কুড়িগ্রামে একই পরিবারের চারজনকে হত্যায় ৬ জনের মৃত্যুদণ্ড

ছবি: কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি

ছবি: কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি

কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারী উপজেলার দিয়াডাঙ্গা গ্রামে একই পরিবারের চারজনকে কুপিয়ে হত্যা মামলায় ছয়জনের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। 

মামলার সাত আসামির মধ্যে একজনকে খালাস দেয়া হয়েছে ও মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত এক আসামি পলাতক রয়েছে। 

আজ মঙ্গলবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আব্দুল মান্নান এ রায় ঘোষণা করেন। রায় ঘোষণার পরপরই আসামিরা আদালতে ভাংচুর করে বিচারককে গালিগালাজ করে। পরে পুলিশ তাদের কারাগারে নিয়ে যায়।

আসামিদের মধ্যে- মমতাজ উদ্দিন, নজরুল ইসলাম মজনু, আমির হামজা, জাকির হোসেন, জালাল গাজি, হাসমত আলীকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়। এর মধ্যে জালাল গাজি পলাতক রয়েছে। আর নাইনুল ইসলামকে খালাস দেয় আদালত।

২০১৪ সালের ১৪ জানুয়ারি ভুরুঙ্গামারী উপজেলার দিয়াডাঙ্গা গ্রামে সুলতান মিয়ার বাড়িতে একদল মুখোশধারী গভীর রাতে প্রবেশ করে সুলতান মন্ডল, তার নাতনী রোমানা, আনিকা ও স্ত্রী হাজেরাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। এ ঘটনায় পরদিন সুলতানের ছেলে হাফিজুর রহমান ভুরুঙ্গামারী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলা সুত্রে জানা যায়, সুলতান আহমেদকে হত্যার জন্য মমতাজ উদ্দিন বাকি দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের ৫ লাখ টাকা ও একবিঘা জমি দেয়ার চুক্তিতে ভাড়া করে। 

রায় ঘোষণার পর নিহতদের স্বজন রফিক আহমেদ বলেন, এই রায়ে আমরা সন্তুষ্ট। আমরা চাই দ্রুত এ রায় কার্যকর করা হোক।

পাবলিক প্রসিকিউটর এ্যাডভোকেট আব্রাহাম লিংকন বলেন চার্জশিট দাখিলের দ্রুততম সময়ে এ রায় ঘোষণা করা হল। এই রায়ে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। রায় ঘোষণার পর দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের কাঠগড়া ভাংচুরের ঘটনার মতো ঔদ্ধত্যপুর্ণ আচরণই প্রমাণ করে তারা কতটা দুর্ধর্ষ। 

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh