বাবা-ছেলে একসাথে ঢাবির ভর্তি পরীক্ষায়

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) পড়ার স্বপ্ন দেখলেও নানা প্রতিবন্ধকতার কারণে তিনি তা পেরে ওঠেননি। এরপর সন্তানদের মাধ্যমে চেষ্টা করেন স্বপ্ন পূরণ করার। কিন্তু তারাও তার স্বপ্ন পূরণে ব্যর্থ হওয়ায় হতাশ হয়ে পড়েন গাজীপুরের মাওনার বাসিন্দা ৫৫ বয়সী বেলায়েত শেখ।

এবার তিনি আক্ষেপ গোছাতে ঢাবির ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষের স্নাতকের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় বসলেন আজ শনিবার (১১ জুন)। ভর্তি পরীক্ষার আসন পড়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত ভবনে।

ভর্তি পরীক্ষা শেষে তিনি জানালেন, পরীক্ষা ভালোই দিয়েছেন। তবে ঢাবিতে ভর্তিচ্ছু তরুণ শিক্ষার্থীদের সাথে প্রতিযোগিতায় টিকতে পারবেন কি না, তা নিয়ে সংশয়ও জানান তিনি।

তিনি বলেন, পরীক্ষা দিয়ে আমার কাছে খুব ভালো লাগছে। বয়সের তুলনায় ভালোই পরীক্ষা দিয়েছি। কিন্তু ইয়াং জেনারেশনের সাথে কতটা পারব, তা আল্লাহর উপর ভরসা।

তিনি আরো বলেন, আমার তো শেষ বয়স, আমি একা সাগর পাড়ি দেওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছি; আমার সাথে যারা পরীক্ষা দিয়েছে তারা একটা ছোট্ট খাল পাড়ি দিয়েছে। লেখাপড়ার জন্য ইচ্ছাশক্তি আগে থেকেই ছিল, চেষ্টা করেছি, এ পর্যন্ত এসেছি। আমি অসময়ে লেখাপড়ায় আসছি, পরবর্তী প্রজন্মকে বলব তারা যেন যথাসময়ে পরীক্ষা দিয়ে জীবন গড়তে পারে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় বেলায়েতের ছোট ছেলে মো. সাদেক শেখ জীবনও অংশ নিয়েছেন।

জীবন বলেন, পরীক্ষা উপলক্ষে রাস্তায় যানজটের কথা ভেবে তারা শুক্রবার গাজীপুর থেকে তারা ঢাকায় পৌঁছান। সেখানে তার বাবার বন্ধুর বাসায় উঠেন।

আগ্রহের কমতি না থাকলেও আর্থিক দুরবস্থা ও বাবার অসুস্থতার কারণে ১৯৮৩ সালে নবম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ার পর লেখাপড়া থেকে ছিটকে গিয়ে সংসারের হাল ধরেছিলেন বেলায়েত শেখ।

বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চ শিক্ষা নিয়ে নিজের ‘অপূর্ণতা’ তিনি পূরণ করতে চেয়েছিলেন ভাই-বোনদের মাধ্যমে, পরবর্তীতে সন্তানদের দিয়ে। কিন্তু তা পূরণ না হওয়ায় আক্ষেপ নিয়ে তিনিই আবার পড়ালেখা শুরু করেন।

২০১৭ সালে ঢাকার বাসাবোর দারুল ইসলাম আলিম মাদরাসা থেকে ৪ দশমিক ৪৩ জিপিএ নিয়ে তিনি এসএসসি (ভোকেশনাল) পাস করেন। এরপর ২০২১ সালে রামপুরার মহানগর কারিগরি স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে জিপিএ ৪ দশমিক ৫৮ পেয়ে পাস করেন এইচএসসি (ভোকেশনাল)।

এরপর থেকে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা দেওয়ার জন্য প্রস্তুতি শুরু করেন। গত ১৯ মে বেলায়েত তার ফেসবুক আইডিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশপত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করলে তা নিয়ে শোরগোল পড়ে যায়।

বেলায়েতের জন্ম ১৯৬৮ সালে; শ্রীপুরের কেওয়া পশ্চিম খণ্ড এলাকায় স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে তার সংসার। দৈনিক করতোয়া প্রত্রিকায় শ্রীপুর প্রতিনিধি হিসেবে তিনি কাজ করেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পেলে তিনি গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগে পড়ার আগ্রহ প্রকাশ করেন।

তবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স না পেলে পড়াশোনা ছেড়ে দিবেন কি না- সেই প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানান, কখনোই না। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আমার স্বপ্ন বটে, তবে পড়াশোনা নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই।

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2022 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //