বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিতে টুঙ্গিপাড়ার বাঘিয়ার খাল ও হিজল গাছ

বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিতে টুঙ্গিপাড়ার বাঘিয়ার খাল ও হিজল গাছ। ছবি: প্রতিনিধি

বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিতে টুঙ্গিপাড়ার বাঘিয়ার খাল ও হিজল গাছ। ছবি: প্রতিনিধি

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পৈতৃক বাড়ির পেছন দিয়ে বয়ে যাচ্ছে বাঘিয়ার খাল। আর খালের পাশে এখনো দাঁড়িয়ে আছে হিজল গাছ। বঙ্গবন্ধুর অনেক স্মৃতি বয়ে বেড়াচ্ছে বাঘিয়ার খাল ও হিজল গাছটি।

১৯২০ সালের ১৭ মার্চ গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্ম গ্রহণ করেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ছোটবেলা মা-বাবা আদর করে ডাকতেন খোকা নামে। দুরন্তপনায় ছিলেন সবার থেকে অনন্য। বাড়ির পেছন দিক দিয়ে বয়ে যাওয়া বাঘিয়ার খালে করতেন গোসল। সঙ্গে থাকতেন সমবয়সীরা। দুরন্তপনায় যেন হার মেনে যেত খালের স্রোতও। এ থেকে বাদ পড়ত না হিজল গাছটিও। সমবয়সীদের সঙ্গে নিয়ে গাছে উঠে খালের মাঝে করতেন লাফালাফি।

বড় হয়ে রাজনৈতিক জীবনে প্রবেশ করলেও টুঙ্গিপাড়ায় এলে বিভিন্ন কাজের জন্য এখান থেকেই নৌকায় বের হতেন বঙ্গবন্ধু। এলাকার মানুষ আর বন্ধুদের সঙ্গে সময় কাটাতেন এখানেই। বঙ্গবন্ধু না থাকলেও সেই বাঘিয়ার খাল আর হিজল গাছটি আজও নানা স্মৃতির সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে।

বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি ধরে রাখতে বঙ্গবন্ধুর বাড়ির পার্শ্ববর্তী খালের পাড় ও হিজল গাছের চারপাশ বাঁধাই করা হয়েছে। প্রতিদিনই জাতির পিতার স্মৃতি বিজড়িত হিজলতলাসহ খাল পরিদর্শনে আসেন শত শত বঙ্গবন্ধুপ্রেমী। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত নানা বয়সের দর্শনার্থীরা দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে এখানে এসে যেন অনুভব করেন বঙ্গবন্ধুর ছোঁয়া।

দর্শনার্থীদের মধ্যে অনেকে বলেছেন, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধুকে দেখিনি, কিন্তু টুঙ্গিপাড়ায় তার অনেক স্মৃতি রয়েছে। তাই এখানে এসে বঙ্গবন্ধুর আদি পৈতৃক বাড়ি, ছেলেবেলার খেলার মাঠ, বঙ্গবন্ধুর প্রিয় বালিশা আমগাছ ও হিজলতলাসহ বিভিন্ন স্মৃতি ঘুরে ঘুরে দেখি। যতই দেখি ততই অন্যরকম একটা অনুভূতি উপলব্ধি করি।

টুঙ্গিপাড়া গ্রামের বাসিন্দা ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বন্ধু সৈয়দ নুরুল হুদা মানিকের ছেলে সৈয়দ নজরুল ইসলাম বলেন, টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বাড়ির পাশেই বয়ে যাওয়া বাঘিয়ার ছোট খাল এবং ঘাটের হিজল গাছ অনেক স্মৃতি বহন করে চলেছে। এই হিজল গাছের নিচে খালের ঘাটে বঙ্গবন্ধু গোসল করতেন।

বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্য ও টুঙ্গিপাড়া পৌরসভার মেয়র শেখ তোজাম্মেল হক টুটুল বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি আর পদচিহ্ন ধরে রাখার জন্য বাঘিয়ার খালপাড় ও হিজল গাছের চারপাশ বাঁধাই করে সংরক্ষণ করা হয়েছে। যাতে বঙ্গবন্ধুপ্রেমীরা বঙ্গবন্ধুর শৈশবের ছোঁয়া অনুভব করতে পারে।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //