বিজেপির প্রস্তাবে সৌরভের না

 সৌরভ গাঙ্গুলী। ফাইল ছবি

সৌরভ গাঙ্গুলী। ফাইল ছবি

বিজেপির প্রস্তাব ফিরিয়ে দিলেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলী। তিনি এখন রাজনীতিতে নামতে চাইছেন না।

বিজেপির পক্ষ থেকে চেষ্টায় কোনো ত্রুটি ছিল না। বারবার তার কাছে প্রস্তাব নিয়ে যাওয়া হয়েছে। বিভিন্ন ধরনের প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব আন্তরিকভাবেই চেয়েছিলেন, সৌরভ পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হোন। 

কিন্তু বাদ সেধেছে সৌরভের হৃদরোগ। সম্প্রতি দুইবার হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন তিনি। একাধিক স্টেন্ট বসাতে হয়েছে। তারপর এখন বিশ্রামে আছেন। শরীরের এই অবস্থায় রাজনীতির নতুন ইনিংস শুরু করার ব্যাপারে সম্মতি জানাননি সৌরভ। 

সূত্র জানাচ্ছে, তিনি সবিনয়ে বিজেপি নেতাদের জানিয়ে দিয়েছেন- এখন রাজনীতিতে নামছেন না। নামার মতো অবস্থায় নেই। তাই মহারাজকে ছেড়েই এখন অংক কষতে হবে বিজেপিকে। 

২০১৯ সালের অক্টোবরে বিজেপি সরকারের হাত ধরে সৌরভ যখন ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি হলেন, তখনই জল্পনাটা ডালপালা মেলেছিল। তখনই ভাবা হয়েছিল বিজেপিতে যোগ দিয়ে ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে লড়বেন, এমন শর্তেই তাকে বোর্ডপ্রধান করা হয়েছে। 

সৌরভ অসুস্থ হওয়ার পরেই দিল্লিতে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বিজেপি নেতা ডয়চে ভেলেকে বলেছিলেন, সাবেক ক্রিকেট ক্যাপ্টেনকে পাওয়ার আশা শেষ হয়ে গেল। এখন আর রাজনীতির, প্রচারের ঝক্কি নেয়া তার পক্ষে সম্ভব নয়। মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থীকে রাজ্য চষে বেড়াতে হয়, অসংখ্য বৈঠক করতে হয় এবং দলের নেতা ও প্রার্থীদের হাজারো বায়ানাক্কা মেনে নিতে হয়। হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার পর এখন আর তার শরীর ওইরকম ঝক্কি নিতে পারবে না বলে তিনি জানিয়েছিলেন। 

কিন্তু তারপরেও বিজেপি নেতারা চেয়েছিলেন, আগামী ৭ মার্চ ব্রিগেডের জনসভায় সৌরভ থাকুন। তিনি ভোটে লড়বেন না, প্রচারও করবেন না। এক আধবার মোদী-শাহের জনসভায় থাকলেই হবে। অর্থাৎ প্রকাশ্যে বিজেপিকে সমর্থনের বার্তা দিতে হবে। 

এরপর কলকাতায় বিজেপি নেতা শমীক ভট্টাচার্য জানান, সৌরভ যদি ব্রিগেডের সভায় আসতে পারেন, তাহলে তাকে স্বাগত জানানো হবে। তবে পুরোটাই নির্ভর করছে তার সিদ্ধান্তের উপর।

কিন্তু রাজনীতিতে না নেমে শুধু প্রধানমন্ত্রীর সভায় উপস্থিত হওয়ার প্রস্তাবে সৌরভ রাজি হননি বলে সূত্র জানাচ্ছে। এরকম ধরি মাছ না ছুঁই পানির মতো করে রাজনীতি করতে তিনি একেবারেই উৎসাহী নন। 

বিজেপি নেতাদের ধারণা ছিল, সৌরভ তাদের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হলে পশ্চিমবঙ্গ জয় অনেক সহজ হয়ে যাবে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য রাজ্যে কোনো মুখ নেই বিজেপির। সৌরভ এলে সেই অভাব আর থাকত না। আর তার সমর্থকরাও তখন বিজেপির দিকে ঝুঁকে পড়তো। সেজন্যই তারা শেষ সময় পর্যন্ত সৌরভকে প্রস্তাব পাঠিয়ে গেছেন। -ডয়চে ভেলে

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh