বাসের ভেতর হত্যা, ৭ টিকটকার গ্রেপ্তার

রাজধানীতে বাসের ভেতর ইভটিজিং ও মাদক সেবনকে কেন্দ্র করে মারামারি ও হত্যার ঘটনায় ৭ টিকটকারকে গ্রেপ্তার করেছে শেরেবাংলানগর থানা পুলিশ।

গত মঙ্গলবার (১ নভেম্বর) রাজধানীর হাজারীবাগ, লালবাগ, মোহাম্মদপুর ও কামরাঙ্গীরচর এলাকায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করা হয়। তারা হলো- ফারুক (১৯), জিতু (১৮), জসিম (১৯), মোস্তফা (১৯), জোবায়ের ওরফে যুবরাজ ওরফে জয় (১৮),মোঃ রাব্বি (১৯) ও মোঃ রোমান (১৫)।

আজ বৃহস্পতিবার (৩ নভেম্বর) বেলা ১২টার দিকে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরেন অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম এন্ড অপারেশনস্) এ কে এম হাফিজ আক্তার।

তিনি জানান, গত মঙ্গলবার (১ নভেম্বর) রাজধানীর হাজারীবাগের টিকটকার শান্ত ধামরাইয়ের মোহাম্মদিয়া রিসোর্টে একটি পুল পার্টির আয়োজন করে। এতে হাজারীবাগ ও আশেপাশের এলাকার প্রায় শতাধিক তরুণ-তরুণী অংশগ্রহণ করে। তাদের এ আয়োজন ছিলো এই মৌসুমের শেষ টিকটকারস্ পুল পার্টি।

সেখান থেকে ফেরার পথে বাসের মধ্যে সিনিয়র-জুনিয়রদের মধ্যে গাঁজা খাওয়া নিয়ে তর্কবিতর্ক শুরু হয়। একপর্যায়ে বিষয়টি একজন সিনিয়রের গার্লফ্রেন্ডকে ইভটিজিংয়ের দিকে গড়ায়।

প্রাথমিকভাবে বিষয়টি নিজেদের মধ্যে কথা বলে সুরাহা করে নেয়া হলেও উভয়পক্ষই মূলত আরো মোক্ষম সুযোগের অপেক্ষায় ছিল। বাসটি হাজারীবাগ যাবার পথে আসাদ গেটে এসে পৌঁছালে গার্লফ্রেন্ডদের বাস থেকে নামিয়ে দিয়ে উভয় পক্ষই একে অপরের সাথে মারামারিতে লিপ্ত হয়।

এ সময় সিনিয়র গ্রুপের মোঃ রাব্বী ওরফে রাফা (২৪) তার কাছে থাকা সুইচ গিয়ার ছুরি দিয়ে জুনিয়র গ্রুপকে আঘাত করতে যায়। জুনিয়র গ্রুপের সদস্যরা একত্রিত হয়ে রাফার কাছ থেকে সুইচ গিয়ার ছুরি কেড়ে নিয়ে তাকে উপর্যুপরি আঘাত করে।

এছাড়াও, শাওন (১৯) নামের অপর একজনও এ সময় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে গুরুতর আহত হয়। পরে তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে রাব্বীর শারীরিক অবস্থার অবণতি হলে তাকে আইসিইউতে নেওয়া হয়। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল বুধবার (২ নভেম্বর) রাত ১টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার এ কে এম হাফিজ আক্তার বলেন, শেরেবাংলানগর থানা পুলিশ খবর পেয়ে প্রথমে ঘটনাস্থলে ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যায়। প্রাথমিকভাবে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ঐদিন মধ্য রাতের পর থেকে অভিযান শুরু করে পুলিশ। 

তিনি জানান, অভিযানকালে রাজধানীর হাজারীবাগ, মোহাম্মদপুর, লালবাগ ও কামরাঙ্গীরচর এলাকা হতে একে একে ৭ টিকটকারকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় মূল অভিযুক্ত ফারুকের কাছ থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত সুইচ গিয়ার ছুরিটি উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় নিহত রাব্বীর পিতা বাদি হয়ে শেরেবাংলা নগর থানায় মামলা দায়ের করেন।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে তিনি বলেন, পুলিশের কাছে তারা ঘটনার সাথে তাদের সম্পৃক্ত থাকার বিষয়টি স্বীকার করেছে। পুল পার্টি থেকে ফেরার পথে বাসে থাকা গার্লফ্রেন্ড গাঁজা ও সিগারেটের গন্ধ সহ্য করতে না পেরে বয়ফ্রেন্ডের কাছে অভিযোগ ও ইভটিজিংকে কেন্দ্র করে সমস্যার সৃষ্টি হয়। যার নির্মম পরিণতি এই হত্যাকাণ্ড।

পুলিশ জানায়, গ্রেপ্তার হওয়াদের মধ্যে প্রধান অভিযুক্ত ফারুকের নামে হাজারীবাগ থানায় তিনটি মামলা রয়েছে। অন্যান্যরা বয়সে কিশোর ও তরুণ। তারা কেউ ছাত্র, কেউ আবার কারখানার কর্মচারি।

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2023 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //