মুন্সীগঞ্জে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১২

দলীয় মনোনয়নকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মিরকা‌দি‌ম পৌরসভায় বুধবার রাত থেকে বৃহস্পতিবার বিকেল পর্যন্ত চাপা উত্তেজনা ও থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

বুধবার রাত ১০ টা থেকে ১২ টা পর্যন্ত সদর উপজেলার মিরকাদিম পৌরসভার রামগোপালপুর, ভূবনগড়া, মিরাপাড়াসহ পৌর এলাকার বিভিন্ন স্থানে দফায় দফায় এ ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ১২ জন আহত হয়। ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া চাকালে বেশ কয়েকটি গুলির শব্দ পাওয়া গেছে।

এছাড়া একাধিক ককটেল বোমার বিস্ফারণের শব্দে প্রকম্পিত হয়ে ওঠে মিরকাদিম পৌরসভা। খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) খন্দকার আশফাকুজ্জামানের নেতৃত্বে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন। বুধবার মধ্যরাত থেকে বৃহস্পতিবার বিকেল পর্যন্ত পুরো মিরকাদিম পৌর এলাকা পুলিশের নিয়ন্ত্রণে থাকায় ঘোষিত প্রতিবাদ সভা করেনি বর্তমান মেয়র শহীদুল ইসলাম শাহীনের কর্মী সমর্থকরা। ঘটেনি কোনো অপ্রীতিকর ঘটনাও। বর্তমানে পুরো মিরকাদিম পৌর এলাকা জুড়ে চাপা উত্তেজনা ও থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

বৃহস্পতিবার (১৪ জানুয়ারি) বিকেলে সরেজমিন মিরকাদিম পৌর এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিটি মহল্লার বিভিন্ন পয়েন্টে মোতায়েন করা পুলিশ আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে।

আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা জানান, কেন্দ্রের ঘোষিত সিদ্ধান্ত সঠিক হয়নি, প্রার্থী পরিবর্তন করার দাবি নিয়ে হেভিওয়েট দুই মেয়র প্রার্থী হাইকমান্ডে দৌড়ঝাঁপ করছেন।

স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, চতুর্থ ধাপে মিরকাদিম পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় নৌকা প্রতীকের মনোনয়ন দেয়া হয় শিল্পপতি হাজী আব্দুস সালামকে। বুধবার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে মনোনয়নের খবরটি ছড়িয়ে পড়লে বর্তমান মেয়র ও আওয়ামী লীগ নেতা শহিদুল ইসলাম শাহীনের কর্মী সমর্থকরা মনোনয়ন প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে বিক্ষোভ মিছিল বের করে।

অপর দিকে একই সময়ে নৌকা প্রতীকের মনোনয়ন পাওয়ায় শিল্পপতি আব্দুস সালামের সর্মথকরা আনন্দ মিছিল বের করে। দুই পক্ষের মিছিলটি মুখোমুখি হলে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় এলাকায় রণক্ষেত্রে পরিণীত হয়। প্রায় দুই ঘন্টাব্যাপী থেমে থেমে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় মিরকাদিমে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে করেন।

এ ব্যাপারে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বাক্কার সিদ্দিক জানান, দলীয় মনোনয়নকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের উত্তেজনার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে করেন। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh