জেল থেকে বেরিয়ে নিরাপত্তা চাইলেন হৃদয় মণ্ডল

ধর্ম অবমাননার অভিযোগে কারাগারে যাওয়া বিজ্ঞানশিক্ষক হৃদয় মণ্ডল জামিনে মুক্ত হয়েই বলেছেন, তিনি নিরাপত্তা চান। ধর্ম অবমাননার অভিযোগ মিথ্যা বলেও দাবি করেছেন তিনি।

আজ রবিবার (১০ এপ্রিল) জেল থেকে মুক্তি পাওয়ার পর তিনি এ মন্তব্য করেন।

মুন্সীগঞ্জ সদরের বিনোদপুর রামকুমার উচ্চ বিদ্যালয়ে ২০ মার্চ দশম শ্রেণির ক্লাসে বিজ্ঞানের বিভিন্ন দিক নিয়ে ক্লাসে আলোচনা করেন হৃদয় মণ্ডল। তিনি ধর্মকে একটি ‘বিশ্বাস’ এবং বিজ্ঞানকে ‘প্রমাণভিত্তিক জ্ঞান’ হিসেবে ব্যাখ্যা করেন। গোপনে তার অডিও ধারণ করে এক শিক্ষার্থী।

ক্লাস শেষে শিক্ষার্থীরা প্রধান শিক্ষক আলাউদ্দিন আহমেদের কাছে ওই শিক্ষকের নামে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ দেয়। প্রধান শিক্ষক কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়ে তিন দিনের মধ্যে শিক্ষক হৃদয় মণ্ডলকে জবাব দিতে বলেন। তবে এর আগেই ২২ মার্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও বহিরাগতরা জোটবদ্ধ হয়ে হৃদয় মণ্ডলের শাস্তির দাবিতে স্কুলে মিছিল বের করে।

প্রধান শিক্ষক পরিস্থিতি সামাল দিতে পুলিশ, স্থানীয় প্রশাসন ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের খবর দেন। স্কুলে গিয়ে তারা শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বৈঠক করে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করেন। তবে ভেস্তে যায় সেই আলোচনা। একপর্যায়ে হৃদয় মণ্ডলকে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। রাতে তার নামে মামলা করেন স্কুল সহকারী মো. আসাদ। এর পর থেকে কারাগারে ছিলেন হৃদয় মণ্ডল।

১৯ দিনের মাথায় তাকে ৫ হাজার টাকা মুচলেকায় জামিন দেন অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোতাহারাত আক্তার ভূঁইয়া। এদিন বিকেল ৫টার দিকে মুন্সীগঞ্জ জেলা কারাগার থেকে হৃদয় মণ্ডল মুক্তি পান।

তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় ধর্ম অবমাননার অভিযোগ অস্বীকার করেন বিজ্ঞানের এই শিক্ষক। কী কারণে এই অভিযোগ তোলা হতে পারে এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘আমি বলতে পারছি না কী ঘটছে, স্কুলে অভ্যন্তরীণ রেষারেষি থেকেও হতে পারে, প্রাইভেট পড়ানো নিয়েও হতে পারে।’

এ রকম ঘটনা যাতে আর না ঘটে তা নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘জেলে কেউ আমার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেনি। সবাই ভালো ব্যবহার করেছে।’

নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘রাষ্ট্রের কাছে আমি নিরাপত্তা চাই। শুধু আমাকে না, সবাই যাতে নিরাপদে থাকে। পথেঘাটে আমার সঙ্গে যেন কোনো অসুবিধা না হয়।’


মুক্ত হৃদয় মণ্ডলকে বিনোদপুরের বাড়িতে নিতে এর আগেই সাদা রঙের একটি মাইক্রোবাস নিয়ে কারাফটকে আসেন তার স্ত্রী, শ্যালক ও দুই সন্তান। সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলা শেষ করেই গাড়িতে চড়ে বসেন হৃদয় মণ্ডল। পুলিশের নিরাপত্তায় গাড়িটি ফটক এলাকা ছেড়ে যায়।

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2022 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //