দ্যুতি ছড়াচ্ছেন নবীনরা

ডিপিএল লোগো

ডিপিএল লোগো

সামনে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আসরকে সামনে রেখে এবারের ডিপিএল চলছে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে। তাই ডিপিএল থেকে ভালো খেলোয়াড় খুঁজে বের করাও জরুরি হয়ে পড়েছে। আমরা যদি ডিপিএল থেকে ভালো চার-পাঁচজন খেলোয়াড়ও নজরে আনতে পারি এবং জাতীয় দলের সঙ্গে তাদের সম্পৃক্ত করতে পারি, তবে আমাদেরই লাভ।

লিগের প্রথম ৭ রাউন্ডের খতিয়ানে তাকালেই অনেককিছু পরিষ্কার হয়ে যাবে। ব্যাটিংয়ে সেরা দশজনের মধ্যে জাতীয় দলের তারকা খেলোয়াড় প্রাইম ব্যাংকের তামিম ইকবাল ২৬.৮৫ গড়ে মোট ১৮৮ রান করে অষ্টম স্থানে রয়েছেন। তার সর্বোচ্চ সংগ্রহ ৪৭ রান। জাতীয় দলের অপর খেলোয়াড় তামিমের দলেরই মোহাম্মাদ মিঠুন ৪৭.৫০ গড়ে মোট করেছেন ১৯০ রান। তার সর্বোচ্চ রান অপরাজিত ৫৭। তিনি রয়েছেন সপ্তম স্থানে। গাজী গ্রুপের সৌম্য সরকার মোট ২০৮ রান করেছেন ২৯.৭১ গড়ে। তার সর্বোচ্চ সংগ্রহ ৬৭ রান। তিনি আছেন চতুর্থ স্থানে। শীর্ষে অবস্থানকারী, জাতীয় দলের বাইরে থাকা ওল্ড ডিওএইচএসের মাহমুদুল হাসান জয় মোট ২৬২ রান করেছেন। তিনি গড়ে ৮৭.৩৩ রান করেছেন। তার সর্বোচ্চ সংগ্রহ অপরাজিত ৮৫ রান। দ্বিতীয় স্থানে থাকা ব্রাদার্সের মিজানুর রহমান মোট ২২৬ রান করেছেন ৩২.২৮ গড়ে। তার সর্বোচ্চ রানব ৭৪। তৃতীয় স্থানে অবস্থানকারী শাইনপুকুরের তানজিদ হাসান তামিম (ছোট তামিম) মোট ২১৮ রান করেছেন ৩৬.৩৩ গড়ে। তার সর্বোচ্চ সংগ্রহ অপরাজিত ৭৯ রান। ষষ্ঠ স্থানে রয়েছেন জাতীয় দলের বাইরে থাকা তানজিদ ইসলাম ইমন। ওল্ড ডিওএইচএসের ইমনের মোট রান ১৯৬, গড় ৩২.৬৬, সর্বোচ্চ ৬৪ রান। নবম স্থানে রয়েছেন পারটেক্সের তাসামুল হক। তিনি ৩০.১৬ গড়ে ১৮১ রান করেছেন। তার সর্বোচ্চ রান অপরাজিত ৬৫। দশম স্থানে রয়েছেন জাতীয় দলে অনিয়মিত রনি তালুকদার। প্রাইম ব্যাংকের রনির মোট রান ১৭৯, গড় ২৫.৫৭, সর্বোচ্চ ৫৩ রান। 

জাতীয় দলের অন্যান্য ব্যাটসম্যানদের মধ্যে মুমিনুল হক মোট ১৭২, মেহেদি হাসান মিরাজ ১৬৭, মুশফিকুর রহীম ১৬০, সাকিব আল হাসান ১১০, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ১০৬, নাজমুল হাসান শান্ত ১০০, আফিফ হোসেন ১০৭, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ৮৯ রান করেছেন। স্পষ্টই দেখা যাচ্ছে, জাতীয় দলের বাইরে থাকারাই ভালো ব্যাটিং করেছেন।

বোলিংয়ে জাতীয় দলের তারকা মোস্তাফিজুর রহমানই শুধু ভালো করছেন। প্রাইম ব্যাংকের হয়ে মোস্তাফিজ ১০.০০ গড়ে মোট ১৩টি উইকেট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন। জাতীয় দলের বাইরে থাকা শাইনপুকুরের তানভির ইসলাম ৯.৪২ গড়ে ১৪টি উইকেট নিয়ে শীর্ষে অবস্থান করছেন। জাতীয় দলে আরেক নিয়মিত রুবেল হোসেন ১২.১০ গড়ে ১০টি উইকেট নিয়ে অষ্টম স্থানে আছেন। জাতীয় দলের বাইরে থাকা খেলাঘরের খালেদ আহমেদ ১৬.০০ গড়ে ১২ উইকেট পেয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছেন। চতুর্থ স্থানে রয়েছেন প্রাইম ব্যাংকের নাঈম হাসান। তিনি ১২.২৭ গড়ে ১১টি উইকেট পেয়েছেন। জাতীয় দলে অনিয়মিত ধলেশ্বরের কামরুল ইসলাম রাব্বি ১৪.৮১ গড়ে ১১টি উইকেট নিয়ে পঞ্চম স্থানে রয়েছেন। জাতীয় দলের বাইরে থাকা শেখ জামালের সালাউদ্দিন শাকিল ১৮.১৮ গড়ে ১১টি উইকেট নিয়ে ষষ্ঠ স্থানে রয়েছেন। জাতীয় দলের বাইরে থাকা গাজী গ্রুপের নাসুম আহমেদ ১২.১০ গড়ে ১০টি উইকেট পেয়ে সপ্তম স্থানে আছেন। 

এ ছাড়া, জাতীয় দলের তারকা খেলোয়াড়দের মধ্যে সাকিব আল হাসান, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, আবু জায়েদ রাহি মাত্র ৮টি করে, তাসকিন আহমেদ ও সাইফউদ্দিন মাত্র ৭টি করে এবং মেহেদি হাসান মিরাজ মাত্র ৫টি উইকেট লাভ করেন। ব্যাটিংয়ের মতো বোলিংয়েও জাতীয় দলের খেলোযাড়দের বাজে পজিশন লক্ষ্য করা যাচ্ছে। 

উইকেটকিপিংয়ে ডিসমিসালে যেখানে জাতীয় দলের বাইরে থাকা মাহিদুল ইসলাম অঙ্কন ৯টি, এনামুল হক বিজয় ৮টি, ইমরানউজ্জামান ৭টি, জাহিদুজ্জামান ও ধীমান ঘোষ ৬টি করে সাফল্য পেয়েছেন, সেখানে বাংলাদেশের অন্যতম সেরা তারকা মুশফিকুর রহীম উইকেটের পেছনে দাঁড়িয়ে মাত্র ৫টি সাফল্য পেয়েছেন। 

বাংলাদেশের জাতীয় দল গঠনের সময় দেখা যায়, টেস্ট হোক, ওয়ানডে হোক কিংবা টি-টোয়েন্টি হোক, নির্দিষ্ট তালিকার বাইরে যেতে পারেন না ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) এর নির্বাচকমণ্ডলী। বাংলাদেশের সামনের টি-টোয়েন্টি দল ঘোষণার সময় চলমান ডিপিএলের পারফর্ম মূল্যায়ন করবে বিসিবি, এটাই সবার প্রত্যাশা।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh