টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে পয়েন্টের অপেক্ষায় বাংলাদেশ

ছবি: বিসিবি

ছবি: বিসিবি

বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে প্রথমবার পয়েন্ট অর্জনের পথে রয়েছে বাংলাদেশ। ম্যাচের শেষদিন আর ৭ উইকেট নিলেই জিতে যাবে বাংলাদেশ। অন্যদিকে, ম্যাচ জিততে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে করতে হবে ২৮৫ রান।

ম্যাচের দ্বিতীয় ইনিংসেে চতুর্থ দিনে অধিনায়ক মুমিনুল হকের টেস্ট ক্যারিয়ারের দশম সেঞ্চুরি এবং লিটন দাসের ৬৯ রানের ইনিংসের সুবাদে ৮ উইকেটে ২২২ রানে ইনিংস ঘোষণা করে বাংলাদেশ। ওয়েস্ট ইন্ডিজের সামনে লক্ষ্য দাঁড়ায় ৩৯৫ রানের। জবাবে মেহেদি মিরাজের ৩ উইকেটে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দিন শেষ করেছে ৩ উইকেটে ১১০ রানে।

সফরকারীদের ইনিংসের ১৩তম ওভারে মিরাজের বলে অল্পের জন্য লেগ বিফোরের হাত থেকে বেঁচে চান ক্যাম্পবেল। ১৭তম ওভারে নিজের পঞ্চম ওভার করতে এসে প্রথম বলেই ক্যাম্পবেলকে এলবিডব্লিউ করেন মিরাজ। রিভিউ নিয়েও বাঁচতে পারেননি ক্যারিবীয় ওপেনার, সাজঘরে ফিরেন ৫০ বলে ২৩ রান করে।

নিজের পরের ওভারটি করতে এসে ক্যারিবীয় অধিনায়ককে ফেরান চলতি ম্যাচে দুর্দান্ত খেলতে থাকা এ অফস্পিনিং অলরাউন্ডার। অবশ্য এ উইকেটে শর্ট লেগে দাঁড়ানো ইয়াসির রাব্বির অবদানও অনেক বেশি। ব্রাথওয়েটের ব্যাট-প্যাডে লেগে আসা বলটি দারুণ ক্ষিপ্রতায় বাম হাতে ধরে ফেলেন রাব্বি। আগের ইনিংসে ৭৬ করা ব্রাথওয়েট এবার থামেন ২০ রানে।

মিরাজ যখন একপ্রান্ত থেকে আক্রমণাত্মক বোলিং করছিলেন, তখন অন্যপ্রান্তে তেমন চাপ সৃষ্টি করতে পারেননি আরেক অফস্পিনার নাঈম হাসান। বাঁহাতি স্পিনারের তাইজুলের বলেও হয়নি তেমন বিশেষ কিছু। অবশ্য মিরাজের বলেও ওভারপ্রতি তিনের বেশি করেই রান তোলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। 

মিরাজের বেশ নিচু হয়ে আসা ডেলিভারিতে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়েন ২ চারের মারে ১২ রান করা মোজলি। মিরাজের এই ঘূর্ণিতে বিনা উইকেটে ৩৯ থেকে ৫৯ রানেই ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

তবে দিনের শেষভাগে আর বিপদ ঘটতে দেননি আরেক অভিষিক্ত কাইল মায়ারস ও এনক্রুমাহ বোনার। অবিচ্ছিন্ন চতুর্থ উইকেট জুটিতে তারা খেলে ফেলেছেন ১৫.৪ ওভার, স্কোরবোর্ডে উঠেছে ৫১ রান। দিন শেষে বোনার ১৫ ও মায়ারস ৩৭ রানে অপরাজিত রয়েছেন। শেষদিনে ৭ উইকেট হাতে নিয়ে তাদের জয়ের জন্য করতে হবে ২৮৫ রান।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh