অর্থনৈতিক খাতে সুশাসনের উন্নয়ন করা, ব্যাংক কোম্পানি আইন সংশোধন করা, উৎসকৃত ঋণ নিষ্পত্তির জন্য অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি স্থাপন করা এবং জ্বালানির মূল্য নির্ধারণে এমন ব্যবস্থা করতে হবে, যাতে এর দাম বিশ্ব বাজারের সাথে সমন্বিত হয়।

বর্তমানে দেশে নিট বৈদেশিক মুদ্রার মজুত প্রায় ৩২ দশমিক ছয় বিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে, যা সাড়ে তিন মাসের আমদানি বিলের জন্য যথেষ্ট।

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2023 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //