সুনামগঞ্জে গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যু

আজমিনা বেগম (২৪) নামের এক গৃহবধুকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। ছবি: সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি

আজমিনা বেগম (২৪) নামের এক গৃহবধুকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। ছবি: সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় আজমিনা বেগম (২৪) নামের এক গৃহবধুকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

গতকাল বুধবার (২১ এপ্রিল) ভোররাতে উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের জামবাগ গ্রামে এই হত্যার ঘটনাটি ঘটে।

পরে বুধবার রাতে আজমিনার বাবা মো. আব্দুল্লাহ (৫০) বাদী হয়ে তাহিরপুর থানায় এ ঘটনায় অজ্ঞাতনামা আসামি করে মামলা দায়ের করেছেন।

আজমিনা দুই সন্তানের জননী। তিনি বাদাঘাট ইউনিয়ন জামবাগ গ্রামের শাহানুর মিয়ার স্ত্রী।

পুলিশ ও স্থানীয় এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, আজমিনার স্বামী শ্রমিক। তার স্বামী ধান কাটার জন্য ৭-৮ দিন ধরে অন্যত্র থাকায় প্রতিদিনের মতো রাতে খাবার খেয়ে ৯টার সময় আজমিনা তার ছেলে, মেয়ে ও ছোট ননদকে সাথে নিয়ে ঘুমাতে যায়। রাত ২টার পর বিছানায় মাকে দেখতে না পেয়ে ছেলেমেয়েরা চিৎকার করে উঠে। এসময় বাড়ির সবাই এসে দেখেন আমজিনা নেই। বাড়ির সামনে দরজা লাগানো থাকলে পিছনের দরজা খোলা ছিল। পরে রাতেই পরিবারের সদস্যরা আত্মীয়স্বজনদের বাড়িতে খোঁজ শুরু করে। এরপর সকালে আবারো খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে সকাল ৭টার দিকে বসতঘরের পাশে রান্না করার লাকড়ির রাখার জন্য তৈরি মাচার নিছে গাছের ডালপালা পাতা দিয়ে ডাকা অবস্থায় আজমিনার মরদেহ দেখতে পায় পরিবারের লোকজন। পরে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের লাশ উদ্ধার করে।  

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন তাহিরপুর সার্কেলের এএসপি বাবুল আখতার, ওসি আব্দুল লতিফ তরফদার, বাদাঘাট পুলিশ ফাড়িঁর ইনর্চাজ এসআই রাজিব।

এসআই রাজিব জানান, এই হত্যাকাণ্ডের সাথে কে বা কারা জড়িত এর সঠিক কারণ জানা যায়নি। এঘটনায় কাউকে আটক করা হয়নি। তবে এটি পরিকল্পিত হত্যা। এই বিষয়ে তদন্ত চলছে।

নিহতের স্বামী শাহানুর বলেন, মা হারিয়ে আমার সন্তানদের কান্না থামাতে পারছি না। বার বার শুধু সন্তানরা তাদের মাকে চাচ্ছে। আমার সাথে কারো কোনো বিরোধ ছিল না। যারাই এমন জঘন্য কাজটি করেছে তাদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় এনে কঠিন শাস্তির দাবি করছি।

ওসি আব্দুল লতিফ বলেন, এই ঘটনার পর পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছে। প্রাথমিক আলামতে মনে হয়েছে এটি পরিকল্পত হত্যা। নিহতের মাথা, গলা ও হাতে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। পুলিশ মৃত্যুর প্রকৃত ঘটনা উদঘাটনে ও ঘটনার সাথে জড়িতদের আইনের আওতায় আনার জন্য কাজ করছে।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh