বরিশালে আলুর বাজার নিয়ন্ত্রণে মাঠে প্রশাসন

আলুর দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে পাইকারি প্রতিকেজি ২৫ টাকা এবং খুচরা মূল্য ৩০ টাকা মূল্য নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার। কিন্তু সরকারি নির্দেশনা মানা হচ্ছে না বরিশালের বাজারগুলোতে।

পাইকারি বাজারে প্রতিকেজি আলু সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে ১০ থেকে ২০ টাকা এবং খুচরা বাজারে ১০ থেকে ১৫ টাকা বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। অর্থাৎ পাইকারি বাজারে প্রতি কেজি আলু’র দাম রাখা হচ্ছে ৩৫ থেকে ৪০ টাকা এবং খুচরা মূল্য রাখা হচ্ছে ৫০ থেকে ৫৫ টাকা।

সরকারি নির্দেশনা থাকলেও এক প্রকার নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়ে বরিশালের আলুর বাজার। তাই সরকারের নির্দেশনা বাস্তবায়নে বাজার মনিটরিংয়ে নেমেছে বরিশালের জেলা প্রশাসন। অভিযানের প্রথম দিনেই বরিশালের দুটি পাইকারি প্রতিষ্ঠানে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন তারা।

বরিশাল জেলা প্রশাসক এস.এম অজিয়র রহমানের নির্দেশে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জিয়াউর রহমান এ অভিযানের নেতৃত্ব দেন। আর এতে আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে সহযোগিতা করেন বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের একটি টিম।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ৭ অক্টোবরে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর এক প্রজ্ঞাপনে আলুর সর্বোচ্চ বিক্র‍য় মূল্য পাইকারি কেজি প্রতি ২৫ টাকা ও খুচরা মূল্য কেজি প্রতি ৩০ টাকা নির্ধারণ করে দেয়া হয়। পাশাপাশি সরকারি এ নির্দেশনা বাস্তবায়নের জেলা প্রশাসকদের নির্দেশ দেয়া হয়।

বরিশাল জেলা প্রশাসন কার্যালয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জিয়াউর রহমান বলেছেন, ‘সরকারি নির্দেশনা বাস্তবায়ন ও আলুর মূল্য নিয়ন্ত্রণে শনিবার বেলা সাড়ে ১২টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত নগরীর পোর্টরোড ও পেঁয়াজ পট্টি এলাকায় আলুর পাইকারি বাজার মনিটরিং করেন তারা।

এ সময় পেঁয়াজ পট্টি এলাকার মোল্লা ট্রেডার্স ও পায়েল এন্টারপ্রাইজ নামক দুইটি পাইকারি আলু বিক্রির দোকানে অধিক মূল্যে আলু বিক্রির অপরাধে ভোক্তা অধিকার আইনে মোট ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, অভিযানকালে বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক দুলাল মোল্লা ও অন্যান্য পাইকারদের সাথে আলোচনা করেন তিনি। এসময় তাদেরকে সরকার কর্তৃক নির্ধারিত মূল্যে আলু বিক্রির নির্দেশনা দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। এসময় জেলা বাজার মনিটরিং কর্মকর্তা হাসান সারোয়ার উপস্থিত ছিলেন।

নির্বাহী ম্যাজস্ট্রেট মো. জিয়াউর রহমান আরো বলেন, পেঁয়াজের মতো আলুর বাজারে কোন সিন্ডিকেট বা অস্থিতিশীল পরিস্থিতি রুখতে জেলা প্রশাসন সর্বোচ্চ নজরদাঁড়ি রাখবে এবং জনস্বার্থে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।


মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

© 2020 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh