রোকেয়া সেজে সাক্ষী, শ্রীঘরে ময়না

গোপালগঞ্জে বাদী ও আসামি পক্ষের পরস্পরের যোগসাজসে রোকেয়া বেগম সেজে ভুয়া সাক্ষ্য দিতে এসে ফেঁসে গেলেন ময়না বেগম (৪৫) নামে এক নারী। 

বৃহস্পতিবার দুপুরে চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (সিজিএম) আদালতে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় বাদী (এজাহারকারী) , আসামী এবং সাক্ষী ওই নারীসহ ৯ জনকে আটক করে তাদের বিরুদ্ধে পৃথক মামলা দিয়ে জেল হাজতে পাঠিয়েছে আদালত।  

সিজিএম আদালতের নাজির মো. মনিরুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার মুকসুদপুর থানার জিআর ৫১/২০১৯ নং মামলার সাক্ষ্য গ্রহণের দিন ছিল। উক্ত মামলার নিযুক্ত রাষ্ট্র পক্ষের অতিরিক্ত সরকারি কৌসুলি (এপিপি) এম. এ. হাই আদালতে এজাহারকারীসহ ৪ জন সাক্ষীর হাজিরা দাখিল করেন। 

সাক্ষীদের মধ্যে বাদীর পক্ষের সাক্ষী হিসেবে গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর থানার ফতেপট্টি গ্রামের মো. সূর্য শেখের স্ত্রী রোকেয়া বেগম সেজে হলাফনামা পাঠ করে আদালতে জবানবন্দি দেওয়ার জন্য কাঠগড়ায় দাড়ান ময়না বেগম নামে ওই নারী।

জবানবন্দি গ্রহণকালে আদালতের বিচারক ও গোপালগঞ্জের চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মাদ সাহাদাত হোসেন ভূঁইয়া সাক্ষীর স্বামীর নাম একাধিকবার জিজ্ঞাসা করলে সে নাম বলতে ইতঃস্তত করতে থাকেন। এ সময় আদালতে উপস্থিত এজাহারকারী (বাদী) উক্ত সাক্ষীর নাম রোকেয়া বলে জানায়। এছাড়া তিনি যখন স্বামীর নাম বলতে পারছিলেন না তখন ডকে দাঁড়ানো আসামিদের মধ্য থেকে একজন পুলিশ রিপোর্টে উল্লেখিত তার স্বামীর নাম সূর্য শেখ বলে দেন। বিষয়টিতে আদালতের সন্দেহের সৃষ্টি হলে জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায় তিনি তার প্রকৃত নাম ময়না বেগম বলে আদালতের কাছে স্বীকার করেন। এছাড়া তিনি ফরিদপুরের ভাঙ্গা থানার হাসামদিয়া গ্রামের আকরাম সিকদারের স্ত্রী বলেও আদালতকে তার পরিচয় জানান।

এদিকে, এ ঘটনায় চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের (সিজিএম) বেঞ্চ সহকারী মো. জামিল আহমেদ বাদী হয়ে পরস্পর যোগসাজসে প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে সাক্ষীর কাঁঠগড়ায় দাঁড়িয়ে রোকেয়া বেগমের স্থলে ময়না বেগমকে দিয়ে মিথ্যা পরিচয়ে শপথ পাঠ করে সাক্ষ্য দেওয়ার অভিযোগে ওই নারীসহ বাদী ও আসামিপক্ষের ৯ জনকে আসামি করে একটি পৃথক মামলা দায়ের করেছেন। আদালতের বিচারক তাদেরকে জেল হাজতে পাঠিয়েছেন। 

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

© 2020 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh