ICT Division

ঢাবিতে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি কামাল উদ্দিন রানা ও সাধারণ সম্পাদক রুবেল হোসেনের নেতাকর্মীদের মাঝে মধ্যরাতে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। অভিযোগ উঠেছে মদের আসর নিয়ে বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের নেতাকর্মীরা এই সংঘর্ষে জড়ায়। 

গতকাল বৃহস্পতিবার রাত দেড়টার দিকে এই ঘটনা ঘটে। হল ছাত্রলীগ সূত্রে জানা যায়, এ ঘটনায় ছাত্রলীগের ১০‌ জন কর্মী আহত হয়েছেন। 

প্রত্যক্ষদর্শী হল ছাত্রলীগের একাধিক কর্মী জানান, রাত ১১ টার দিকে হল ছাত্রলীগ সভাপতি কামাল উদ্দিন রানার সক্রিয় কর্মী মাস্টার্সের শিক্ষার্থী ফরিদ হল সভাপতি রানার কাছ থেকে টাকা নিয়ে মদ নিয়ে আসেন। রাত ১ টা পর্যন্ত ফরিদ ও তার গ্রুপের কর্মীরা তাদের মদের আসর জমাতে থাকে। মদ খেয়ে মাতাল হয়ে ফরিদ রাত বারোটার দিকে হল বারান্দায় হাঁটাহাঁটি করেন।

এদিকে সাধারণ সম্পাদক রুবেল হোসেনের গ্রুপের রাহী, শান্তসহ প্রায় ২০-২৫ জন নেতাকর্মী ওই হলের ছাদে বসে বিয়ার খাচ্ছিলেন। কিন্তু, রাত দেড়টার দিকে মদ ও বিয়ার খাওয়ার জেরে বাকবিতণ্ডায় জড়ায় দুই দল। বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে সভাপতি গ্রুপের সমর্থক ফরিদ সাধারণ সম্পাদক গ্রুপের সমর্থক পালি এন্ড বুদ্ধিস্ট স্টাডিজ বিভাগের ৩য় বর্ষের শিক্ষার্থী  রাহীকে চড় দিলে তা হাতাহাতিতে রূপ নেয়। এতে গুরুতর  আহত হন সাধারণ সম্পাদকের গ্রুপের শান্ত নামের এক শিক্ষার্থী।

পরিস্থিতির অবনতি হলে প্রথমে রানার দলের সমর্থকরা প্রথম বর্ষের ছাত্রদের স্ট্যাম্প, রড নিয়ে আসার জন্য‌ নির্দেশ দেন। পরে সভাপতি-সম্পাদকের পক্ষ হয়ে প্রায় শতাধিক শিক্ষার্থী রড, স্ট্যাম্প নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়। তখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে এগিয়ে আসেন সভাপতি রানা ও সাধারণ সম্পাদক রুবেল। পরে রাত আড়াইটার দিকে তারা দুইজনে আলোচনার মাধ্যমে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন।

এই ঘটনার ব্যাপারে হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি কামাল উদ্দিন রানা গণমাধ্যমকে বলেন, এখানে মাদক সেবন নিয়ে কোন ঝামেলা হয়নি। হলের ছাদে জুনিয়র শিক্ষার্থীরা উচ্চস্বরে গান গাওয়া নিয়েই ঝগড়ার সূত্রপাত ঘটে। আমরা গিয়ে তাদের থামিয়ে দিয়েছি।

হল সভাপতি কামাল উদ্দিন রানা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনের অনুসারী এবং সাধারণ সম্পাদক রুবেল হোসেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সভাপতি আল নাহিয়ান জয়ের অনুসারী হিসেবে পরিচিত।

হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. আবদুর রহিম গণমাধ্যমকে বলেন, বিষয়টি আমি জেনেছি। সকাল থেকেই হলের হাউজ টিউটর, স্টাফ, ছাত্রসহ হল ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সাথে কথা বলেছি, তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। সবার সাথে কথা বলে যেটা জেনেছি, হলের ছাদে ওঠা ও গান-বাজনা নিয়ে সিনিয়র-জুনিয়রদের মাঝে ঝগড়ার ঘটনা ঘটেছে। আমরা আপাতত হলের ছাদে ওঠা নিষিদ্ধ করে দিয়েছি এবং তালা দিচ্ছি। আর হল প্রশাসন এ বিষয়ে সতর্ক অবস্থানে থাকবে।

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2022 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //